Inqilab Logo

সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

বুদ্ধিবৃত্তিক পরিবর্তনের লক্ষ্য নিয়ে গ্রিন ইউনিভার্সিটিতে আন্তর্জাতিক সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ অক্টোবর, ২০২১, ৬:৫৬ পিএম | আপডেট : ৭:১০ পিএম, ২৩ অক্টোবর, ২০২১

বুদ্ধিবৃত্তিক পরিবর্তন ও রূপান্তরের লক্ষ্য নিয়ে গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশে ‘ইনোভেশন অ্যান্ড ট্র্যান্সফরমেশন ফর ডেভেলপমেন্ট’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলন শুরু হয়েছে। শনিবার (২৩ অক্টোবর) বিশ^বিদ্যালয়ের বিজনেস, ল’ এবং আর্টস অ্যান্ড স্যোশাল সায়েন্সস অনুষদ আয়োজিত দুই দিনব্যাপী এ সম্মেলন শুরু হয়। সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, জার্মানী, ভারত ও বাংলাদেশসহ বিশে^র বিভিন্ন দেশের শিক্ষক-গবেষকরা অংশ নিয়েছেন।

গ্রিন ইউনিভার্সিটির ভিসি প্রফেসর ড. মো. গোলাম সামদানী ফকিরের সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশ^বিদ্যালয়ের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, সম্মেলনের জেনারেল চেয়ার ও বিজনেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. গোলাম আহমেদ ফারুকী, যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাসের প্রফেসর বব হপকিন্স, বিশ^বিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. সাইফুল ইসলামসহ অনেকে বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, আগামীর বাংলাদেশ প্রযুক্তি ও চ্যালেঞ্জের। বর্তমান সরকার যেহেতু ডিজিটাল বাংলাদেশে জোর দিয়েছে, তাই এই সম্মেলনের বুদ্ধিবৃত্তিক উদ্ভাবন ও ইতিবাচক পরিবর্তনে কর্মক্ষমতা বাড়ালে নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা সহজ হবে। সম্মেলনে গবেষণাপত্র উপস্থাপন ছাড়াও ধারণা তৈরি এবং ইনোভেশন-ট্রান্সফরমেশনের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ ও তা বাস্তবায়নের উপায় সংক্রান্ত নানা দিক নিয়ে আলোচনা হবে।

সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে প্রফেসর ড. মো. গোলাম সামদানী ফকির বলেন, আইটিডি সম্মেলনের সবচেয়ে বড় সৌন্দর্য্য হলো বৈচিত্র্যতা। এখানে যেমন বিজনেস রয়েছে, তেমনি রয়েছে ল’ ও স্যোশাল সায়েন্সেস। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে এ বছর অনলাইনের মাধ্যমে এই সম্মেলন হলেও আগামীতে সশরীরে হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। উপাচার্য বলেন, করোনাকালীন বিশে^র যেসব খাত সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে, তার অন্যতম হলো শিক্ষা। যদিও লকডাউনের শুরু থেকেই অনলাইন শিক্ষার সব সেবা নিশ্চিত করে শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়িয়েছে গ্রিন ইউনিভার্সিটি। এই ধারা অব্যাহত রেখে শিঘ্রই গ্রিন বিশ^বিদ্যালয়কে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

বিশ^বিদ্যালয়ের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, গবেষণায় ইতোমধ্যেই বড় ধরনের অবদান রেখেছে গ্রিন ইউনিভার্সিটি। কোভিড-১৯ সময়ে দেশি-বিদেশি জার্নালে উল্লেখযোগ্য গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশের পাশাপাশি ‘বেস্ট রিসার্চ অ্যাওয়ার্ড’ ও ‘রিসার্চ এক্সিবেশন অ্যাওয়ার্ড’ চালু এই বিশ^বিদ্যালয়ের অন্যতম উদ্যোগ। তিনি বলেন, চতুর্থ শিল্প চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় গত দুই বছর ধরে ‘সাসটেইনেবল টেকনোলোজিস ফর ইন্ডাস্ট্রি ৪.০’ সম্মেলন করে আসছে সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ। বিজনেস, ল’ ও স্যোশাল সায়েন্সের এই উদ্যোগ নিঃসন্দেহে আরো ভিন্নমাত্রা যোগ করবে।

স্বাগত বক্তব্যে আইটিডি সম্মেলনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন সম্মেলনের জেনারেল চেয়ার ও বিজনেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. গোলাম আহমেদ ফারুকী। তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্য নিয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, সেই যাত্রায় গ্রিন ইউনিভার্সিটিও নানাভাবে অবদান রাখছে। অধ্যাপক ফারুকী বলেন, টেকসই উন্নয়নের চাবিকাঠি হচ্ছে হলো বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি। এই দুই অনুষঙ্গকে যত বেশি কাজে লাগানো যাবে, আগামীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা ততই সহজ হবে। এ সময় তিনি ২০২২ সালে আইটিডির দ্বিতীয় সম্মেলনের তারিখ (২২-২৩ অক্টোবর) ঘোষণা করেন।

সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাসের প্রফেসর বব হপকিন্স, জাপানের আকিতা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রফেসর প্যাট্রিক ডোউঘের্টি, জার্মানির কোলন ইউনিভার্সিটির প্রফেসর স্টিফেন হোবে, বিশ^-ভারতী বিশ^বিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. বিপ্লব লোহো চৌধুরী, দৈনিক আজকের পত্রিকার সম্পাদক প্রফেসর ড. মো. গোলাম রহমান, বুয়েটের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. ফকরুল আলম, আমেরিকান ইউনিভার্সিটি অব ইরাকের উলফগ্যাং হিন্সক, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব স্যোশাল রিসার্চ-এর চেয়ারম্যান ড. খুরশেদ আলম এবং রবি আজিয়াটা লিমিটেডের সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদের মূল প্রবন্ধ পাঠ করবেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ