Inqilab Logo

সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮, ২০ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

দক্ষিণাঞ্চলে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি

নমুনা পরীক্ষা কমছে আশঙ্কাজনক হারে

নাছিম উল আলম : | প্রকাশের সময় : ৩ নভেম্বর, ২০২১, ১২:০২ এএম

দেশের দক্ষিণাঞ্চলে করোনা পরিস্থিতির আশাতীত উন্নতির সাথে নমুনা পরীক্ষাও আশঙ্কাজনক হারে হ্রাস পেয়েছে। দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলায় ইতোপূর্বে দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা আড়াই হাজার থেকে এখন শূন্যের কোঠায়। তবে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যাও ৩ হাজার থেকে মাত্র ১২০ জন হ্রাস পেয়েছে। ইতোপূর্বে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩শ’ শয্যার করোনা ও আইসোলেশন ওয়ার্ডের মেঝেতেও যেখানে কোভিড-১৯ রোগীর স্থান হতো না, এখন সেখানে মাত্র ১৭-১৮ জন চিকিৎসাধীন। তবে করোনা পরিস্থিতি উন্নতির সাথে নমুনা পরীক্ষায় সাধারণ মানুষের আগ্রহে ভাটা পড়ায় উদ্বিগ্ন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সাথে স্বাস্থ্য বিভাগও। পাশপাশি নূন্যতম স্বাস্থ্য বিধিও কেউ অনুসরণ না করায় স্বাস্থ্য বিভাগের উৎকন্ঠাও বাড়ছে।

গত জুলাই মাসই দক্ষিণাঞ্চলে করোনার মহাসঙ্কট কাল ছিলো। তখন দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলায় প্রায় ৪১ হাজার নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের সংখ্যা ছিল প্রায় ১৫ হাজার। মৃত্যু হয় ১৪০ জনের ওপরে। এর মধ্যে বরিশাল মহানগরীতেই আক্রান্তের সংখ্যা ছিল প্রায় সাড়ে ৩ হাজার। মৃত্যু হয়েছিল ১২ জনের।
অথচ গত মে মাসে এ অঞ্চলে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৩৮০। মৃত্যু হয়েছিল ২৫ জনের। তবে গত আগস্টের মধ্যভাগ থেকেই দক্ষিণাঞ্চলে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হতে শুরু করলেও গোটা মাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল প্রায় সাড়ে ৯ হাজার। মৃত্যু হয় ১৬৭ জনের। সেপ্টেম্বরে পরিস্থিতির নতুন মোড় নিয়ে সংক্রমণে আশাব্যঞ্জক উন্নতি হয়। এ মাসে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ১ হাজার ১৯৫ জনে হ্রাস পায়। মৃত্যু হয়েছিল ২৩ জনের। আর পুরো অক্টোবরে দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছিল মাত্র ২১৭ জন। মারা গেছেন দু’জন। চলতি মাসের প্রথম দিন দক্ষিণাঞ্চলে কোন আক্রান্তের খবর দেয়নি স্বাস্থ্য বিভাগ। গতকাল তিনজনের আক্রান্তের খবর মিলেছে। কোন মৃত্যু সংবাদ নেই।
এ নিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলায় গত ১৯ মাসে ২ লাখ ২১ হাজার ৯৭৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪৫ হাজার ২৬৮ জনের দেহে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৬৭৯ জনের। এর মধ্যে মহানগরীতে সাড়ে ১০ হাজারসহ বরিশাল জেলাতেই আক্রান্তের সংখ্যা ১৮ হাজার ২৯৫ জন। সর্বশেষ হিসেবে দক্ষিণাঞ্চলে শনাক্তের গড় হার ২০.৩৮% হলেও গত কয়েকদিনে তা ছিল ২%-এর নিচে। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় মাত্র ১৩২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৩ জনের দেহে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। আর এসময়ে ১১ জনসহ দক্ষিণাঞ্চলে সর্বমোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪৩ হাজার ৪৩৬ জন। গড় সুস্থতার হার এখন ৯৫.৯৫%।
এদিকে চিকিৎসক, নার্স এবং চিকিৎসা কর্মীসহ চিকিৎসা সহায়ক সরঞ্জামের সঙ্কটের মধ্যেও দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ৯টি জেলার করোনা রোগী চিকিৎসায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করছে। বরিশাল বিভাগের ছয়টি জেলা ছাড়াও মাদারীপুর, শরীয়তপুর ও গোপালগঞ্জ জেলার বিপুল সংখ্যক করোনা রোগীও গত ১৯ মাসে এ হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন। এমনকি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থান সংকুলান না হওয়ায় বাগেরহাটের অনেক করোনা রোগী এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।
সর্বশেষ হিসেব অনুযায়ী দক্ষিণাঞ্চলে সর্বমোট ৪৫ হাজার ২৬৮ জন করোনা শনাক্তের মধ্যে পটুয়াখালীতে আক্রান্ত ৬ হাজার ২২১ জন। জেলাটিতে ১০৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভোলাতে আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজার ৮৮৫ জন। দ্বীপ জেলাটিতে মারা গেছেন ৯১ জন। পিরোজপুরে আক্রান্ত ৫ হাজার ২৮৯, মৃত্যু হয়েছে ৮৩ জনের। সর্বাধিক মৃত্যুহারের বরগুনাতে ৩ হাজার ৯৫২ জন আক্রান্তের মধ্যে মারা গেছেন ৯৭ জন। গড় মৃত্যুহার ২.৪৫%। আর সর্বোচ্চ সংক্রমণ হারের ঝালকাঠিতে এ পর্যন্ত ১৯ হাজার ১৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪ হাজার ৬৫৩ জনের দেহে। গড় শনাক্তের হার ২৪.৪৭%। জেলাটিতে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৬৯ জনের।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ