Inqilab Logo

শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

নেছারাবাদে বিধবাকে জুতাপিটার অভিযোগ

নেছারাবাদ (পিরোজপুর) সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৩:৩৩ পিএম

নেছারাবাদে জেবুন্নেছা(৫০) নামে এক বিধবা নারীকে তিনটি জুতাপেটা করেছেন আব্দুল লতিফ ওরফে লতিফ সেক্রেরারি নামে এলাকার এক প্রভাবশালি নেতা। আব্দুল লতিফ উপজেলার গুয়ারেখা গ্রামের বাসিন্দা। আর ওই অসহায় নারী জেবুন্নেছা একই গ্রামের মৃত হালিম তালুকদারের স্ত্রী। রোববার সকালে ইউনিয়নের চাদকাঠি খেয়াঘাট বসে ওই মহিলা তার কাছে একটি সরকারি ঘর চাওয়ার কথা বলায় লতিফ মিয়ি তাকে তিনটি জুতার পিটান দিয়েছেন। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত লতিফ। এলাকার ইউপি নির্বাচনে বিধবা নারী জেবুন্নেছা নৌকা প্রার্থীর নির্বাচন করার অপরাধে লতিফ সেক্রেটারি তাকে জুতার পিটান দিয়েছেন বলে অভিযোগ ওই মহিলার। লতিফ মিয়ার জুতার পিটানের আঘাতে ওই নারী জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় তিনি নেছারাবাদ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে সরকারি চিকিৎসা নিয়েছেন।

জেবুন্নেছা অভিযোগ করে বলেন, আব্দুল লতিফ ওই ইউনিয়নের একজন প্রভাবশালী নেতা। বিএনপি,জাতিয়পার্টি আমলেও সে এলাকার প্রভাবশালী লোক ছিলেন। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকেও এলাকায় তার অনেক প্রভাব। যেকারনে গেল মাস পাচেক আগে লতিফ মিয়ার কাছে একটি সরকারি ঘর চেয়েছিলেন। পরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি(লতিফ মিয়া) স্বতন্ত্র প্রার্থী রব বিশ্বাসের নির্বাচন করেছেন। তিনি চেয়ারম্যানের খাস লোক। আর আমি(জেবুন্নেছা) নৌকা প্রার্থী সুব্রত ঠাকুরের নির্বাচন করেছি। সুব্রত চেয়ারম্যান হতে পারেনি। রোববার সকালে চাদকাঠি খেয়াঘাট বসে লতিফ মিয়ার সাথে আমার দেখা হয়। এসময় তার কাছে আবারও ঘরের কথা বললে তিনি বলেন, তুই সুব্রত ঠাকুরের নৌকার নির্বাচন করেছ। তোকে কেন ঘর দেব। এসময় জেবুন্নেছা তাকে বলেন বিএনপি জাতিয়পার্টি আমলে এলাকায় নেতৃত্ব দিয়েছেন। এখন আবার নৌকার নেতা হইছেন। একথা বলার সাথে সাথেই লতিফ মিয়া তাকে জনসম্মুখে সজোরে তিনটা জুটার পিটান দেন।

অভিযুক্ত লতিফ সিকদার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, জেবুন্নেছা তাকে ঘর পাইয়ে দেয়ার জন্য আমাকে তদবির করতে বলেছিল। তাই তাকে একটু গাল মন্দ করেছি।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মো: রব সিকদার জানান, আমি পিরোজপুরে একটা কাজে আছি। ওই মহিলাকে লতিফ জুতার পিটান দিয়েছে কিনা তা আমি এখন পর্যন্ত শুনিনি। না জেনে বলতে পারবোনা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ