Inqilab Logo

রোববার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৯ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

উন্নত ড্রোন দিয়ে চীন সীমান্তে নজরদারি বাড়িয়েছে ভারত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০০ এএম

প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা (এলএসি) বরাবর চীনের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যে ভারত উন্নত ইসরাইলি ড্রোনের বহর ব্যবহার করে অরুণাচল প্রদেশের সীমান্ত এলাকায় দিনরাত নজরদারি বাড়িয়েছে। বিপুল সংখ্যক ইসরায়েলি তৈরি হেরন মাঝারি উচ্চতার দীর্ঘ-ধৈর্যশীল ড্রোন পার্বত্য অঞ্চলে এলএসি-র ওপর চব্বিশ ঘণ্টা নজরদারি চালাচ্ছে এবং কমান্ড এবং নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও ছবি পাঠাচ্ছে।
এভিয়েশন ব্রিগেড : এ অঞ্চলে তার বিমান শাখার সম্প্রসারণে সেনাবাহিনী এ বছর এ অঞ্চলে একটি স্বাধীন বিমান পরিবহন ব্রিগেড নিয়ে এসেছে যাতে সংবেদনশীল অঞ্চলে তার সামগ্রিক কর্মক্ষম প্রস্তুতি জোরদার করা যায়। রিমোট পাইলটেড এয়ারক্রাফট ছাড়াও সেনাবাহিনীর এভিয়েশন উইং এ অঞ্চলে অ্যাডভান্সড লাইট হেলিকপ্টার রুদ্রের ওয়েপন সিস্টেম ইন্টিগ্রেটেড (ডব্লিউএসআই) ভেরিয়েন্টও মোতায়েন করছে।
সূত্র জানিয়েছে, এটি এ অঞ্চলে ভারতের কৌশলগত মিশনে আরো শক্তি যোগাবে।
তারা বলেছিল, যদিও হেরন ড্রোন প্রায় চার-পাঁচ বছর আগে এ অঞ্চলে মোতায়েন করা হয়েছিল, এখন ‘সেন্সর টু শ্যুটার’ ধারণার অধীনে নজরদারির সংহতকরণ উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত করা হয়েছে যাতে সামরিক বাহিনীকে সংক্ষিপ্ত নোটিশে কোনো সম্ভাব্য কার্যকর উদ্দেশ্যে নিয়োগ করা যায়।
এএলএইচ হেলিকপ্টারগুলোর ডাব্লিউএসআই সংস্করণ স্থাপনের ফলে সেনাবাহিনী উচ্চ-উচ্চতায় বিভিন্ন মিশন চালানোর জন্য একটি অতিরিক্ত সুবিধা প্রদান করেছে। এএলএইচ হেলিকপ্টারের অস্ত্র প্যাকেজ সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা বিস্তারিত জানাতে অস্বীকৃতি জানালেন। তবে, বলেন যে, এটি অন্যতম সেরা এবং প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে খুবই কার্যকর হবে।
উপরে উল্লেখ করা একজন ব্যক্তি বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে, আমাদের দিন এবং রাতের নজরদারি ক্ষমতা গত বছর থেকে ব্যাপক উন্নতি দেখেছে এবং আমরা এ অঞ্চলে যে কোনো ঘটনা মোকাবেলায় আরো ভাল অবস্থানে আছি’।
হেরন ড্রোনের ক্ষমতা সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে মেজর কার্তিক গর্গ এএনআইকে বলেন, ‘যতদূর নজরদারি সম্পন্নের কথা বলা হচ্ছে এটি সবচেয়ে সুন্দর বিমান। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এটি নজরদারির মেরুদণ্ড ছিল। এটি ৩০ হাজার ফুট পর্যন্ত উঠতে এবং মাটিতে কমান্ডারদের কাছে তথ্য প্রেরণ করতে পারে, যাতে, আমরা গ্রাউন্ডে বাহিনী পরিচালনা করতে পারি। এটি ২৪ থেকে ৩০ ঘণ্টা পর্যন্ত ছবি তুলতে সক্ষম’। তিনি বলেন, খারাপ আবহাওয়ার জন্য সেনাবাহিনীর সিন্থেটিক অ্যাপারচার রাডার রয়েছে যা পুরো ভূখণ্ডের ট্র্যাক দিতে পারে।
অবকাঠামো বাড়ানো : এর পাশাপাশি, সেনাদের দ্রুত চলাচলের সুবিধার্থে ভারত-চীন সীমান্তের কাছাকাছি অবকাঠামো বাড়িয়ে চলেছে। অরুণাচলে নতুন রাস্তা, সেতু এবং রেলপথ অবকাঠামো তৈরি করা হচ্ছে এ অঞ্চলে নিরাপত্তা গতিশীলতার পরিপ্রেক্ষিতে তাদের কৌশলগত প্রয়োজন বিবেচনা করে। এ সপ্তাহের শুরুতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং অরুণাচল প্রদেশের সেলা টানেলের চূড়ান্ত যুগান্তকারী বিস্ফোরণে সভাপতিত্ব করেন।
অরুণাচলের তাওয়াং এবং পশ্চিম কামেং জেলার সীমান্তে অবস্থিত এ টানেলটি সেলা পাস দিয়ে যায় এবং তাওয়াং হয়ে চীনের সীমান্তের দূরত্ব ১০ কিলোমিটার কমিয়ে আনা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ অঞ্চলে অবকাঠামো বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের অংশ হিসেবে সরকার তাওয়াংকে একটি রেলওয়ে নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্তিতে কাজ করছে। ওপরোল্লিখিত লোকেরা আরো বলেছে যে, এলএসি’র সাথে প্রায় সব এয়ারফিল্ডে অবকাঠামো উন্নত ল্যান্ডিং গ্রাউন্ড (এএলজিএস)সহ অপারেশনাল প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী উন্নত করা হয়েছে।
পূর্ব লাদাখ সীমান্তে ভারতীয় ও চীনা সামরিক বাহিনীর মধ্যে গত বছরের ৫ মে প্যানগং হ্রদ এলাকায় সহিংস সংঘর্ষের পর উত্তেজনা দেখা দেয় এবং উভয় পক্ষই কয়েক হাজার সৈন্যের পাশাপাশি ভারী অস্ত্রশস্ত্রসহ তাদের মোতায়েন বাড়ায়। গত বছরের ১৫ জুন গালওয়ান উপত্যকায় মারাত্মক সংঘর্ষের পর উত্তেজনা বেড়ে যায়।
ধারাবাহিক সামরিক ও কূটনৈতিক আলোচনার ফলস্বরূপ, উভয় পক্ষ ফেব্রুয়ারিতে প্যাংগং হ্রদের উত্তর ও দক্ষিণ তীরে এবং চলতি বছরের আগস্ট মাসে গোগরা এলাকায় বিচ্ছিন্নকরণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে। তবে, ১০ অক্টোবর সামরিক আলোচনার শেষ দফা অচলাবস্থায় শেষ হয়। সংবেদনশীল সেক্টরে এলএসি বরাবর প্রতিটি পক্ষের বর্তমানে প্রায় ৫০ হাজার থেকে ৬০ হাজার সৈন্য মোতায়েন রয়েছে। সূত্র : পিটিআই, এএনআই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত

২১ নভেম্বর, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন