Inqilab Logo

শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৭ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

সিলেটে প্রথম শেনীর এ মাদ্রসার ছাত্রী ধর্ষণ, অভিযুক্তদের ধরতে পারেনি পুলিশ

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১২ নভেম্বর, ২০২১, ২:৪৯ পিএম

প্রথম শ্রেণীতে পড়ুয়া এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে সিলেটের জৈন্তাপুরে। গত ৪ নভেম্বর উপজেলার জামেয়া ইসলামীয়া দারুল হাদীছ ক্বামরুল ইসলাম মুহিউসসুন্নাহ বাগেরখাল মাদ্রাসার বার্ষিক ওয়াজ মাহফিলে গেলে ওই ঘটনা ঘটে স্থানীয় ফতেপুর ইউনিয়নে। মামলা সূত্রে জানা গেছে, মাহফিলের বাজার থেকে উত্তর বাগেরখাল গ্রামের নুরুল ইসলামের পূত্র পাবেল মিয়া (২০), একই গ্রামের মইন উদ্দিন উরফে কুটিনা মিয়ার পূত্র আনোয়ার হোসেন (২১) ছাত্রীকে ‘মজা’ কিনে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ফুসলিয়ে নিয়ে মেদলের খা নামক স্থানে মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে পালাক্রমে। রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটি কান্নাকাটি করে বাড়ী যায়। সেখানে যেয়ে বিষয়টি জানায় পরিবারের সদস্যদের। এঘটনায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করে। পুলিশ রক্তমাখা জামাকাপড় জব্দ করে এবং ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। এদিকে, পুলিশ অভিযান চালিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেনের পিতা মইন উদ্দিন ওরফে কুটিনা মিয়া ও পাবেল মিয়ার বড় ভাই রাশেল মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসে থানায়। তবে, তারা অভিযুক্তদের পুলিশ হেফাজতে দেবেন মর্মে অঙ্গিকার করে ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ ও মন্তাজ মেম্বার তাদের থানা থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান। এ দিকে ঘটনার ৬ দিন অতিক্রান্ত হলেও অভিযুক্তদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এ প্রসঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ বলেন, একটি ঘটনা ঘটেছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পুলিশ

২১ জানুয়ারি, ২০২২
১৮ জানুয়ারি, ২০২২
১৭ জানুয়ারি, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ