Inqilab Logo

রোববার, ২২ মে ২০২২, ০৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২০ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

চমেক খুলছে শনিবার ৩১ ছাত্র বহিষ্কার

চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৩ নভেম্বর, ২০২১, ৫:৪৩ পিএম

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে (চমেক) ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ৩১ ছাত্রকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করা হয়েছে। একই সঙ্গে ২৭ নভেম্বর কলেজ খোলার সিদ্ধান্ত হয়েছে। মঙ্গলবার একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। গত দুই বছরে একাধিক মারামারির ঘটনাসহ শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ বিভিন্ন বর্ষের এমবিবিএস ছাত্রদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মেয়াদে এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এই ৩১ জনের মধ্যে ছাত্রলীগের বিবদমান দুই পক্ষের নেতা-কর্মী রয়েছেন। এর মধ্যে ২৩ জন এমবিবিএস বিভিন্ন বর্ষের শিক্ষার্থী এবং ৮ জন বিডিএস বিভিন্ন বর্ষের শিক্ষার্থী। চমেকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৯ ও ৩০ অক্টোবরের সর্বশেষ মারামারি এবং এর আগের বিভিন্ন সময়ে সংঘাতের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ৩১ জনের বিরুদ্ধে এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। আগের মারামারির ঘটনার দুটি তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয় বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। এর মধ্যে দুই বছরের জন্য বহিষ্কৃত ব্যক্তিরা হলেন এমবিবিএস ৬২তম ব্যাচের এইচ এম আসহাব উদ্দিন, সৌরভ ব্যাপারী ও সাদ মোহাম্মদ গালিব, অভিজিৎ দাশ (৬০তম ব্যাচ), সাইফ উল্লাহ (৬১তম ব্যাচ), সাজেদুল ইসলাম (৩০তম বিডিএস), জাহেদুল ইসলাম (বিডিএস ৩১তম) ও ইমতিয়াজ আলাম (বিডিএস ৩০তম ব্যাচ)। দেড় বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয় দুজনকে। তালা হলেন রিয়াজুল ইসলাম (এমবিবিএস ৫৯তম) ও অভিজিৎ দাস (এমবিবিএস ৬০তম)। এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয় ২১ জনকে। তারা হলেন সাজু দাস (এমবিবিএস ৬২তম), রকিব উদ্দিন আহমেদ (৬২তম), জাকির হোসেন (৬২তম), জুলকাফল মহাম্মদ শোয়েব (৬২তম), ইব্রাহিম খলিল (৬২তম), চমন দাশ (৬২তম), ফারহান রহমান (৬২তম), মাহিন আহমেদ (৬২তম), শেখ ইমাম হাসান (৬২তম), সৌরভ দেবনাথ (৬২তম), মইনুল হোসেন (বিডিএস ৩১তম), আরাফাত ইসলাম (৬২তম), হাবিবুল্লাহ হাবিব (বিডিএস ৩০তম), মো. আনিস (বিডিএস ৩১তম), এহসানুল কবির (বিডিএস ৩১তম), মাহতাব উদ্দিন (বিডিএস ৩১তম), মো. শামীম (৬০তম), মো. সাব্বির (৬০ত )মো. সাব্বির (৬০তম), মইন ভূঁইয়া (৬১তম), তৌফিকুর রহমান (৫৮তম) ও আল আমিন ইসলাম (৫৮তম)।

সর্বশেষ গত মাসে সংঘটিত ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মারামারির ঘটনায় গঠিত পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গতকাল সোমবার অধ্যক্ষ বরাবর প্রতিবেদন দেয়। এরপর আজ একাডেমিক কাউন্সিলের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় আগের দুটি তদন্ত প্রতিবেদনও পর্যালোচনা করা হয়। তদন্ত প্রতিবেদনগুলোতে যাদের নাম বারবার এসেছে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয় বলে জানা গেছে।

বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা আগামী ছয় মাসের মধ্যে নিজেদের নির্দোষ প্রমাণের জন্য কোনো আবেদন করতে পারবেন না বলেও সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে কলেজ ২৭ নভেম্বর খোলার সিদ্ধান্তের কথাও জানানো হয়। তবে মেডিকেলের প্রধান ছাত্রাবাস ও নাসিরাবাদের ছাত্রাবাস বন্ধ থাকবে। দুই ছাত্রাবাসের আসন বরাদ্দ বাতিল করা হয়। ছাত্রাবাসে নতুন করে আসন বরাদ্দের জন্য পুনরায় আবেদন করতে হবে বলে জানানো হয়। তবে ছাত্রীদের কান্তা হোস্টেল খোলা থাকবে। এ ছাড়া আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ক্যাম্পাসে সভা–সমাবেশে নিষেধ থাকবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বহিষ্কার

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ