Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

ভাত খাওয়া কমাতে বলে ট্রলের শিকার কৃষিমন্ত্রী

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ৫:৫৫ পিএম | আপডেট : ৬:১২ পিএম, ২৫ অক্টোবর, ২০২১

চালের চাহিদা কমাতে মানুষকে ভাত কম খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ট্রলের শিকার হয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘বাংলাদেশের ৫০ বছর: কৃষির রূপান্তর ও অর্জন’ শীর্ষক কৃষি সম্মেলনে তিনি ওই পরামর্শ দেন।

তিনি বলেন, আমরা অনেক বেশি ভাত খাই। যদি ভাতের এই কনজাম্পশন (খাওয়া) কমাতে পারি, তাহলে চালের চাহিদা অনেকটাই কমে যাবে। আমরা একেকজন দিনে প্রায় ৪০০ গ্রাম চাল খাই, পৃথিবীর অনেক দেশে ২০০ গ্রামও খায় না।’ ভাতের পরিবর্তে পুষ্টিকর খাবার বেশি করে খাওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

মন্ত্রী এই পরামর্শ দিয়ে দ্রুতই নেট দুনিয়ায় ট্রলের মুখে পড়েন। ফেসবুকে এনিয়ে নানা মন্তব্য করেন নেটাগরিকরা।

দুলাল হাল্দার লিখেছেন, ‘‘এর আগে এক মন্ত্রী বলে গেছেন কচুরিপানা খেতে, আপনি বললেন ভাত কম খেতে। আমাদের দেশের মন্ত্রীদের বক্তব্য কত গঠনমুলক,কত সুন্দর যা শুনলেই পেট ভরে যায় , কিছু খাওয়ার দরকার পরে না। সেই খুশিতে আমাদের দেশের এক বিজিবি ভাই ভাতের বদলে গুলি খেয়ে ঘুমাচ্ছে। অনেক ভাবেন আমাদের জন্য, হয়তো রাতে ঘুমও হয়না আপনাদের।। আমাদের কথা ভাবার জন্য ধন্যবাদ।’’

এমদাদুল মারুফ লিখেছেন, ‘‘মাননীয় মন্ত্রী,
আপনি শুধু চালের মন্ত্রী না, আপনি শাক সবজিসহ প্রায় সকল খাদ্যেরই মন্ত্রী। বাজারে গেলে আমাদের সাথে আপনারও কান্না আসতো।যাইহোক বিশ্বের অন্যান্য দেশে, (যেসব দেশে ভাত কম খায়) ভাতের পাশাপাশি বিভিন্ন পুষ্টি যোগায় এমন খাবার সেসব দেশের নাগরিকদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যেই থাকে। আর আমরা বাজারে গিয়ে পুষ্টি উপাদানের কথা ভাবতে পারিনা বলেই বাসায় এসে পুষ্টি উপাদানের কথা না ভেবে বেশি ভাত খেয়ে উদর পূর্তি করি।’’

মোজাম্মেল রনি লিখেছেন, ‘‘আমাদের দেশের মানুষের তিন ডান হাত বাম হাত আর অজুহাত, বাহিরের দেশে কোনো বিশিষ্ট ব্যক্তি কোনো কথা বললে অনেক ভেবে চিন্তা করে কথা বলে আমার এই কথাটায় উপকার বেশি নাকি ক্ষতি বেশি, আর আমাদের দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তি একটা অজুহাত ধার করিয়ে কি বললো সেটা নিয়ে কোনো চিন্তা ভাবনা করেনা যে আমার এই কথাটায় মানুষের উপকার বেশি নাকি ক্ষতি বেশি।’’

আব্দুল করিম লিখেছেন, ‘‘আগে মানুষ তিন বেলা বাত খাইতো তখন চালও সস্তা ছিলো, এখন এক বেলা বাত খায় রাতে রুটি খায় এর পরে ও চালের দাম অনেক বেশি,,,,, দ্রব্য মূল্য তো ইতিহাস গড়েছে,,, দুর্নীতি করে দেশর টাকা লুট করে বিদেশে পাঠিয়ে দিয়ে, জনগণকে কষ্ট দিতেছে।’’

ইসরাত জাহান আসমা লিখেছেন, ‘‘এইজন্যেই কি দ্রব্যমূল্যের এত দাম বাড়াচ্ছেন? মানে কি খেয়ে সমাধান দেন বুঝিনা। ঘুষটাও তো কমাতে পারেন আর দুর্নীতি? এগুলা বাড়ুক শুধু খাওয়ার বেলায় পিয়াজ ছাড়া রান্না, চাল ছাড়া ভাত এসব আইডিয়া আসে। দুইদিন পরপর হুদাই মাটি পরীক্ষা, গোবর পরীক্ষা নামে বিদেশ ট্যুর দেন কাদের টাকায়?’’

মরিয়ম খান মিলন লিখেছেন, ‘‘এক মন ধান থেকে যে চাল হয় সেই চালের ভাত পাঁচ মাস ধরে খাচ্ছি, আর কত কম খামু।মন্ত্রীর তো তাহলে জাহাঙ্গীর কবিরকে পুরস্কার দেয়া উচিত। তার কথায় মানুষ ভাত খাওয়া ছেড়ে দিচ্ছে।’’

মোঃ সরোয়ার লিখেছেন, ‘‘সমস্ত বাংলাদেশের মুসলমানদেরকে মাসে ১৫ দিন রোজা থাকা বাধ্যতামূলক করা হোক তাহলেই খাদ্যমন্ত্রী বলবে আমি স্বয়ংসম্পূর্ণ দেশে খাদ্য ঘাটতি নেই।’’

ফারজানা রিমি লিখেছেন, ‘‘ভাত ছাড়া আমি বাঁচতে পারবো না। ভাত কম খেতে পারবো না সরি। দয়া করে আপনারা একটু দুর্নীতি কমান তাহলে সব দিক ঠিক থাকবে ইনশাআল্লাহ।’’

এম আর হাইদার লিখেছেন, ‘‘মানুষের রিজিক নিয়ে মশকরা না করাই উত্তম,, জনগণ কম খেয়ে অর্থ বাঁচাবে আর সেই অর্থ দিয়ে কেউ কেউ কানাডার বেগমপাড়ার বাসিন্দা হবে,,!’’

ইসমাইল হোসাইন লিখেছেন, ‘‘ভাত কম খাওয়া স্বাস্থ্যসম্মত, কিন্তু এটা তো স্বাস্থ্য মন্ত্রীর বলার কথা, কৃষি মন্ত্রী এমন কথা বলার মানে হচ্ছে, চরম আকারে দায়িত্বহীনতার পরিচয় দেয়া।’’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ট্রলের শিকার কৃষিমন্ত্রী
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ