Inqilab Logo

শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৭ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

মামলার প্রতিকার চাওয়াটা ফ্যাশন হয়ে দাঁড়িয়েছে

আইনজীবী ছাড়াই আদালতে আসায় আপিল বিভাগের উষ্মা প্রকাশ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ নভেম্বর, ২০২১, ১২:০৬ এএম

সুপ্রিম কোর্টে বিচারপ্রার্থীরা সরাসরি সংযুক্ত হয়ে মামলার প্রতিকার চাওয়াটা ‘ফ্যাশন’ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আপিল বিভাগ। ভার্চুয়াল আদালতের সুযোগ নিয়ে আইনজীবী ছাড়াই একের পর এক বিচারপ্রার্থী সুপ্রিম কোর্টে বিচার চাইছেন। এ প্রেক্ষাপটে গতকাল সোমবার এ মন্তব্য করেন আপিল বিভাগ।

সকালে আপিল বিভাগের বিচার কাজ শুরু হলে প্রথমেই দুই নারী বিচারপ্রাার্থী দাঁড়িয়ে তাদের চাকরি সংক্রান্ত মামলা নিষ্পত্তির আবেদন জানান। মানবিক দৃষ্টি দিয়ে আদালতের কাছে বিচার প্রার্থনা করেন তারা। তখন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, আমাদের আইন মাফিক চলতে হবে। মানবিক আবেদন করবেন সরকারের কাছে। আমরা মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখব না। আমরা দেখব আইনের দৃষ্টিকোণ থেকে। মানবিক দৃষ্টিতে দেখবে সরকার। মানবিক এতটুকুনই করতে পারব, মামলাটা তাড়াতাড়ি শুনবো। পরে আজ মঙ্গলবার তাদের মামলাটি শুনানির জন্য দিন ঠিক করে দেন আপিল বিভাগ।

ওই দুই নারীর আবেদনের পর আরেকজন বিচারপ্রার্থী দাঁড়ান তার আবেদন নিয়ে। তিনি নিজেকে ‘বেকার যুবক’ দাবি করে বলেন, আমি বাংলাদেশ রেলওয়েতে চাকরির জন্য দরখাস্ত করেছিলাম। সেই মামলায় হাইকোর্ট থেকে রায় পেয়েছি। মামলাটি আপিল বিভাগে পেন্ডিং আছে। কিন্তু রেলওয়ে আমাদের নিয়োগ দিচ্ছে না।

তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, এটা তো মহা মুশকিল! আপনার আইনজীবী কই? এ সময় আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেন, চেম্বার আদালতে আবেদন না দিয়ে আপিলে চলে এসেছেন কেন? একটা ফ্যাশন শুরু হয়ে গেছে আইনজীবী ছাড়া কোর্টে এসে দাঁড়িয়ে যাওয়া।

প্রধান বিচারপতি বলেন, আপনার আইনজীবী কে? জবাবে ওই বিচারপ্রার্থী বলেন, পঙ্কজ কুমার কুণ্ড। তখন বিচারপতি ইমান আলী বলেন, আপনার আইনজীবী থাকতে আপনি এখানে দাঁড়াতে পারেন না। প্রধান বিচারপতি বলেন, আপনার মামলার অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড যিনি আছেন তাকে দিয়ে আবেদন দিন। এরপর আরেকজন আদালতের সামনে দাঁড়িয়ে বলেন, আমি গরীব মানুষ। আমি মসজিদের মুয়াজ্জিন। আমি খুবই গরীব মানুষ। আমি মানুষের যাকাত ফিতরা নিয়ে চলি। স্যার আমার মামলাটা বন্ধ হয়ে রয়েছে। যদি দয়া করে একটু দেখতেন!
একের পর এক এভাবে আইনজীবী ছাড়া সরাসরি কোর্টে দাঁড়ানোয় উষ্মা প্রকাশ করে প্রধান বিচারপতি বলেন, এরপর থেকে যেসব আইনজীবীদের ক্লায়েন্ট সরাসরি কোর্টে এসে দাঁড়াবে, আমরা তার সনদ বাতিল করে দেবো। আগামীকাল থেকে যারা দাঁড়াবে তাদের আইনজীবী থাকলে তাদের সনদ আমরা পাঁচজন মিলে বাতিল করে দেবো। আপনার আইনজীবী আছে কি না আদালতের এমন প্রশ্নের জবাবে ওই বিচারপ্রার্থী বলেন, উকিল আছে। অনেক টাকা চায়। তখন আদালত বলেন, আপনি আইনজীবী না রেখে থাকলে আপনারটা শুনব। আপনার মামলার নম্বর দিয়ে যান। পরে আদালত কার্যতালিকা অনুসারে শুনানি শুরু করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মামলার প্রতিকার
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ