Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

সর্বোচ্চ ব্যাংক সুদ পান সরকারি কর্মচারীরা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০১ এএম

সরকারি কর্মচারীরা এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি পরিমাণ ব্যাংক সুদ পেয়ে থাকেন। কর্মচারীরা সাধারণ জিপিএফ এবং সিপিএফ টাকা রাখার জন্য সুদ পান ১৩ শতাংশ। কিন্তু সাধারণ কোনো ব্যক্তি ব্যাংকে স্থায়ী আমানত (এফডিআর) রাখলে বর্তমানে ৬ থেকে ৭ শতাংশ সুদ পান। আর সঞ্চয়পত্র কিনলে সরকার দেয় ৯ থেকে ১১ শতাংশ সুদ। এর আগে জিপিএফ ও সিপিএফে টাকা রাখলে আরও ১ শতাংশ বেশি মিলত, অর্থাৎ ১৪ শতাংশ সুদ পেতেন তারা।
দুই বছর আগে ব্যাংকের সুদের হার কমিয়ে ৬ শতাংশে নামিয়ে আনার সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়। দুই সপ্তাহ আগে সরকার সঞ্চয়পত্রের সুদের হারও কিছুটা কমিয়েছে। এর আগে ২০১৫ ও ২০১১ সালে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানো হয়েছিল। তবে জিপিএফ ও সিপিএফের সুদের হার বহাল আছে একই জায়গায়। অর্থ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানোর পরপরই জিপিএফ ও সিপিএফের সুদের হারও ১৩ শতাংশ থেকে কিছুটা কমানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অর্থ বিভাগই শেষ পর্যন্ত এতে বাগড়া দেওয়ায় কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।
অর্থ বিভাগের হিসাবে, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে সরকার ১ লাখ ৭ হাজার ৬২৬ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছে। সঞ্চয়পত্রের সুদ ব্যয় ও জিপিএফ-সিপিএফের সুদ ব্যয়কেও সামাজিক নিরাপত্তা খাতের ব্যয় হিসেবেই বিবেচনা করা হয়। সরকারি কর্মচারীরা জিপিএফে টাকা রাখলেও কিছু সরকারি ব্যাংক ও স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার কর্মচারীরা টাকা জমা রাখেন সিপিএফে। জিপিএফের তুলনায় সিপিএফে অবশ্য কম সুবিধা দেয়া হয়। এ সম্পর্কে সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার বলেছেন, পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র ছাড়া অন্যগুলোতে হাত দেয়াই উচিত হয়নি। আর সরকারি কর্মচারীদের জিপিএফ ও সিপিএফের বিপরীতে ১৩ শতাংশ করে সুদ দেয়া গেলে সঞ্চয়পত্রের ক্ষেত্রেও তা দেয়া যায়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সর্বোচ্চ ব্যাংক সুদ
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ