Inqilab Logo

সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

বিনা পুঁজিতে কোটি কোটি টাকার মাদক কারবার

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ অক্টোবর, ২০২১, ১১:০৩ এএম | আপডেট : ৪:২২ পিএম, ১৬ অক্টোবর, ২০২১

পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমার থেকে টেকনাফ ও সেন্টমার্টিনের মধ্যবর্তী নৌপথ দিয়ে দেশে আসছে ভয়ংকর মাদক আইস। কখনো আচার, কাপড়ের প্যাকেট আবার কখনো চায়ের ফ্লেভারের প্যাকেটে। টেকনাফে আইসের চালান কয়েক স্থানে মজুদ রাখা হয়। এরপর সুযোগ বুঝে বিভিন্ন যানবাহনে করে ঢাকার যাত্রাবাড়ীতে নেওয়া হয়। আইসের কোনো চালান যদি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক জব্দও হলে কোনো ধরনের পেমেন্ট নেয় না মিয়ানমারের মাদক কারবারিরা। যাত্রাবাড়ী থেকে অবৈধ মাদক আইসের সবচেয়ে বড় ৫ কেজির চালান এবং বিদেশি অস্ত্র ও গুলিসহ টেকনাফ কেন্দ্রিক আইস সিন্ডিকেটের অন্যতম হোতা মো. হোছেন ওরফে খোকন ও সহযোগী মোহাম্মদ রফিককে গ্রেফতারের পর এসব তথ্য জানিয়েছে র‌্যাব।

র‍্যাব সদর দফতরের গোয়েন্দা শাখা ও র‍্যাব-১৫ এর যৌথ অভিযানে শনিবার (১৬ অক্টোবর) ভোরে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

অভিযানের সময় জব্দ হওয়া আইসের বাজার মূল্য প্রায় সাড়ে ১২ কোটি টাকা। এছাড়াও তাদের কাছ থেকে দুটি মোবাইল, তিনটি মিয়ানমারের সিমকার্ড এবং মাদক কারবারিতে ব্যবহৃত ২০ হাজার টাকা জব্দ করা হয়।

শনিবার দুপুরে কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইং পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, ২০১৮ সালের ৩ মে র‍্যাবের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক মাদকের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযান পরিচালনার নির্দেশ দেন। শুরু হয় র‍্যাবের ‘চলো যাই যুদ্ধে, মাদকের বিরুদ্ধে’ অভিযাত্রা। সাম্প্রতিক সময়ে টেকনাফ কেন্দ্রিক কয়েকটি মাদক চক্র বেশ কিছুদিন ধরে পার্শ্ববর্তী মিয়ানমার থেকে মাদকদ্রব্য আইস নিয়ে আসছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে র‍্যাব গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে।

এরই ধারাবাহিকতায় র‍্যাব সদর দফতরের গোয়েন্দা শাখা এবং র‍্যাব-১৫ এর যৌথ অভিযানে টেকনাফ কেন্দ্রিক আইসের সর্ববৃহৎ চালানসহ দুজনকে গ্রেফতার করা হয়।

খন্দকার মঈন বলেন, গ্রেফতার হোছেন ওরফে খোকন টেকনাফ কেন্দ্রিক মাদক সিন্ডিকেটের অন্যতম। হোছেন ওরফে খোকন কাপড় ব্যবসা, বার্মিজ আচার ও চায়ের ব্যবসার কথা বলে অবৈধভাবে মিয়ানমারে যাতায়াত করে। এর আড়ালে মূলত তিনি ইয়াবা নিয়ে আসেন। গত পাঁচ বছর যাবত হোছেন ওরফে খোকন ইয়াবা কারবারে জড়িত। তবে বেশ কয়েক মাস ধরে তিনি আইসের চালান আনতে শুরু করেন। ইতোমধ্যে তার সঙ্গে মিয়ানমারের মাদক কারবারিদের সঙ্গে সুসম্পর্ক তৈরি হয়েছে। হোছেনের সিন্ডিকেটে রয়েছে ২০-২৫ জন। টেকনাফে তার পরিচিতি হোছেন নামেই। তার নামে বিভিন্ন থানায় অস্ত্র ও মাদকসহ অন্তত সাতটি মামলার তথ্য পাওয়া গেছে।

এদিকে, অপর গ্রেফতার মোহাম্মদ রফিক পেশায় একজন অটোরিকশাচালক। এর আড়ালে তিনি মাদক কারবারি চক্রের সদস্য। মিয়ানমার থেকে নৌপথে টেকনাফে আনার পর ইয়াবা ও আইসের চালান রফিকের অটোরিকশায় পৌঁছে যায় নিরাপদ স্থানে। টেকনাফে নিজস্ব সিন্ডিকেটের মাধ্যমে মজুদ রাখে ও সুযোগ বুঝে ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ বেশ কয়েকটি স্থানে পৌঁছে দেয়।

এতো তল্লাশি চৌকি থাকার পরও কীভাবে মিয়ানমার থেকে টেকনাফ হয়ে ঢাকায় আইসের চালান আসছে জানতে চাইলে কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, মিয়ানমার থেকে টেকনাফ ও সেন্টমার্টিনের মধ্যবর্তী সমুদ্রপথ এলাকায় মালবাহী বোটে করে আসছে ইয়াবা ও আইসের চালান। নিরাপদে মাদকের চালান খালাস করতে ব্যবহার করা হয় লাইট সিগনাল। পরবর্তীতে তারা সুবিধাজনক সময়ে বোট ভিড়িয়ে খালাস করে ও টেকনাফের বিভিন্ন নিরাপদ বাসায় মজুদ করে। এরপর আচারের প্যাকেট, বিভিন্ন চায়ের ফ্লেভারের প্যাকেট ও বার্মিজ কাপড়ের প্যাকেটে ঢাকায় আনা হচ্ছে আইস ও ইয়াবার চালান।


এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মঈন বলেন, চট্টগ্রামে ও ঢাকার অভিজাত শ্রেণির মধ্যে আকাশচুম্বী চাহিদা রয়েছে। তাদের চাহিদা অনুযায়ী আইসের চালান আসছে। চট্টগ্রাম হয়ে বিভিন্ন যানবাহন ছাড়াও নিজস্ব যানবাহন ব্যবহার করে উত্তরা, বনানী, গুলশান, ধানমন্ডি ও মোহাম্মদপুরসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় তাদের সিন্ডিকেট সদস্য ও ডিলারদের কাছে পৌঁছে দেয় আইস ও ইয়াবার চালান।


প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হোছেন ও রফিক জানিয়েছে, ইয়াবার সঙ্গে বাংলাদেশে আইসের কারবার ছড়িয়ে দিতে কম মূল্যে বিক্রি করছে আইস। এক গ্রাম আইসের দাম মিয়ানমার কারবারিরা রাখছে ২ থেকে ৩ হাজার টাকা। যা বাংলাদেশে বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। এই লাভজনক হওয়ায় আইসে ঝুঁকছে মাদক কারবারিরা। গড়ে তুলছে সুসম্পর্ক। দুই দেশের মাদক কারবারিদের মধ্যে এতোটাই সুসম্পর্ক গড়ে উঠেছে যে, কোনোভাবে আইসের কোনো চালান যদি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক জব্দও হয় তবে সেজন্য কোনো ধরণের পেমেন্ট নেয় না মিয়ানমারের মাদক কারবারিরা।

ইয়াবা ও আইসের চালানের টাকা হুন্ডির মাধ্যমে মিয়ানমারে পাঠাচ্ছে মাদক ব্যবসায়ীরা। পাশাপাশি অবৈধভাবে নিয়মিত মিয়ানমারে যাতায়াত করতেন গ্রেফতার হোছেন। মাদকের চালান খালাসের সময় মিয়ানমারের সিম ব্যবহার করতেন তিনি।

র‌্যাব জানায়, বর্তমান সময়ে সবচেয়ে আলোচিত মাদক হলো আইস বা ক্রিস্টাল মেথ। ক্রিস্টাল মেথ বা আইসে ইয়াবার মূল উপাদান এমফিটামিনের পরিমাণ অনেক বেশি থাকে। তাই মানবদেহে ইয়াবার চেয়েও অনেক বেশি ক্ষতি করে এই আইস। এটি সেবনের ফলে অনিদ্রা, অতি উত্তেজনা, স্মৃতিভ্রম, মস্তিষ্ক বিকৃতি, স্ট্রোক, হৃদরোগ, কিডনি ও লিভার জটিলতা এবং মানসিক অবসাদ ও বিষন্নতা তৈরি হয়। ফলে আত্মহত্যার প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। শারীরিক ও মানসিক উভয় ক্ষেত্রে এর নেতিবাচক প্রভাব রয়েছে। এই মাদক প্রচলনের ফলে তরুণ-তরুণীদের মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে এবং অস্বাভাবিক আচরণ করতে দেখা যায়। মাদকাসক্তরা নানা অপরাধে জড়িত হয়ে পড়ছে।



 

Show all comments
  • মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ১৬ অক্টোবর, ২০২১, ৫:৫০ পিএম says : 0
    খন্দকার মইন কে অনেক অনেক ধন্যবাদ,দেশের জনগণ আপনার জন্য দোয়া করবেন,আপনি যদি আমরা মনে করি আমাদের দেশের সুসন্তানদের উচিলায় এই গুলি বন্ধ হয়ে যাবে,এরা জনগণের কাছে সম্মানিত বীর সন্তান হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করে যাবেন।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গ্রেফতার

২৯ নভেম্বর, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ