Inqilab Logo

রোববার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৯ মাঘ ১৪২৮, ১৯ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

বুধবার জার্মান চ্যান্সেলর হিসেবে শপথ নেবেন শলৎস

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:২৩ পিএম

দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান ঘটিয়ে ১৬ বছর পর জার্মানিতে রাজনৈতিক পালাবদল হচ্ছে। ম্যার্কেল জমানার অবসান ঘটিয়ে চ্যান্সেলর হচ্ছেন ওলাফ শলৎস। করোনা সংকটসহ একাধিক চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে চায় নতুন জোট।

সপ্তাহান্তে এসপিডি ও এফডিপি দল নতুন জোট গড়ার লক্ষ্যে কোয়ালিশন চুক্তি অনুমোদন করেছে। সোমবার সবুজ দলও ভোটাভুটির মাধ্যমে সেই আনুষ্ঠানিকতা সেরে ফেলছে। ফলে তিন দলের ‘ট্রাফিক লাইট কোয়ালিশন' বুধবারই ক্ষমতা গ্রহণের প্রস্তুতি নিচ্ছে। সে দিন জার্মান সংসদের নিম্ন কক্ষ বুন্ডেসটাগ এসপিডি নেতা ওলাফ শলৎসকে চ্যান্সেলর হিসেবে নির্বাচিত করবে। নতুন মন্ত্রিসভাও সে দিন শপথ নিতে পারে। তার আগে মঙ্গলবার তিন দল ১৭৭ পাতার কোয়ালিশন চুক্তি স্বাক্ষর করবে। বুধবার শপথ গ্রহণ করে শলৎস বৃহস্পতিবারই সংসদে চ্যান্সেলর হিসেবে প্রথম ভাষণ দিতে পারেন। প্রথা অনুযায়ী সরকারের প্রাথমিক পদক্ষেপ সম্পর্কে বিবৃতিও দিতে পারেন তিনি। শুক্রবার শলৎস চ্যান্সেলর হিসেবে তাঁর প্রথম বিদেশ সফরে সম্ভবত প্যারিস যাচ্ছেন।

জার্মানিতে করোনা সংকটের মাঝে রাজনৈতিক পালাবদলকে ঘিরে উচ্ছ্বাস-উদ্দীপনার সুযোগ কম। ক্ষমতায় এসেই নতুন সরকারকে অবিলম্বে সংকট মোকাবিলার কাজে নামতে হবে। বিশেষ করে হাসপাতালের ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিটের উপর বেড়ে চলা চাপের কারণে গোটা গণস্বাস্থ্য পরিষেবা হুমকির মুখে পড়ায় দুশ্চিন্তা বাড়ছে। বিদায়ী সরকারের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে আগামী সরকার ইতোমধ্যেই কিছু পদক্ষেপ চূড়ান্ত করেছে বটে, কিন্তু তাতে কাজ না হলে আরো জোরালো উদ্যোগের সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না শলৎস।

সোমবারই এসপিডি দল মন্ত্রিসভার সদস্যদের নাম ঘোষণা করলে আগামী স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নাম জানা যাবে। বলা বাহুল্য মহামারির মাঝে এই পদটির গুরুত্ব আরো বেড়ে গেছে। শলৎস তাঁর মন্ত্রিসভায় সমান সংখ্যক নারী ও পুরুষ রাখার অঙ্গীকার করায় এসপিডি দলের প্রাপ্য সাতটি মন্ত্রণালয়ের মধ্যে পাঁচটিতেই নারী প্রার্থীর নাম স্থির করতে হবে। এফডিপি ও সবুজ দলের মন্ত্রীদের তালিকা প্রকাশের পর এসপিডি দলকেই সেই ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে।

করোনা সংকট সামলানোর পাশাপাশি কয়েকটি দীর্ঘমেয়াদী চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে চায় নতুন সরকার। শলৎসের নেতৃত্বে তিন দলের জোট পুরোপুরি পুনর্বব্যহারযোগ্য জ্বালানির পথে দ্রত এগোতে চায়। ডিজিটাল প্রযুক্তি প্রয়োগের ক্ষেত্রে জার্মানির বিশাল ঘাটতি দূর করতেও দ্রুত পদক্ষেপ নেবার অঙ্গীকার করেছে এই জোট। তবে তিন দলের স্বার্থের সংঘাত দূরে রেখে শান্তিপূর্ণভাবে সব ঘোষিত উদ্যোগ রূপায়ন করা কঠিন হতে পারে বলে অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করছেন। তবে শলৎস নিজে এই জোটের সাফল্যের ভিত্তিতে আগামী নির্বাচনেও ধারাবাহিকতা বজায় রাখার পক্ষে সওয়াল করেছেন। সূত্র: ডিপিএ, এএফপি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ