Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮, ২৩ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

নুসরাত-নিখিলের বিয়ে বৈধ নয়, জানিয়েছে আদালত

বিনোদন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ নভেম্বর, ২০২১, ১১:২০ এএম

টলিউড অভিনেত্রী নুসরাত জাহানের সঙ্গে নিখিল জৈনের বিচ্ছেদ চূড়ান্ত হয়েছে। ম্যারেজ অ্যানালমেন্টের মাধ্যমে নুসরাতের সঙ্গে সম্পর্কে ইতি টানতে চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন নিখিল। বুধবার আলিপুর সিভিল কোর্টে ওঠে নুসরাত জাহান-নিখিল জৈন বিবাহবিচ্ছেদের মামলা। সেই মামলায় আদালত রায় দিয়েছে নিখিল জৈনের পক্ষে।

২০১৯ সালে তুরস্কে ঘটা করে ডেস্টিনেশন ওয়েডিং করেছিলেন নুসরাত জাহান ও নিখিল জৈন। কিন্তু এক বছর কাটতে না কাটতেই সেই সম্পর্কের মাঝে ঢুকে পড়ে তৃতীয় ব্যক্তি। যার দরুণ নিখিল–নুসরাতের সম্পর্কে চিড় ধরে। গত ফেব্রুয়ারি মাসেই নিখিল নুসরাতকে ডিভোর্সের নোটিস পাঠিয়েছিলেন বলে শোনা যায় ৷ এরপর নুসরাতের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর ছড়াতেই নিখিল জানিয়ে দিয়েছিলেন যে, নুসরাতের সন্তানের বাবা তিনি নন ৷ এছাড়া যেহেতু আইনি প্রক্রিয়ায় তাদের ম্যারেজ রেজিস্ট্রেশন হয়নি, তাই অ্যানালমেন্ট করেই আলাদা হতে হবে তাদের। সে জন্য ম্যারেজ অ্যানালমেন্টের পথেই হাঁটেন নিখিল।

তবে নিখিলের অ্যানালমেন্টের প্রস্তাবে রাজি ছিলেন না নুসরাত জাহান। বিবৃতি দিয়ে অভিনেত্রী দাবি করেছিলেন, ভারতীয় আইন অনুযায়ী তার ও নিখিলের বিয়েই হয়নি। তারা শুধুমাত্র লিভ-ইন সম্পর্কে ছিলেন। সুতরাং বিচ্ছেদের প্রশ্নই আসে না। তবে সাংসদ–অভিনেত্রীর এই বিবৃতি নিয়েও বিতর্কের সৃষ্টি হয়। অনেকেই প্রশ্ন করেন যে নুসরাত তাহলে শাখা–পলা, সিঁদুর কেন পরতেন? তবে এখন এই প্রসঙ্গ সত্যিই অতীত। কারণ এই বিতর্কের মাঝেই নুসরাত অন্তঃসত্ত্বা হয়ে যান এবং আগস্টে জন্ম দেন পুত্র সন্তান ইশানের।

যদিও তার মা হওয়া নিয়েও কম জল্পনা হয়নি। সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে নুসরাত ইশানের বাবা হিসাবে যশকে পরিচয় করান, এমনকি, প্রকাশ্যে যশকে স্বামী হিসেবে মেনেও নেন নুসরাত জাহান। তবে এত কিছুর মাঝেও নিখিল কিন্তু নুসরাত ও যশের সম্পর্ক নিয়ে কোনোদিনই মুখ খোলেননি। তিনি নিজের কাজ নিয়েই ব্যস্ত হয়ে পড়েন। তবে বুধবার আদালতের এই সিদ্ধান্তে যে খুশি তা জানিয়েছেন নিখিল। তিনি বলেছেন, 'অনেকটাই শান্তি পেলাম’‌। ‌ ‌



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: টলিউড


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ