Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৪ মাঘ ১৪২৮, ১৪ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

তাজিকিস্তানে নতুন সামরিক ঘাঁটি নির্মাণে অর্থায়ন করবে চীন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ অক্টোবর, ২০২১, ৫:৪৯ পিএম

তাজিকিস্তানের পার্লামেন্ট চীনা অর্থায়নে একটি নতুন সীমান্ত নিরাপত্তা ঘাঁটি স্থাপনের পরিকল্পনা অনুমোদন করেছে। দেশটির বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, তাজিক কর্তৃপক্ষ তাদের দেশে একটি পৃথক ঘাঁটির নিয়ন্ত্রণ সম্পূর্ণভাবে চীনা সরকারের কাছে হস্তান্তর করার প্রস্তাব দিয়েছে।

প্রতিবেশী আফগানিস্তানে তালেবানের অধিগ্রহণ এবং সেই দেশ থেকে মার্কিন সেনাদের বিতর্কিত প্রত্যাহারের পর নতুন করে উদ্ভূত নিরাপত্তা পরিস্থিতির প্রতি এর মাধ্যমে বেইজিংয়ের বৃহত্তর প্রতিক্রিয়ার প্রতিফলন ঘটবে বলে মনে হচ্ছে। বিশেষ আশঙ্কা রয়েছে যে, আল কায়েদা, আইএসআইএস এবং অন্যান্য সন্ত্রাসী সংগঠনগুলো বর্তমান পরিস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে আফগানিস্তানের অভ্যন্তরে, সেইসাথে আশেপাশের অঞ্চলে এবং বিশ্বের অন্য কোথাও কার্যকলাপ বাড়াতে সক্ষম হবে৷

গত বুধবার তাজিকিস্তানের সুপ্রিম অ্যাসেম্বলির নিম্নকক্ষ প্রস্তাবিত ভিত্তি নির্মাণে স্বাক্ষর করেছে, যা দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং চীনের জননিরাপত্তা মন্ত্রণালয়ের মধ্যে বৃহত্তর চুক্তির অংশ। তাজিকিস্তানের প্রথম উপ-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুরাহমন আলমশোজোদার বরাত দিয়ে মার্কিন সরকারের অর্থায়নের পরিচালিত রেডিও ফ্রি ইউরোপ/রেডিও লিবার্টি’স এর (আরএফই/আরএল) তাজিক পরিষেবা জানিয়েছে, এই সুবিধাটি গর্নো-বাদাখশান স্বায়ত্তশাসিত প্রদেশের ভাখোন গ্রামে অবস্থিত হবে। গর্নো-বাদখশান আফগানিস্তানের সরু ওয়াখান করিডোরের উত্তরে অবস্থিত, যা তাজিকিস্তান, চীন এবং পাকিস্তানের মধ্যে অবস্থিত।

তাজিক আইনপ্রণেতা টলিবখোন আজিমজোদাও বলেছেন যে, বেসটি তৈরি করতে মোট ১ কোটি ডলার খরচ হবে। তবে চীন সরকার এর কতটা অর্থ প্রদান করবে তা স্পষ্ট নয়। তাজিক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, অন্তত আনুষ্ঠানিকভাবে সেখানে চীনা সেনা মোতায়েন করা হবে না। তাজিকিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিযুক্ত বিশেষ আধাসামরিক বাহিনী র‍্যাপিড রিঅ্যাকশন গ্রুপ সেখানে মোতায়েন করা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পাশাপাশি দেশটির নিয়মিত সামরিক বাহিনীও এই সুবিধাটি ব্যবহার করবে।

আরএফই/আরএল জানিয়েছে, ‘নতুন ঘাঁটির সঠিক কার্যকারিতা অজানা, যদিও আইন প্রণেতারা বলেছেন যে, এটি সংগঠিত অপরাধের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য পুলিশিং দায়িত্ব পালন করবে। সুবিধাটিতে চীন থেকে ‘ইন্টারপোল তথ্য ব্যবস্থার জন্য বিশেষ সরঞ্জাম’ স্থাপণ করা হবে। যাইহোক, তাজিক সংসদ সদস্য আজিমজোদা আরএফই/আরএল-এর কাছে একটি বিবৃতিতে স্পষ্ট করে বলেছেন, ‘আফগানিস্তানের তালেবানদের ক্ষমতা নেয়া এবং দেশের সীমান্তে ক্রমবর্ধমান নিরাপত্তা হুমকির মধ্যে এটি নির্মাণ করা হয়েছে। চীন তাজিকিস্তানের এই উদ্বেগ নিরসনে সহযোগিতা করছে।’

যদিও দুশানবে এবং বেইজিংয়ের কর্তৃপক্ষ বারবার এটি অস্বীকার করেছে, তবে উল্লেখযোগ্য প্রমাণ রয়েছে যে, দুটি দেশ ইতিমধ্যে শয়মাক গ্রামের কাছে অন্তত ২০১৬ সাল থেকে একটি পৃথক যৌথ সীমান্ত নিরাপত্তা ঘাঁটি পরিচালনা করছে, যেটি গর্নো-বাদাখশানেও রয়েছে। আগস্টে তালেবানের হাতে আফগানিস্তানের পতন, আফগান সরকারী বাহিনী থেকে চলে আসা দলগুলোও সেখানে মোতায়েন ছিল বলে জানা গেছে। বছরের পর বছর ধরে, চীনা কর্তৃপক্ষও বারবার এই খবর অস্বীকার করেছে যে, তারা ওয়াখান করিডোরে সৈন্য মোতায়েন করেছে, বা করার পরিকল্পনা করছে। আফগান কর্তৃপক্ষ আগে বলেছিল যে, চীন তাদের সৈন্যদের প্রশিক্ষণের প্রস্তাব দিয়েছে এবং পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) প্রকাশ্যে তাজিক বাহিনীর সাথে প্রশিক্ষণ অনুশীলন করেছে। সূত্র: দ্য ড্রইভ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চীন

১৬ জানুয়ারি, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ