Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

বরিশাল মহানগরীর অনেক এলাকাই পানির তলায়

দুটি লঘুচাপের প্রভাবে দক্ষিণাঞ্চল সহ উপকূলে প্রবল বর্ষণে জনজীবন বিপর্যস্ত

বরিশাল ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২০ অক্টোবর, ২০২১, ২:১০ পিএম

দুটি লঘুচাপে প্রভাবে দক্ষিণাঞ্চল সহ সমগ্র উপক’ল জুড়ে প্রবল বর্ষণে বরিশাল মহানগরীও আরেকবার পানির তলায়। দক্ষিণাঞ্চলের জনজীবনও প্রায় বিপর্যস্ত। প্লাবিত হয়েছে দক্ষিণাঞ্চলের বিপুল ফসলী জমিও। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বছরের শুরু থেকে স্বাভাবিকের তুলনায় কম বৃষ্টিপাতে এবার জনস্বাস্থ্য সহ ফসল উৎপাদনেও কিছুটা বিরূপ প্রভাবের মধ্যেই আশি^নের অকাল এ প্রবল বর্ষণে দক্ষিণাঞ্চলের অনেক নদ-নদীর পানিও বিপদ সীমার ওপরে প্রবাহিত হচ্ছে।

অথচ সদ্য বিদায়ী সেপ্টেম্বরেও বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে পাঁচ দশমিক ৯ ভাগ কম। চলতি মাসে ১৭৬ মিলিমিটারের স্থলে দক্ষিণাঞ্চলে ১৬০ থেকে ১৯৫ মিলি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দেয়া হলেও মাসের প্রথম ১৫ দিনে মাত্র ৬৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হলেও গত ১৭ থেকে ১৯ অক্টোবরই বৃষ্টি হয়েছে প্রায় ৩শ মিলি। এরমধ্যে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার পূর্ববর্তী ২৪ ঘন্টায়ই বরিশালে ১৩১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। যা ছিল সারা দেশের সর্বোচ্চ। বুধবার সকাল ৬টার পূর্ববর্তি ২৪ বৃষ্টিপাতের পরিমান ছিল ৮৬ মিলিমিটার।

তিনদিনের লাগাতার এ বর্ষনে বরিশাল মহানগরীর পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থার দুরবস্থা আরো একবার নগরবাসীকে দূর্ভোগে ফেলল। এ নগরীর নবগ্রাম রোড সহ বেশ কয়েকটি রাস্তা সামান্য বৃষ্টিতেই প্লাবিত হয়ে যাচ্ছে। সে বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে নুন্যতম কোন উদ্যোগ নেই নগর প্রশাসনের। নগরীর বেশীরভাগ ড্রেনই বছর যুড়ে ময়লা অবর্জনায় পরিপূর্ণ থাকছে। ফলে বৃষ্টির পানি আটকে থাকছে।

অপরদিকে গত কয়েক বছর ধরে বরিশাল নদী বন্দরের নাব্যতা উন্নয়নের লক্ষে মহানগরীর পাশর্^বর্তি কির্তনখোলায় ড্রেজিং করে নদীতেই পলি ফেলায় তলদেশ ভড়াট হয়ে যাচ্ছে। ফলে মহানগরীর পানি অপসারন ব্যাহত হবার পাশাপাশি সামান্য বাড়তি জোয়ারেও নগরীর পয়ঃনিস্কাশন বাধাগ্রস্থ হচ্ছে।
এদিকে গত তিনদিনের প্রবল বর্ষনের সাথে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধিতে দক্ষিণাঞ্চল সহ উপক’লীয় এলাকায় বিপুল ফসলী জমিও প্লাবিত হয়েছে। তবে মাঠ পর্যায়ের কৃষিবীদদের মতে, ভারতের বিহার ও মধ্য প্রদেশ সহ তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত দুটি লঘুচাপই দূর্বল হয়ে গুরুত্বহীন হয়ে পড়ায় বুধবার রাতের প্রথম প্রহর থেকে দক্ষিণাঞ্চল সহ সারা দেশেই বৃষ্টিপাতের প্রবনতা হ্রাস পেতে শুরু করেছে। বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলে বুধবার সকাল থেকে সূর্য আলো ছড়াতে শুরু করলেও দিনের অনেক সময়ই আকাশে মেঘের ঘনঘটাও ছিল। আবহাওয়া বিভাগ থেকে আজকালের মধ্যে বৃষ্টিপাতের প্রবনতা হ্রাস পাবার কথাও বলা হয়েছে।
ফলে ফসলের জমি থেকে পানি সরে যাবে খুব সহসাই। দক্ষিণাঞ্চলের ১১ জেলায় চলতি খরিপ-২ মৌসুমে প্রায় ৭ লাখ ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে আমন আবাদের লক্ষ্য অর্জিত হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্য প্রায় ১৯ লাখ টন চাল।

আবহাওয়া বিভাগের মতে, বরিশাল অঞ্চলে জানুয়ারীতে শতভাগ এবং ফেব্রæয়ারী থেকে এপ্রিল পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের পরিমান ছিল স্বাভাবিকের প্রায় ৯৯% কম। মে মাসেও বৃষ্টিপাতের পরিমান ছিল ৫১.১% কম। জুলাই মাসেও তা ছিল ১৯.৭% কম । অথচ এসময়ে সারা দেশে গড় বৃষ্টিপাতের পরিমান ছিল স্বাভাবিকের ১৮.৬% বেশী। এমনকি সদ্য বিদায়ী সেপ্টেম্বরেও বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পরিমান ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে ৫.৯ ভাগ কম। তবে গত ৩দিনেই প্রায় ৩শ মিলিমিটার বৃষ্টিপাতে ফসর উৎপাদন সহ জনজীবনে যথেষ্ঠ বিরূপ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: লঘুচাপ

১৮ নভেম্বর, ২০২১
৫ অক্টোবর, ২০২১
২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন