Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

বুড়ো হাড়ে ভেলকি ডেঙ্গু থেকে ফিরেই ইউনুসের সেঞ্চুরি, অপেক্ষায় মিসবাহ

প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস ডেস্ক : বয়সের হিসেবে দু’জন পাকিস্তান বর্তমান টেস্ট দলের বয়োজেষ্ঠ্য। একজন চল্লিশ ছাড়িয়ে, আরেকজন করছেন ছুঁই ছুঁই। তবে এই বুড়ো হাড়েও ভেল্কি দেখিয়েই চলেছেন ২২ গজী পিচে! তাও আবার একজন মাত্রই ফিরলেন ডেঙ্গু থেকে। কিন্তু সেই ছোবলের ছাপ দেখা গেল সামান্যই। ৩৮ বছর বয়সী ইউনুস খান ফিরলেন, নামলেন ২২ গজে, উপহার দিলেন আরেকটি সেঞ্চুরি! আরও একবার অধর্শত করে আউট আসাদ শফিক। তবে শতকের অপেক্ষায় আছেন টেস্ট অধিনায়ক মিসবাহ ৪২ বছর বয়সী মিসবাহ-উল-হক। এমনই কিছু ‘উপহারে’ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আবুধাবি টেস্টের প্রথম দিনে পাকিস্তান তুলেছে ৪ উইকেটে ৩০৪। ১২৭ রান করে ফিরেছেন ইউনুস, যেটি তার ৩৩তম টেস্ট সেঞ্চুরি। সবচেয়ে বেশি টেস্ট সেঞ্চুরির তালিকায় স্টিভ ওয়াহকে ছাড়িয়ে এককভাবে উঠে এসেছেন নয়ে। একাদশ টেস্ট সেঞ্চুরি থেকে ১০ রান দূরে দিন শেষ করেছেন মিসবাহ।
শেখ আবু জায়েদ স্টেডিয়ামের উইকেট বেশ শুষ্ক; স্পিন ধরবে পরে। প্রথম দিনে উইকেট ছিল ব্যাটিং উপযোগী। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ শুরুটা করেছিল ভালো। আগের টেস্টের ট্রিপল সেঞ্চুরিয়ান আজহার আলি এবার এক ধাক্কায় নেমে এসেছেন মাটিতে। শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের বল স্টাম্পে টেনে আনলেন রানের খাতা খোলার আগেই। দেবেন্দ্র বিশুর দারুণ এক ডেলিভারিতে ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে বোল্ড সামি আসলাম। ৪২ রানে পাকিস্তান হারায় ২ উইকেট। তবে পরের সময়টুকু শুধুই পাকিস্তানের। উইকেটে বোলারদের জন্য সহায়তা খুব বেশি না থাকলে সকালে লাইন-লেংথে বল রেখে পাকিস্তানকে নিয়ন্ত্রণে রেখেছিল ক্যারিবিয়ান বোলাররা। শফিক ও ইউনুসের ব্যাটে আস্তে আস্তে আলগা হয় চাপ। তৃতীয় উইকেটে দুজনে গড়েন ৮৭ রানের জুটি।
নির্বিঘেœ খেলতে খেলতেই হঠাৎ আবারও গ্যাব্রিয়েলের বল স্টাম্পে টেনে আনেন শফিক (৬৮)। এই সাফল্যও উজ্জীবিত করতে পারেনি ক্যারিবিয়ানদের। বরং বড় জুটিতে ম্যাচের লাগাম আরও শক্ত করে ধরে পাকিস্তান। উইকেটে যাওয়ার খানিক পরই বিশুকে বিশাল দুটি ছক্কা মারেন মিসবাহ। ইউনুস তো ততক্ষণে জমে গেছেন; ১৬৯ বলে শতক স্পর্শ করেন। এগিয়ে যাচ্ছিলেন শতকের পরও। কাটা পড়লেন নিজের প্রিয় ¯øগ সুইপে! ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েইটের বলে ১২৭ রানে ধরা পড়লেন মিড উইকেটে। ভাঙল ১৭৫ রানের চতুর্থ উইকেট জুটি। দিনের খেলার তখনও বাকি ৬ ওভার। সেঞ্চুরিটা প্রথম দিনই হয়ত পেতে পারতেন মিসবাহ। তবে আলোকস্বল্পতায় তখনই শেষ হয় খেলা। মিসবাহ অপরাজিত ৯০ রানে।
সংক্ষিপ্ত স্কোর : পাকিস্তান ১ম ইনিংস : ৮৪ ওভারে ৩০৪/৪ (শফিক ৬৮, ইউনুস ১২৭, মিসবাহ ৯০ (ব্যাটিং); গ্যাব্রিয়েল ২/৪৩, বিশু ১/৯২, ব্র্যাথওয়েট ১/৩৬)। প্রথম দিন শেষে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।