Inqilab Logo

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ১২ মাঘ ১৪২৮, ২২ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

জার্মানির আগামী চ্যান্সেলর হচ্ছেন শলৎস?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ নভেম্বর, ২০২১, ৪:৩৭ পিএম

জার্মানিতে সরকার গড়ার লক্ষ্যে আলোচনায় অগ্রগতি সম্পর্কে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন এসপিডি নেতা ওলাফ শলৎস। নতুন সরকারের কর্মসূচি রূপায়নে অর্থের জোগান নিয়েও দুশ্চিন্তার কারণ দেখছেন না তিনি।

জার্মানিতে সেপ্টেম্বর মাসের নির্বাচনের পর সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি, উদারপন্থি এফডিপি ও পরিবেশবাদী সবুজ দল সরকার গঠনের লক্ষ্যে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। করোনা সংকটের চাপে এই তিন দলকে এমনকি সরকার গড়ার আগেই সংসদে আইনের খসড়া পেশ করতে হচ্ছে। তিন সম্ভাব্য শরিক দল এখনো পর্যন্ত নির্ধারিত সময়সূচি মেনে চলায় ৬ই ডিসেম্বর নাগাদ এসপিডি নেতা ওলাফ শলৎস জার্মানির আগামী চ্যান্সেলর হিসেবে শপথ নিতে পারেন, এমন সম্ভাবনা আরও উজ্জ্বল হয়ে উঠছে।

গোপনীয়তার বেড়াজালের অঙ্গীকারের কারণে তিন দলের নেতারা ‘ট্রাফিক লাইট কোয়ালিশন’ গড়ার লক্ষ্যে আলোচনার খুঁটিনাটী বিষয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলছেন না। তবে সোমবার জার্মানিপ ‘স্যুডডয়তে সাইটুং’ সংবাদপত্র আয়োজিত এক নৈশভোজে শলৎস নিজে জানিয়েছেন, যে আলোচনা খুবই ভালোভাবে এগোচ্ছে। অত্যন্ত গঠনমূলক মনোভাব নিয়ে আলোচনা চলছে। ফলে চলতি মাসের শেষের মধ্যেই কোয়ালিশন চুক্তির খসড়া তৈরির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

সম্ভাব্য জোট সরকারের তিন শরিক দল একাধিক ক্ষেত্রে আমূল সংস্কারের যে লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছে, সেই বিশাল উদ্যোগ কার্যকর করার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। বিশেষ করে এফডিপি দল করের বোঝা বাড়ানো ও ঋণের অনুমোদিত মাত্রা অতিক্রম করার ঘোর বিরোধিতা করায় এ বিষয়ে সংশয় দেখা যাচ্ছে। ওলাফ শলৎস সেই সংশয়ের কোনো কারণ দেখছেন না। তিনি জোর দিয়ে বলেন, কোয়ালিশন চুক্তিতে উল্লিখিত লক্ষ্য পূরণ করতে প্রয়োজনীয় অর্থের জোগান নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না। কর বাবদ রাজস্ব বাড়ার পূর্বাভাস ও আগামী কয়েক বছরে জোরালো অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা এ ক্ষেত্রে অনুকূল পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে বলে তিনি মনে করেন। এ প্রসঙ্গে শলৎস মনে করিয়ে দেন, যে করোনা সংকট সত্ত্বেও জার্মানিকে তেমন বাড়তি ঋণ নিতে হয় নি, যেমনটা আর্থিক সংকট মোকাবিলার সময় ঘটেছিল।

জার্মানির চলমান করোনা সংকট মোকাবিলায় সম্ভাব্য সরকারের তিন শরিক দল শুরু থেকেই সংসদে বিতর্কের উপর জোর দিচ্ছে। গত সপ্তাহেই সংক্রমণ সুরক্ষা আইনে পরিবর্তনের প্রাথমিক খসড়া পেশ করার পর আগামী বৃহস্পতিবার আরও স্পষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে বিতর্ক চাইছে তারা। এসপিডি নেতা ওলাফ শলৎস এ প্রসঙ্গে নির্দিষ্ট কিছু পেশার জন্য করোনা টিকা বাধ্যতামূলক করার বিষয়ে বিতর্ককে স্বাগত জানিয়েছেন। তার মতে, বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রসঙ্গটি এড়িয়ে যাবার কোনো অবকাশ নেই। তবে একমাত্র ঐকমত্যের ভিত্তিতেই আদৌ এমন পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব বলে শলৎস মনে করেন। সংক্রমণ সুরক্ষা আইন সংশোধনের ক্ষেত্রেও বিষয়টি প্রাসঙ্গিক বলে তিনি মনে করেন। সূত্র: রয়টার্স, ডিপিএ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জার্মানি


আরও
আরও পড়ুন