Inqilab Logo

শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৮ মাঘ ১৪২৮, ১৮ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

ইরান সফরে গেলেন আমিরাতের শীর্ষ নিরাপত্তা উপদেষ্টা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:০৭ পিএম

সংযুক্ত আরব আমিরাতের শীর্ষ জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা শেখ তাহনুন বিন জায়েদ আল নাহিয়ান উচ্চ-পর্যায়ের আলোচনার জন্য ইরান সফরে রয়েছেন যা দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক গলানোর সম্ভাব্য লক্ষণ হিসাবে দেখা হচ্ছে।

দেশটির ডি ফ্যাক্টো শাসক এবং আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদের ভাই শেখ তাহনুন সোমবার ইরানের রাজধানী তেহরানে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এবং আঞ্চলিক বিষয়ে উন্নয়নের বিষয়ে আলোচনা করেছেন। ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির সঙ্গে সাক্ষাতের আগে তিনি প্রথমে ইরানের সুপ্রিম ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের (এসএনএসসি) সচিব আলী শামখানির সঙ্গে দেখা করেন।

বৈঠকের পরে দেয়া বিবৃতি অনুসারে, শামখানি বলেছেন যে প্রতিবেশীদের সাথে ‘উষ্ণ ও বন্ধুত্বপূর্ণ’ সম্পর্ক গড়ে তোলা ইরানের পররাষ্ট্রনীতিতে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার। নিরাপত্তা প্রধান জোর দিয়ে বলেন, এই অঞ্চলের দেশগুলোকে বহিরাগত প্রভাব এবং হস্তক্ষেপ দ্বারা প্রভাবিত করা উচিত নয় এবং সামরিক পদক্ষেপ নয় বরং আলোচনার মাধ্যমে সামরিক ও নিরাপত্তা সঙ্কটের অবসান ঘটাতে কাজ করতে হবে। শামখানি আশা করেছিলেন যে শেখ তাহনুনের সফর ‘সম্পর্কের একটি নতুন অধ্যায়ের সূচনা করবে এবং সমস্ত সম্পর্ক সম্প্রসারণের ভিত্তি তৈরি করবে’।

সংযুক্ত আরব আমিরাত একটি সউদী নেতৃত্বাধীন জোটের অংশ যা ইয়েমেনে ইরান-সমর্থিত হুথি বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করছে। ইরান ও সউদী আরব এপ্রিল থেকে বাগদাদে ইরাকের মধ্যস্থতায় চার দফা আলোচনা করেছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বৈঠকের ফাঁকে দুই ধেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীও মিলিত হয়েছিলেন কিন্তু আর কোনো আলোচনার ঘোষণা দেয়া হয়নি।

শামখানির সাথে সোমবারের বৈঠকের সময়, শেখ তাহনুন বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত একটি ভূ-রাজনৈতিক শক্তি হিসাবে ইরানের সাথে ‘উষ্ণ ও ভ্রাতৃত্বপূর্ণ’ সম্পর্ক উন্নত করতে চায়। তিনি প্রস্তাব করেন যে, দুই দেশের বিশেষজ্ঞ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করা উচিত যারা অর্থনৈতিক, ট্রানজিট, জ্বালানি এবং স্বাস্থ্য খাতের সম্পর্ক বাড়ানোর সম্ভাব্য ক্ষেত্রগুলো এবং সম্ভাব্য বাধাগুলো চিহ্নিত করবে। সূত্র: আল-জাজিরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আরব আমিরাত-ইরান
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ