Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৪ মাঘ ১৪২৮, ১৪ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক বাজারে যখন জ্বালানির দাম কমেছিল তখন তো কমাননি : মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ নভেম্বর, ২০২১, ৮:২১ পিএম

ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়ানোর পেছনে সরকারের যুক্তি গ্রহনযোগ্য নয় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, দাম বাড়ানোর যুক্তিটা কী দিয়েছে? আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বেড়েছে। আর আন্তর্জাতিক বাজারে যখন তেলের দাম কমে গিয়েছিলো তখন তুমি তেলের দাম বেশি নিয়েছো কেনো? তখন তো কমাও নাই। তখন ওই টাকা চুরি করেছো তোমরা। এখন আবার যেটা করছো তাতে আমাদের (জনগণ) পকেট কেটে তোমাদের পকেট ভরাচ্ছো। শুক্রবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ বিএনপির যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার কতটা দায়িত্ব জ্ঞানহীন হলে, কতটা জনগণের সঙ্গে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হলে তারা এই রকম অমানবিক একটা (ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য বৃদ্ধি) সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। একদিকে বাংলাদেশে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়ানো হলো। আর পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে পাঁচ টাকা কমিয়ে দেয়া হয়েছে।

দেশের বর্তমান অবস্থাকে দুঃশাসনের নমুনা উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ডিজেল ও কেরোসিনের দাম এক রাত্রে হঠাৎ করেই ১৫ টাকা বাড়িয়ে দেয়া হলো। যেখানে ছিলো ৬৫ টাকা সেটা করা হলো ৮০ টাকা, যেটা ছিলো ৫৫ টাকা সেটা করা হয়েছে ৮০ টাকা। এলপিজির দাম বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আর প্রতি কেজি বছর বিদ্যুতের দাম তিন বার চার বার করে লাফিয়ে লাফিয়ে উঠে। বাজারে যাবেন কোনো কিছু কেনার জো নেই। প্রতিটি জিনিসের দাম বেড়ে গেছে।

জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে পরিবহন ধর্মঘটের প্রসঙ্গে টেনে তিনি বলেন, ট্রাক ও বাস বন্ধ। বাস মালিকরা বলছে ভাড়া বাড়াও, ভাড়া না বাড়ালে আমরা গাড়ি চালাতে পারবো না। ট্রাকওয়ালা বলছে আরো বেশি করে ভাড়া দিতে হবে না হলে আমরা ট্রাক চালাতে পারবো না। অর্থ্যাৎ কাঁচা বাজার, চাল-ডাল-চিনি-তেল-লবণ সমস্ত কিছুর দাম বাড়তে থাকবে।

স্থানীয় সরকারের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনী সহিংসতার কথা তুলে ধরে মির্জা ফখরুল বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিরোধী দল মাঠে নেই। তারা তারাই। যেখানে নিজেরাই মারামারিতে ৮৭ জন মৃত্যু বরণ করেছে।

মরহুম সাদেক হোসেন খোকাকে আপাদমস্তক একজন দেশপ্রেমিক রাজনীতিবিদ অভিহিত করে তার মতো নেতা হিসেবে গড়ে উঠার জন্য তার জীবন-দর্শন অনুসরণ করতে দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রতি আহবান জানান বিএনপি মহাসচিব।

মহানগর দক্ষিণের আহবায়ক আবদুস সালামের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনুর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব মাহবুব উদ্দিন খোকন, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, জাগপার একাংশের সভাপতি খন্দকার লুতফুর রহমান, যুবদলের সাইফুল আলম নিবর, মুক্তিযোদ্ধা দলের শহিদুল ইসলাম চৌধুরী মিলন, স্বেচ্ছাসেবক দলের মোস্তাফিজুর রহমান, কৃষক দলের শহিদুল ইসলাম বাবুল, শ্রমিক দলের মোস্তাফিজুল করীম মজুমদার, মৎস্যজীবী দলের আবদুর রহিম ও সাদেক হোসেন খোকার ছেলে প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন বক্তব্য রাখেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ