Inqilab Logo

শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৭ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

বার্বাডোসে জমকালো অনুষ্ঠান দিয়ে প্রজাতন্ত্রের জন্ম উদযাপন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ নভেম্বর, ২০২১, ৫:০২ পিএম

সোমবার সন্ধ্যায় জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে প্রজাতন্ত্রের জন্ম উদযাপন করেছে বার্বাডোস। এ মধ্য দিয়ে তারা প্রায় ৪০০ বছর পর ব্রিটিশ রাজতন্ত্রের সাথে তার শেষ অবশিষ্ট বন্ধন ছিন্ন করেছে। অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেন রাষ্ট্রের সাবেক প্রধান রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের পুত্র প্রিন্স চার্লস। সেখানে তিনি ‘দাসত্বের ভয়ঙ্কর নৃশংসতা’র কথা স্বীকার করেছেন।

দ্বীপ দেশটির রাজতন্ত্র থেকে প্রজাতন্ত্রে ঐতিহাসিক রূপান্তরকে চিহ্নিত করার আনুষ্ঠানিক উৎসবের জন্য রাজধানীর কেন্দ্রস্থলে ন্যাশনাল হিরোস স্কোয়ারকে জাতীয় রঙ সোনালী ও মেরুনে সজ্জিত করা হয়েছিল। ব্রিটিশ সিংহাসনের উত্তরাধিকারী প্রিন্স চার্লস এই অনুষ্ঠানের জন্য লন্ডন থেকে এসেছিলেন এবং রাজকীয় পতাকাটি নামানো এবং তার জায়গায় দেশটির নতুন পতাকা উত্তোলনের সাক্ষী থাকেন।

এর পরে, রানীর নিজের সাবেক প্রতিনিধি, গভর্নর-জেনারেল ও সাবেক আইনজ্ঞ ৭৩ বছর বয়সী স্যান্ড্রা ম্যাসন প্রধান বিচারপতির দ্বারা প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন৷ বার্বাডোস ব্রিটেন থেকে স্বাধীনতা ঘোষণা করার ঠিক ৫৫ বছর পর এই অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হয়। ম্যাসন প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার প্রথম ভাষণে বলেন, ‘আমরা কে, এবং আমরা কী অর্জন করতে পারি, ২০২১ সালে, আমরা এখন নতুন প্রজাতন্ত্রের দিকে আমাদের জাহাজের ধনুক ঘুরিয়ে দিই। আমরা এটি করি যাতে আমরা আমাদের সার্বভৌমত্বের সম্পূর্ণ উপাদান দখল করতে পারি। দশক ধরে, আমরা বার্বাডোসের প্রজাতন্ত্রে রূপান্তর নিয়ে আলোচনা ও বিতর্ক করেছি। আজ, বিতর্ক এবং বক্তৃতা কর্মে পরিণত হয়েছে। আজ, আমরা আমাদের জন্য একটি নতুন দিকনির্দেশ করেছি।’

ঐতিহাসিক মুহূর্তটি স্মরণীয় করে রাখার জন্য ২১ বার গোলাবর্ষনের পরে ম্যাসন প্রিন্স অফ ওয়েলসকে দেশের সর্বোচ্চ সম্মান, অর্ডার অফ ফ্রিডম প্রদান করেন। যা ছিল বার্বাডোস এবং যুক্তরাজ্যের মধ্যে অব্যাহত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ককে তুলে ধরার জন্য একটি পদক্ষেপ।

অনুষ্ঠানে প্রিন্স চার্লস বলেন, ‘এই প্রজাতন্ত্রের সৃষ্টি একটি নতুন সূচনা দেয়। আমাদের অতীতের অন্ধকার দিনগুলো এবং দাসত্বের ভয়ঙ্কর নৃশংসতা থেকে, যা আমাদের ইতিহাসকে চিরকাল কলঙ্কিত করে রেখেছে। এই দ্বীপের লোকেরা অসাধারণ দৃঢ়তার সাথে তাদের পথ তৈরি করেছিল। মুক্তি, স্ব-শাসন এবং স্বাধীনতা ছিল আপনাদের লক্ষ্য। স্বাধীনতা, ন্যায়বিচার এবং আত্ম-সংকল্প আপনাদের পথপ্রদর্শক হয়েছে।’

প্রাণবন্ত উদযাপন অনুষ্ঠানে বার্বাডিয়ান সঙ্গীত এবং নৃত্যও প্রদর্শন করা হয়। তবে অনেকের কাছে একটি উল্লেখযোগ্য বিষয় ছিল যখন গায়িকা রিহানাকে জাতীয় নায়ক ঘোষণা করা হয়। এই ঘোষণায় জনতার বিশাল গর্জন করে আনন্দ প্রকাশ করে। সূত্র: সিএনএন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ