Inqilab Logo

সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৩ মাঘ ১৪২৮, ১৩ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

সন্ত্রাসের হুমকি কমায় পাকিস্তানে ফের প্রতিরক্ষা সরঞ্জামের আধুনিকায়ন শুরু

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ নভেম্বর, ২০২১, ১২:০৮ এএম

পাকিস্তানের জঙ্গি গোষ্ঠী তেহরিক-ই তালেবান পাকিস্তান বা টিটিপি দিক থেকে মনোযোগ সরিয়ে চির প্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে টার্গেট করে পাকিস্তান তার প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম আধুনিকীকরণের প্রচেষ্টা জোরদার করেছে। ভারত টি-৯০এমএস ট্যাঙ্কের অর্ডার, টি৯০এ ট্যাঙ্কগুলোর একটি বড় বহর তৈরি এবং বেশিরভাগ টি-৭২এম১ ট্যাঙ্কগুলোকে আপগ্রেড করায় পাকিস্তান এর মোকাবিলায় তার নতুন ধরনের সাঁজোয়া যান এবং উন্নত নিজস্ব প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম আধুনিকায়ন করছে।
যদিও টিটিপির বিরুদ্ধে অভিযানকালেও ধীরলয়ে অস্ত্র সংগ্রহ অব্যাহত ছিল। লেখক, বিশ্লেষক এবং ইসলামাবাদের প্রাক্তন অস্ট্রেলিয়ান প্রতিরক্ষা অ্যাটাশে ব্রায়ান ক্লাউলি ব্যাখ্যা করেছেন যে, প্রয়োজনীয়তার দাবি ছিল বৃহত্তর প্রোগ্রামগুলোকে প্রত্যাহার করা বা হিমায়িত করা।
তিনি বলেন, ‘তালেবান এবং অন্যান্য জঙ্গি কার্যকলাপের বিস্তৃতি, বিশেষ করে আফগানিস্তানের সীমান্তবর্তী অঞ্চলে যেখানে ভারী যানবাহন চলাচলের অযোগ্য, সেনাবাহিনীকে বিদ্রোহ দমনের ওপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। এটি একটি বাজেটের সিদ্ধান্ত ছিল, যা কৌশলগত বাস্তববাদ দ্বারা সমর্থিত ছিল’। ‘কিন্তু এটা স্বীকার করা হয়েছে যে, বিদ্রোহ বিরোধিতা কমে যাওয়ায় প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম আধুনিকায়নের কর্মসূচি ফের চালু করা যেতে পারে’।
পাকিস্তান সেনাবাহিনী আফগানিস্তানের সীমান্ত বরাবর অশাসিত স্থানগুলোতে দেশি ও বিদেশী সন্ত্রাসীদের নির্মূল করার জন্য ২০১৪ থেকে প্রথম অপারেশন জারব-ই-আজব (বা ইংরেজিতে ‘কাটিং ব্লো’) শুরু করার পর টিটিপির নেতৃত্বাধীন হুমকিকে কার্যকরভাবে পরাজিত করেছিল।
টিটিপি এবং এর সহযোগীরা তখন পর্যন্ত মূলত স্ব-শাসিত ফেডারেল শাসিত উপজাতীয় অঞ্চলের রুক্ষ ওয়াজিরিস্তান অঞ্চল দখল করেছিল যেগুলো পরে খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশে বিলীন হয়ে যায়। সেনাবাহিনী ২০১৭ সালের প্রথম দিক থেকে দেশব্যাপী সন্ত্রাসী সিøপার সেল নির্মূল করার জন্য একটি সম্মিলিত চলমান সামরিক-বেসামরিক প্রচেষ্টা হিসেবে অপারেশন রাদ্দ-উল-ফাসাদ (বা ‘সঙ্ঘাত নির্মূল’) পরিচালনা করা হয়। আফগানিস্তান-পাকিস্তান সীমান্তে বেড়া দেয়াও অনেকাংশে সম্পূর্ণ যা অবশিষ্ট টিটিপি বাহিনীর গতিবিধি সীমিত করবে।
সম্প্রতি মার্কিন প্রত্যাহারের পর তালেবানরা আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ পুনরুদ্ধার করেছে। দলটি পরবর্তীতে পাকিস্তানকে আশ্বস্ত করেছে যে, তারা টিটিপির অবশিষ্টাংশকে দেশটিতে আক্রমণ চালাতে দেবে না। যদিও পাকিস্তানে মাঝে মাঝে নিম্ন-স্তরের সন্ত্রাসী হামলা হয়, তবে সেখানকার সরকার টিটিপি সদস্যদের অস্ত্র সমর্পণ ও আত্মসমর্পণ করার শর্তে সাধারণ ক্ষমার প্রস্তাব দেওয়ার জন্য যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী বোধ করেছে।
তবে, ক্লাউলি বলেছেন, সেনাবাহিনী ‘সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধ থেকে সরে যায়নি, যা সব সেনাবাহিনীর মতো সম্পদ ব্যবস্থাপনা, প্রযুক্তি এবং প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে অত্যন্ত উচ্চ অগ্রাধিকার হিসাবে অব্যাহত রয়েছে’।
তবুও, তিনি যোগ করেছেন, ‘জোর দেওয়ার বছরগুলো ফলপ্রসূ হয়েছে এবং সেনাবাহিনী এখন অনুভব করে যে, তার ভারতের বিরুদ্ধে মহাদেশীয় প্রতিরক্ষার প্রাথমিক ভূমিকায় বিগত ২০ বছর ধরে যা করতে সক্ষম হয়েছে তার চেয়ে বেশি সংস্থান বরাদ্দ করা যেতে পারে’।
প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম আধুনিকায়ন কি কাজ করছে?
রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সাঁজোয়া যুদ্ধ যানবাহন প্রস্তুতকারক হেভি ইন্ডাস্ট্রিজ ট্যাক্সিলা বা এইচআইটি-তে সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়ার ৯ নভেম্বরের সফরের সময় পাকিস্তানের সাম্প্রতিক কিছু উন্নয়ন প্রকাশ করা হয়েছিল। এগুলোর মধ্যে রয়েছে, প্রধান যুদ্ধ ট্যাংকের জন্য নতুনভাবে উন্নত সুরক্ষা ব্যবস্থা এবং দূরবর্তী অস্ত্র স্টেশন। একটি দেশীয়ভাবে উন্নত ১৫৫ মিমি আর্টিলারি বন্দুক ব্যারেল। সাঁজোয়া যুদ্ধ যানের জন্য ব্যালিস্টিক এবং উন্নত বিস্ফোরক ডিভাইস সুরক্ষা। সাঁজোয়া কর্মীবাহক এবং ট্যাংক উৎপাদন, পুনর্নির্মাণ এবং আপগ্রেড করার প্রোগ্রাম।
উল্লেখযোগ্য, ভিজিটের ফুটেজে দেশীয় ভাইপার পদাতিক ফাইটিং ভেহিকল এবং টাইপ-৮৫এপিআইআই প্রধান যুদ্ধ ট্যাঙ্কের আধুনিক সংস্করণ দেখানো হয়েছে। এক পর্যায়ে, একটি টাইপ-৮৫এপিআইআই বুরুজ একটি উন্মুক্ত যৌগিক আর্মার মডিউলসহ দৃশ্যমান হয়, সম্ভবত একটি নতুন প্রকারের সাথে প্রতিস্থাপনের ইঙ্গিত দেয়।
এইচআইটি-এর চলমান প্রোগ্রামগুলোর জ্ঞানসহ একটি শিল্প সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে ডিফেন্স নিউজকে বলেছে যে, ভাইপারটির পরীক্ষামূলক উৎপাদন চলছে। উৎসটি আরো বলেছে যে, ইউক্রেনীয় সরবরাহকৃত টি-৮০ইউডি ট্যাঙ্কগুলো একটি নতুন থার্মাল গানারের দৃষ্টিশক্তি এবং একটি স্থানীয়ভাবে উন্নত সলিড-স্টেট অটোলোডার দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে।
সূত্রটি যোগ করেছে যে, সম্প্রতি চায়না নর্থ ইন্ডাস্ট্রিজ গ্রুপ কর্পোরেশন লিমিটেডের কাছ থেকে প্রাপ্ত নরিনকো নামে পরিচিত ভিটি-৪ ট্যাঙ্কটি ভবিষ্যতের আল-খালিদ ২-এর ভিত্তি তৈরি করবে। বিদ্যমান পরবর্তী আল-খালিদ সংস্করণগুলোকে একই মানদণ্ডে আপগ্রেড করা হবে। যদিও তিনি টাইপ-৮৫এপিআইআই আপগ্রেডের বিশদ বিবরণ দিতে অক্ষম, ডিফেন্স নিউজ বুঝতে পারে যে, এটি টি-৮০ইউ-এর অনুরূপ লাইনে আপগ্রেড করা হয়েছে।
এইচআইটি কর্মকর্তারা পূর্বে ডিফেন্স নিউজকে বলেছিলেন যে, টি-৮০ইউ এবং টাইপ-৮৫এপিআইআই ট্যাঙ্কগুলো পরীক্ষামূলক পুনর্নির্মাণের পরে আপগ্রেড হবে, যদিও টাইপ-৮৫এপিআইআই ফায়ার এবং বন্দুক নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা ইতোমধ্যে কিছু মনোযোগ পেয়েছে এবং গানারটি ইতোমধ্যেই একটি তাপ দৃষ্টিশক্তি দিয়ে সজ্জিত ছিল।
টাইপ-৮৫এপিআইআই একটি আপগ্রেড করা পাওয়ার প্যাকও পেয়েছে, কিছু উৎস এখন প্ল্যাটফর্মটিকে টাইপ-৮৫ইউজি হিসাবে উল্লেখ করছে। ভবিষ্যৎ আশা ভিটি-৪-জির ওপর মনোযোগ নিবদ্ধ করা, প্রথমটি এপ্রিল ২০২০-এ বিতরণ করা হয়েছে। এটি জুন ২০২১-এর দিকে পরিষেবাতে প্রবেশ করেছে।
টাইপ-৯০আইআই/আল-খালিদ থেকে প্রাপ্ত হলেও ভিটি-৪-জি চীনের হাই-এন্ড টাইপ-৯৯জি প্রধান যুদ্ধ ট্যাঙ্কের উন্নত বন্দুক রয়েছে এবং তাই পাকিস্তানের অন্যান্য ট্যাঙ্কের তুলনায় অধিক অনুপ্রবেশকারী শক্তির সাথে একই রাউন্ড ফায়ার করতে পারে। ভিটি-৪ এর আরো উন্নত যৌগিক এবং প্রতিক্রিয়াশীল অস্ত্রশস্ত্র রয়েছে; চীনের তৃতীয় প্রজন্মের থার্মাল ইমেজিং সিস্টেম; আরো উন্নত ফায়ার এবং বন্দুক নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা; এবং একটি চীনা তৈরি পাওয়ারট্রেন।
রিফোকাসিং : ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসেসমেন্ট অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজি সেন্টারের সিনিয়র ফেলো রিচার্ড ফিশার বলেন, ভিটি-৪ এবং সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তি ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সমতার উপাদান প্রদান করবে।
তিনি বলেন, ‘নরিনকো-এর ভিটি-৪ সরাসরি ক্রয় হিসাবে বা অভ্যন্তরীণভাবে উৎপাদিত আল-খালিদ ২-এর ভিত্তি হিসাবে পাকিস্তানকে ভারতের প্রাপ্ত রাশিয়ান টি-৯০এমএস-এর সাথে পাওয়ারট্রেন থেকে ফায়ার কন্ট্রোল পর্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক বিস্তৃত আধুনিক ট্যাঙ্ক উচ্চ গতির বন্দুক, বন্দুক-চালিত অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক মিসাইল এবং সক্রিয় সুরক্ষা প্রযুক্তি সরবরাহ করবে’।
তবে, তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ‘মোটামুটি সমতা পাকিস্তান এবং ভারত উভয়ের জন্যই অসন্তুষ্ট হতে পারে, তাই উভয়ই সম্ভবত নিয়মিত প্রাপ্ত আধুনিক বা পরবর্তী প্রজন্মের বিকল্পগুলো খুঁজবে’।
আসল আল-খালিদের বিপরীতে, পাকিস্তান তার ভিটি-৪ এর সাথে ব্যয়বহুল ইউরোপীয় দর্শনীয় সিস্টেমের ওপর নির্ভরতা এবং মাঝে মাঝে ইউক্রেনীয় পাওয়ারট্রেনগুলোর সমস্যাযুক্ত সরবরাহ এড়ায়। কিন্তু এমন কোন ইঙ্গিত নেই যে, চীনা পাওয়ারট্রেন টি-৮০ইউ এবং আল-খালিদ ট্যাঙ্ক দ্বারা ভাগ করা প্রতিস্থাপন করবে।
ভাইপার সাদ সাঁজোয়া কর্মী বাহক (আমেরিকান আর্মার্ড ইনফ্যান্ট্রি ফাইটিং ভেহিকেলের অনুরূপ) এর ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে, এতে অতিরিক্ত আর্মার সুরক্ষা এবং একটি ৩০ মিমি বন্দুক এবং দুটি অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক মিসাইলসহ মানবহীন সেøাভাকিয়ান তুরা ৩০ কমব্যাট মডিউল রয়েছে। এটি তিনজনের একটি ক্রু বহন করে, প্লাস নয়টি ডিসমাউন্ট।
পাকিস্তানের পদাতিক যোদ্ধা যানে স্থানান্তর অন্যান্য বড় সেনাবাহিনীর অনেক বছর পরে আসে, যা ক্লাউলি বলেছিলেন যে, অনিবার্য ছিল।
তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘আইএফভিগুলো ব্যয়বহুল এবং তাদের অপারেশনের জন্য সমস্ত স্তরে প্রচুর প্রশিক্ষণের প্রয়োজন, যা সেনাবাহিনী, বিদ্রোহ বিরোধী অভিযানে মনোযোগ দেওয়ার প্রয়োজনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে চায়নি’। ‘[পাকিস্তান সেনাবাহিনী] সবসময় আইএফভিএস চেয়েছে এবং এখন ইউনিট প্রশিক্ষণকে বিবেচনায় নিয়ে একটি ভারসাম্যপূর্ণ পরিচিতি প্রোগ্রামের সুযোগ দেখছে’।
সেনাবাহিনী তার সাঁজোয়া যুদ্ধের দক্ষতাকে আরো তীক্ষè করছে, এ বছর পদাতিক, যান্ত্রিক বাহিনী, যুদ্ধ বিমান চালনা, নজরদারি প্ল্যাটফর্ম, বিমান প্রতিরক্ষা এবং আর্টিলারিসহ তার স্থল বাহিনীর বিভিন্ন শাখার মধ্যে একীকরণের উন্নতির জন্য একটি বৃহৎ মাপের অনুশীলনের একটি সিরিজ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
ক্লাউলি বিশ্বাস করেন ‘পারমাণবিক যুদ্ধক্ষেত্রে কৌশলের ওপরও জোর দেওয়া হচ্ছে এবং প্রায় সকল অনুশীলনে বন্ধ অপারেশনগুলো অনুশীলন করা হচ্ছে’। তিনি বলেন, ‘এইচআইটি সর্বদা [পারমাণবিক-, জৈবিক- এবং রাসায়নিক-সুরক্ষিত] প্রযুক্তি বিকাশের গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন এবং ক্রুদের আরাম-আয়েশও মনোযোগ পেয়েছে’।
যদিও সামরিক বাহিনী স্বস্তি পাবে যে, তার প্রতিরক্ষা সরঞ্জামের আধুনিকীকরণ কার্যক্রম ট্র্যাকে ফিরে এসেছে, ক্লাউলি একটি সতর্কবাণী জারি করেছেন: ‘যদিও আমি সম্মত যে, এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে [পাকিস্তান সেনাবাহিনী] আন্তঃকার্যকারিতা উন্নত করে চলেছে এবং এর সাঁজোয়া সক্ষমতা অবশ্যই আপগ্রেড করা উচিত, তবে তাদের অবশ্যই বিদ্রোহ দমন থেকে দৃষ্টি সরানো চলবে না, যা সেনাবাহিনীর মিশনের গুরুত্বপূর্ণ দিক’। সূত্র : ডিফেন্স নিউজ।



 

Show all comments
  • Md.Rashadujaman ২১ নভেম্বর, ২০২১, ৭:৪৮ এএম says : 0
    নিঃসন্দেহে ভালো খবর। পাকিস্তানকে এখন সামনে এগিয়ে যেতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • মামুন রশিদ চৌধুরী ২১ নভেম্বর, ২০২১, ৭:৪৮ এএম says : 0
    এই খবরে তো ভারতের জ্বালাপোড়া শুরু হয়ে যাবে।
    Total Reply(0) Reply
  • হুসাইন আহমেদ হেলাল ২১ নভেম্বর, ২০২১, ৭:৪৯ এএম says : 0
    ভারতের মতো একটা উগ্র প্রতিবেশী যেহেতু আছে সেহেতু প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম আধুনিকায়ন করা খুবই জরুরি।
    Total Reply(0) Reply
  • সত্য উন্মোচন ২১ নভেম্বর, ২০২১, ৭:৫০ এএম says : 0
    খুবই ভালো খবর।
    Total Reply(0) Reply
  • মাহমুদ ২১ নভেম্বর, ২০২১, ৮:৫৩ এএম says : 0
    পাকিস্তানের জন্য অনেক অনেক শুভ কামনা রইলো
    Total Reply(0) Reply
  • jack ali ২১ নভেম্বর, ২০২১, ১২:৫৫ পিএম says : 0
    If our beloved country rule by Quran then we would have manufactured all sort of sophisticated weapon because Muslims are not allow to depends on .... country for weapon.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ