Inqilab Logo

শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৮ মাঘ ১৪২৮, ১৮ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

ভোলায় যুবলীগ নেতা টিটুকে হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

ভোলা জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৯ নভেম্বর, ২০২১, ৪:৪০ পিএম

ভোলার দৌলতখান উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এ কে এম নাছির উদ্দিন নান্নুকে হত্যার উদ্দেশে গুলি ও যুবলীগ নেতা খোরশেদ আলম টিটুকে গুলি করে নৃশংসভাবে হত্যা মামলার প্রধান আসামী জামাল উদ্দিন চকেটসহ সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতার, ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে কয়েক হাজার বিক্ষুব্ধ মানুষ। সোমবার (২৯ নভেম্বর) দুপুরে শহরের প্রেসক্লাব চত্বরে ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধনে জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ধনিয়া, কাচিয়া ও মদনপুর ইউনিয়নবাসীসহ সচেতন নাগরিক সমাজের ব্যানারে এ মানববন্ধনে আওয়ামী লীগ, যুবলীগসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ অংশ নেয়। মানববন্ধন থেকে বক্তারা, হত্যার মূল আসামি জামাল উদ্দিন চকেটসহ ১৬জন আসামীকে গ্রেফতার না হলে কঠোর আন্দোলনসহ কর্মসূচী দেয়া হলে বলে হুশিয়ারী করেন।
এসময় বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কাচিয়া ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম নকীব, মদনপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন নান্নুর, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. নুরুল ইসলাম নুরনবী, সচেতন নাগরিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলী নেওয়াজ পলাশ, মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের সভাপতি মোঃ সরমান, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার পাশা, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আবিদুল আলমসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। এ দিকে মানববন্ধন শেষে প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।
এসময় বক্তারা বলেন, দৌলতখানের বিচ্ছিন্ন মদনপুর ইউনিয়নে শান্তিপূূর্ণ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নাসির উদ্দিন নান্নু জনগনের রায়ে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়। বিজয়ের পর বিজয়ী চেয়ারম্যান নান্নু তার নির্বাচনী এলাকায় আনন্দ উৎসব করে কর্মীদের নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। এসময় পরাজিত স্বতন্ত্র প্রার্থী চিহ্নিত জলদস্যু জামাল উদ্দিন চকেট ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী বিজয়ী চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন নান্নুকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার ট্রলারে গুলিবর্ষণ করে। নাসির উদ্দিন নান্নুর কর্মী ও ধনিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খোরশেদ আলম টিটু গুলিবিদ্ধ হয় তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় জলদস্যু জামাল উদ্দিন চকেটকে প্রধান আসামী করে ১৬জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হলেও পুলিশ আজ পর্যন্ত পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করতে পারেনি। এটা অত্যান্ত দুঃখজনক। টিটু রক্ত বীথা যেতে দিবো না। আমরা চাই খুনি জলদস্যু জামাল উদ্দিন চকেটসহ অন্যান্য আসামীদেরকে অতি দ্রুত গ্রেফতার করে বিচারের মাধ্যমে তাদেরকে ফাঁসিতে ঝুলানো হোক। এই হত্যাকা-ের সাথে জড়িতদেরকে যতদিন পর্যন্ত গ্রেফতার করে বিচার করা না হবে আমাদের সংগ্রাম চলবে। এই চিহ্নিত খুনিদেরকে পুলিশ প্রশাসন দ্রুত গ্রেফতার করতে না পারে তাহলে আমরা আরো কঠোর আন্দোলন দিতে বাধ্য হবে।
উল্লেখ্য, গত শুক্রবার ভোলার দৌলতখান উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন নান্নু ও তার কর্মীদের নিয়ে নিবার্চন পরবর্তী বিজয় সমাবেশ শেষে মদনপুর থেকে ট্রলারে ভোলা সদরে ফেরার পথে মেঘনা নদীতে এলোপাতাড়ি গুলি চালায় সন্ত্রাসী। এতে ধনিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক খোরশেদ আলম টিটু গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। এই ঘটনায় তার প্রতিপক্ষ স্বতন্ত্র প্রার্থীর চকেট জামালকে প্রধান আসামী করে ১৬ জনের নামে মামলা হয়। ওই মামলায় ১জন আসামিকে গ্রেফতার করলেও মূল আসামিদের এখনো পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ