Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৬ মাঘ ১৪২৮, ১৬ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ইরান-আরব আমিরাত সম্পর্কোন্নয়নের সিদ্ধান্ত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

দীর্ঘদিন ধরে আঞ্চলিক ‘ঠান্ডা যুদ্ধের’ বিপরীতে কাজ করা দুটি দেশ ইরান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই)এর সম্পর্কের বরফ গলতে শুরু করেছে। ইরানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত বুধবার সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরের পর একথা বলেছেন।
ইরানী কূটনীতিক আলি বাঘেরি কানি, যিনি পশ্চিমের সাথে ইরানের পারমাণবিক আলোচনার তত্ত্বাবধানও করেন, আমিরাতের প্রতিমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রী খলিফা শাহীন এবং সেই অফিসে তার পূর্বসূরি আনোয়ার গর্গেশের সাথে দেখা করেন। আমিরাতের রাষ্ট্র-চালিত ডব্লিউএএম আউটলেট বৈঠকটিকে বন্ধুত্বপূর্ণ বলে চিহ্নিত করে বলেছে যে, আমিরাতি এবং ইরানের নেতারা ‘ভালো প্রতিবেশী এবং পারস্পরিক শ্রদ্ধার ভিত্তিতে সম্পর্ক জোরদার করার গুরুত্বের ওপর জোর দিয়েছেন’।
বৈঠক শেষে ইরানি কূটনীতিক এটির প্রশংসা করতে টুইটারে গিয়ে দাবি করেন যে, উভয় পক্ষ তাদের প্রায়শই-বিপর্যস্ত সম্পর্কের ‘একটি নতুন অধ্যায় খুলতে সম্মত হয়েছে’।
বিভিন্ন আঞ্চলিক সঙ্ঘাতে দুই দেশ একে অপরের বিরোধিতা করেছে, সিরিয়া ও ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধে বিপরীত পক্ষকে সমর্থন করেছে। ইরান মার্কিন মধ্যস্থতায় স্বাক্ষরিত শান্তিচুক্তি আব্রাহাম অ্যাকর্ডেরও প্রচণ্ড সমালোচক যা ইসরাইল, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, সুদান এবং মরক্কোর মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের পথ উন্মুক্ত করে।
তাদের মতপার্থক্য সত্ত্বেও ইরান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত একে অপরের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রেখেছে, এমনকি ইরান ও সউদী আরব ২০১৬ সালের জানুয়ারীতে সম্পর্ক ছিন্ন করার পরেও। মধ্যপ্রাচ্য এবং উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে চলমান উত্তেজনা কমানোর উদ্দেশ্যে ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদের নেতৃত্বে আবু ধাবি একটি বহুপাক্ষিক ‘সম্মিলিত কূটনীতির’ পক্ষে কথা বলেছেন।
কানির সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং পি৫+১ এর অন্যান্য সদস্যদের সাথে ২৯ নভেম্বর ইরানের পরমাণু আলোচনায় পুনরায় প্রবেশের প্রস্তুতির জন্য করা হয়েছিল। আলোচনার উদ্দেশ্য হল ২০১৫ সালের যৌথ ব্যাপক পরিকল্পনা দ্বারা তৈরি নজির পুনরুদ্ধার করা, যা ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির উপর তীক্ষè নিষেধাজ্ঞার বিনিময়ে বেশিরভাগ নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে।
২০১৮ সালে, সংযুক্ত আরব আমিরাত জেসিপ্রিএ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছিল এ যুক্তিতে যে, চুক্তিটি ইরানকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র বিকাশ চালিয়ে যেতে এবং ইয়েমেনের হুথি এবং লেবাননের হিজবুল্লাহসহ তার আঞ্চলিক প্রক্সি গ্রুপগুলোকে অর্থায়ন করতে দেয়। প্রেসিডেন্ট জো বিডেনের অধীনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চুক্তিতে ফিরে আসার জন্য সব পক্ষকে চাপ দিয়েছে এবং ইরানের জন্য বিশেষ দূত রব ম্যালি আঞ্চলিক অংশীদারদের আশ্বস্ত করতে সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ সফর করেছেন যে, বাইডেন প্রশাসন দর কষাকষির মাধ্যমে আঞ্চলিক নিরাপত্তায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সূত্র : ন্যাশনাল ইন্টারেস্ট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইরান-আরব
আরও পড়ুন