Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ০৫ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

হেইল, সিজার!

প্রকাশের সময় : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

জোল কোয়েন এবং এথান কোয়েন পরিচালিত কমেডি ফিল্ম ‘হেইল, সিজার!’। দুই কোয়েন ভাই একসঙ্গে ‘ইনসাইড লোয়েলিন ডেবিস’ (২০১৩), ‘ট্রু গ্রিট’ (২০১০), ‘বার্ন আফটার রিডিং’ (২০০৮), ‘নো কান্ট্রি ফর ওল্ড মেন’ (২০০৭) এবং ‘দ্য লেডিকিলার্স’ (২০০৪) চলচ্চিত্রগুলো পরিচালনা করেছেন। রেইজিং অ্যারাজোনা’ (১৯৮৭), ‘মিলার্স ক্রসিং’ (১৯৯০), ‘ফারগো’ (১৯৯৬), ‘বিগ লেবোস্কি’ (১৯৯৮) এবং ‘ও ব্রাদার হয়্যার আর্ট দাউ?’ (২০০০) জোলের একক পরিচালনার চলচ্চিত্র হলেও এথানের সক্রিয় ভূমিকা ছিল।
১৯৫০ সালের হলিউড। এডি ম্যানিক্স (জশ ব্রলিন) ক্যাপিটল পিকচার্স প্রডাকশনের প্রধান। তার প্রধান কাজ হলো স্টুডিওর নাম বজায় রাখা এবং প্রধান তারকাদের বিতর্কিত হওয়া থেকে দূরে রাখা। সেই সময় স্টুডিও শীর্ষ তাকা বেয়ার্ড হুইটলক (জর্জ ক্লুনি)। বহুল আলোচিত ‘হেইল সিজার, আ টেল অফ ক্রাইস্ট’স লাইফ’ চলচ্চিত্রের কেন্দ্রীয় অভিনেতা হুইটলক। ম্যানিক্সকে জানানো হয়, তাদের ফিল্মের নায়ক কাউকে জানান না দিয়ে গায়েব হয়ে গেছে। তার ধারণা হয় হুইটলক কোথাও মাতাল হয়ে পড়ে আছে। কিন্তু অচিরেই সে জানতে পারে কমিউনিস্টরা ‘দ্য ফিউচার’ নামে তাকে অপহরণ করেছে, মুক্তিপণ দাবি করা হয় এক লাখ ডলার। আরেকদিকে অন্য এক প্রজেক্টের পরিচালক বেঁকে বসেছে। তরুণী উঠতি তারকা ডিঅ্যান মোরান (স্কারলেট জোহানসন) আচমকা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছে। আবার গসিপ কলামিস্টরাও পিছু ছাড়ছে না। এদিকে এক বিমান সংস্থা তাকে কম খাটনির একটি কাজের প্রস্তাব দিয়েছে। হয় তাকে সেই প্রস্তাব গ্রহণ করতে হবে নয়তো সবগুলো ঝামেলা একাই সামাল দিতে হবে। কোন পথ বেছে নেবে সে?



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন