Inqilab Logo

রোববার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৯ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

আফ্রিকায় তুরস্কের প্রভাব বাড়ছে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০২১, ৪:৩৩ পিএম

তুরস্কের প্রেসিডেন্টের চার দিনের আফ্রিকা সফর বুধবার শেষ হওয়ার পর, আঙ্কারা মহাদেশটিতে একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব উপভোগ করেছে। যার মাধ্যমে সম্পর্ক উন্নত করার ২০ বছরের প্রচেষ্টার ফল পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার তুরস্কের সংবাদমাধ্যম আনাদোলু নিউজ এজেন্সির প্রতিবেদনে এই মন্তব্য করা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেপ এরদোগান আফ্রিকার ৫৪ টি দেশের মধ্যে ৩০ টিতে সরকারি সফর করেছেন, তার সর্বশেষ সফর ছিল ১৭-২০ অক্টোবর এঙ্গোলা, টোগো এবং নাইজেরিয়াতে। এই সফরগুলো আফ্রিকান দেশগুলোর সাথে তুরস্কের সম্পর্কের উন্নতি করেছে, যখন তুর্কি প্রতিষ্ঠান এবং মহাদেশের বিভিন্ন অংশে সক্রিয় সংগঠনগুলো সম্পর্ককে আরও গভীর করতে এবং এগিয়ে নিতে অবদান রেখেছে। তুরস্ক কূটনৈতিক মিশনের মাধ্যমে আফ্রিকান দেশগুলোর সাথে তার সম্পর্ক অনুসরণ করেছে, পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে চুক্তি করেছে। এর আওতায় সেখানে কাজ করবে তুর্কি সহযোগিতা ও সমন্বয় সংস্থা (টিআইকেএ), পতাকাবাহী তুর্কি এয়ারলাইন্স, ইউনুস এমরে ইনস্টিটিউট এবং তুর্কি মারিফ ফাউন্ডেশন।

তুরস্ক ১৯২৫ সালে মিশরের রাজধানী কায়রোতে তার প্রথম দূতাবাস চালু করেছিল। এটি ছিল আফ্রিকা মহাদেশে তাদের প্রথম দূতাবাস। সাব-সাহারান আফ্রিকায় তার প্রথম দূতাবাস ইথিওপিয়ায় ছিল এবং এবং সেটি ১৯২৬ সালে খোলা হয়েছিল। তুরস্ক প্রতি বছর মহাদেশটির সাথে তার কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করেছে। ২০০৯ সাল থেকে তারা আফ্রিকা জুড়ে মোট ৩১ টি দূতাবাস খুলেছে। এর আগে, তুরস্কের মাত্র ১২ টি আফ্রিকান দেশে দূতাবাস ছিল - যা পরবর্তী বছরগুলিতে ৪৩ এ উন্নীত হয়েছে।

মহাদেশে দূতাবাসের সংখ্যা ৫০-এ উন্নীত করার লক্ষ্যে তুরস্ক পশ্চিম আফ্রিকার গিনি-বিসাউয়ের রাজধানী বিসাউতে ৪৪ তম দূতাবাস খোলার পরিকল্পনা করছে। তুর্কি এয়ারলাইন্স আফ্রিকার ৬০ টিরও বেশি গন্তব্যে উড়ে যায়। আফ্রিকান দেশগুলোর সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছাড়াও, মহাদেশের অনেক দেশে তুরস্কের সরাসরি ফ্লাইট রয়েছে। তারা ১৯৫৬ সালে আফ্রিকাতে প্রথম ফ্লাইট করেছিল এবং এখন ৪০ টি দেশে উড়ে যাচ্ছে। মহাদেশের মোট গন্তব্য এখন ৬১টি, সর্বশেষ সংযোজন অ্যাঙ্গোলার রাজধানী লুয়ান্ডার সহ।

শিক্ষার ক্ষেত্রে, তুর্কি মারিফ ফাউন্ডেশন আফ্রিকা জুড়েও সক্রিয়, যেখানে কয়েক ডজন স্কুল এবং ডরমিটরি রয়েছে। ফাউন্ডেশনটি ১৭ হাজার ৫৬৫ আফ্রিকান শিক্ষার্থীদের ২৬ টি দেশের ১৭৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে শিক্ষা প্রদান করে এবং তাদের বাসস্থানের পাশাপাশি ১৮টি চাহিদাও পূরণ করে। তুরস্ক উচ্চশিক্ষায় আফ্রিকান শিক্ষার্থীদের চাহিদা সমর্থন করে, তার প্রেসিডেন্সি ফর টার্কস অ্যাব্রাড অ্যান্ড রিলেটেড কমিউনিটিস (ওয়াইটিবি) ২০১০ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে আফ্রিকার সমস্ত দেশে মোট ৫ হাজার ২৫৯জন শিক্ষার্থীকে সহায়তা দিয়েছে। বর্তমানে, ৪ হাজার ৪০৩জন আফ্রিকান শিক্ষার্থী তুরস্কের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর স্তরে অধ্যয়ন করছে, যার মধ্যে ৫১ টি আফ্রিকান দেশ থেকে ৮ হাজার ৭৮৬জন স্নাতক রয়েছে।

টিকা (টিআইকেএ) এবং ইউনুস এমরে ইনস্টিটিউট উভয়েই উন্নয়ন এবং শিক্ষার ক্ষেত্রে তাদের প্রকল্পের মাধ্যমে আফ্রিকানদের সেবা করার জন্য কাজ করে। টিকা তুরস্কের রাষ্ট্র পরিচালিত সাহায্য সংস্থা, আফ্রিকাতে তাদের ২২ প্রতিনিধি অফিস রয়েছে, যার মাধ্যমে এটি তার কার্যক্রম পরিচালনা করে; ইউনুস এমরে ইনস্টিটিউট ১০ টি দেশে তার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রগুলোর মাধ্যমে কাজ করে। ইনস্টিটিউটের উত্তর আফ্রিকার আলজেরিয়া, মরক্কো এবং তিউনিশিয়ায় অফিস রয়েছে; পূর্ব আফ্রিকার সোমালিয়া, সুদান এবং রুয়ান্ডা এবং পশ্চিম আফ্রিকার সেনেগাল, মৌরিতানিয়া এবং গাম্বিয়া। নাইজেরিয়ার রাজধানী আবুজায় এর সদর দফতর, এটি তুর্কি ভাষার প্রচারের জন্য কাজ করে। এটি সংস্কৃতি এবং শিল্পেও সক্রিয়, বিভিন্ন ক্ষেত্রে আফ্রিকানদের সাথে সহযোগিতার প্রচার করে।

তুরস্ক এবং আফ্রিকান দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতার আরেকটি প্রধান ক্ষেত্র হল নিরাপত্তা। আঙ্কারা ১৯ টি দেশে সামরিক সংযুক্তি স্থাপন করেছে। ২০৬১ সাল থেকে, তুর্কি সেনারা জাতিসংঘের মাল্টি -ডাইমেনশনাল ইন্টিগ্রেটেড স্ট্যাবিলাইজেশন মিশনের (এমআইএনইউএসএমএ) সাথে পশ্চিম আফ্রিকান দেশ এবং মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রের শান্তি ও স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করছে।

২০১৭ সালে, তুরস্ক সোমালিয়ার সাথে একটি যৌথ টাস্কফোর্স কমান্ড প্রতিষ্ঠা করে, যা আঙ্কারার বৃহত্তম বিদেশী সামরিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। সামরিক কর্মীরা, যারা সোমালিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর মেরুদণ্ড গঠন করবে, তাদের এই সুবিধায় প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। এদিকে, লিবিয়ার সামরিক শিক্ষার্থীরা ২০১৯ সালে দুই দেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত নিরাপত্তা এবং সামরিক সহযোগিতার জন্য একটি সমঝোতা স্মারকের অধীনে তুর্কি কর্মীদের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ অব্যাহত রেখেছে। সূত্র: মিডলইস্ট মনিটর।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তুরস্ক


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ