Inqilab Logo

শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৮ মাঘ ১৪২৮, ১৮ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

আড়াইহাজারে আগুনে একই পরিবারের ৪ জন দগ্ধ

আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ৮ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০৮ এএম

আড়াইহাজারে একটি বাসায় আগুনে দুই শিশুসহ একই পরিবারের ৪ জন দগ্ধ হয়েছে। দগ্ধদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল সোমবার ভোর ৬টায় উপজেলার দুপ্তরা ইউনিয়নের কুমারপাড়া গ্রামের সোলায়মানের বাসায় এ অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটে। দগ্ধরা হলেন বাড়ির মালিক কাপড় ব্যবসায়ী সোলায়মান হোসেন, তার স্ত্রী রীমা আক্তার ও তাদের সন্তান মুশফিকুর রহমান মাহিদ ও মাহমুদুল হাসান আরশ।

দগ্ধ রীমা আক্তার জানান, আড়াইহাজারের কুমারপাড়া এলাকায় তাদের বাড়ির নিচ এক তলায় তার স্বামী সোলায়মান কাপড়ের ব্যবসা করেন। ছেলে মাহিদ একটি স্কুলে পড়ে। আর ছোট ছেলে আরশ এখনও স্কুলে ভর্তি হয়নি। ভোরে তার স্বামী সোলায়মান ব্যবসার কাজে বাইরে যাওয়ার কথা। ভোরের রান্না ঘরে যায় পানি গরম করার জন্য দিয়াশলাই দিয়ে আগুন ধরাতেই একটি বিকট শব্দে ঘরে আগুন লেগে যায়। এরপরে সেই আগুনে তারা দগ্ধ হয়।
দগ্ধ মাহিদের চাচি হাওয়া বেগম জানান, তারা একই বাড়িতে থাকেন। ভোরে বিকট বিস্ফোরণে ও তাদের চিৎকারে ঘুম ভেঙে যায়। মাহিদের ঘরে গিয়ে দেখি দগ্ধ হয়ে পড়ে আছে ওরা ৪ জন। পরে দ্রুত তাদের বার্ন ইনস্টিটিউটে প্রেরণ করা হয়।
বার্ন ইনস্টিটিউটের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানান, দগ্ধ সোলায়মানের অবস্থা আশঙ্কা জনক। বাকীদের অবস্থা কিছুটা ভালো। সোলায়মানের চাচা কাইয়ুম জানান, সিলেন্ডারের পাইপ লিকেজ থেকে আগুল লেগে বিস্ফোরণ ঘটেছে। পরে সেই আগুনে তারা দগ্ধ হন। সোলায়মানের চাচাতো ভাই ইউনুস জানান, ভোর রাতে গ্যাস সিলিন্ডারের পাইপে লিকেজ হয়ে একতলা বাসায় জমে থাকা গ্যাস থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে।
আড়াইহাজারের ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ শাহজাহান জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে গ্যাস সিলেন্ডার বা লিকেজ থেকে এই আগুনের সুত্রপাত হয়। তবে তদন্ত সাপেক্ষ বিন্তারিত বলা যাবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আগুনে ৪ জন দগ্ধ
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ