Inqilab Logo

শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৭ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ধর্মের নামে সহিংসতা বরদাস্ত করা হবে না: ইমরান খান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ ডিসেম্বর, ২০২১, ৫:৩৪ পিএম

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান মঙ্গলবার হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ‘অন্যদের উপর অবিচার করার জন্য যারা ইসলাম বা পবিত্র নবীর (সাঃ) নাম ব্যবহার করে তাদের কাউকে রেহাই দেয়া হবে না। কারণ জাতি দ্ব্যর্থহীনভাবে সহিংসতার নিন্দা করেছে।’ তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, শিয়ালকোটের মতো ঘটনা আর ঘটতে দেয়া হবে না।

গত সপ্তাহে শিয়ালকোটে জনতার পিটুনিতে মারা যাওয়া শ্রীলঙ্কার নাগরিক প্রিয়ন্তা কুমারার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একটি শোক রেফারেন্সে ভাষণ দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী ধর্মের নামে সহিংসতা ও চরমপন্থার বিরুদ্ধে কথা বলেছেন এবং যারা অন্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে তাদের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন। একই সঙ্গে কুমারের স্মরণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ইমরান খান বলেন, ‘আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, এখন থেকে যারা ধর্মের নামে, বিশেষ করে মহানবী (সাঃ)-এর নামে সহিংসতা চালাচ্ছে তাদের আমরা রেহাই দেব না।’ পাশাপাশি তিনি মালিক আদনানকে সম্মান জানান, যিনি ভিড়ের বিরুদ্ধে একা দাঁড়িয়ে কুমারাকে বাঁচাতে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়েছিলেন।

‘একজন নৈতিক মানুষ একটি সেনাবাহিনী,’ প্রধানমন্ত্রী মালিকের সাহসিকতা বর্ণনা করার জন্য একটি বাক্যাংশ স্মরণ করেছিলেন, যিনি আক্ষরিক অর্থে নিজেকে ভিড়ের কাছে অর্পণ করে কুমারের জীবন বাঁচানোর জন্য কঠোর প্রচেষ্টা করেছিলেন। ‘নৈতিক সাহস শারীরিক শক্তির চেয়ে অনেক উচ্চতর,’ ইমরান বলেন, জাতি মনে রাখবে যে একজন মানুষ একজন মানুষের জীবন রক্ষার জন্য পশুদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিল যদিও সে শিকারকে বাঁচাতে পারেনি।

ইমরান বলেন, নবী (সাঃ) শুধুমাত্র মুসলমানদের জন্য নয়, সমস্ত মানুষের জন্য প্রেরিত হয়েছিলেন। মুসলমানরা সমগ্র আরব বিশ্ব জয় করার পর এক দশকে মাত্র ১ হাজার ৪০০ জন মারা গিয়েছিলেন। তিনি যোগ করেছেন যে, ‘মহানবী (সাঃ) একটি বুদ্ধিবৃত্তিক বিপ্লব এনেছিলেন। তার বার্তা ছিল ভালবাসা এবং ঐক্যের। তার বার্তাটি ছিল মানবতা এবং ন্যায়বিচারের উপর ভিত্তি করে কারণ শুধুমাত্র এই দুটি জিনিসই মানুষকে পশুদের থেকে আলাদা করেছে।’ যারা নৈতিক মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধাশীল তারাই সমাজের অধঃপতনের অংশগুলোকে তুলে ধরেন, প্রধানমন্ত্রী বলেন, নবী (সাঃ) এটাই করেছিলেন; তিনি সমাজের দুর্বল অংশের জন্য দায়িত্ব নেন।

পেশোয়ারের আর্মি পাবলিক স্কুলের ঘটনার উল্লেখ করে ইমরান বলেছেন যে ঘটনাটি জাতিকে একত্রিত করেছে এবং পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়ী হয়েছে। ‘পুরো পাকিস্তান এই (শিয়ালকোট) ঘটনার পর সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে তারা এমন ঘটনা আর ঘটতে দেবে না,’ প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন। পরবর্তীকালে, তিনি প্রকাশ করেন, শিয়ালকোটের ব্যবসায়ী সম্প্রদায় তাকে জানিয়েছিল যে তারা ভুক্তভোগী পরিবারের জন্য ১ লাখ মার্কিন ডলারের ব্যবস্থা করেছে এবং নিশ্চিত করবে যে পরিবারটি তাদের বাকি জীবনের জন্য কুমারের বেতন পাবে।

বিশ্বনবী (সাঃ)-কে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ পুরুষদের মধ্যে এক নম্বরে ঘোষণা করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখন সময় এসেছে তরুণদের নবী (সাঃ)-এর জীবন ও শিক্ষার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়ার এবং কেন আল্লাহ তাকে প্রিয় নবী বলেছেন। নবী মুহাম্মাদ (সাঃ) এর জীবন ও শিক্ষা অধ্যয়নের একটি বড় প্রয়োজন ছিল বলে জোর দিয়ে ইমরান একটি উপাখ্যান শেয়ার করেছেন, যেখানে নবী (সাঃ) তার একজন সাহাবীর সাথে কথা বলেননি শুধুমাত্র এই কারণে যে তিনি কালেমা পাঠকারী একজনকে হত্যা করেছিলেন। ‘আপনি কি তার হৃদয় খুলে দেখেছেন যে তিনি সত্য নাকি মিথ্যা বলছেন,’ নবী (সাঃ) সাহাবীকে বলেছিলেন। এই উদ্ধৃতি দিয়ে ইমরান বলেন, এতে বার্তাটি ছিল যে কাউকে অন্য ব্যক্তির বিশ্বাস সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা দেয়া হয়নি।

পাকিস্তানই একমাত্র দেশ, যেটি ইসলামের নামে গড়ে উঠেছিল, তিনি বলেন, জাতির নৈতিকতাকে উন্নীত করার এবং চরমপন্থার বিরুদ্ধে তাদের ঐক্যবদ্ধ করার সময় এসেছে। তিনি আফসোস করেছিলেন যে, বিদেশী পাকিস্তানিরা সবচেয়ে লজ্জিত হয়েছিল কারণ তারা যখন পাকিস্তানে শিয়ালকোট ঘটনা ঘটতে দেখেছিল তখন তারা তাদের দেশবাসীকে কিছু বলতে পারেনি। ‘অমুসলিমরা ইসলাম সম্পর্কে তেমন কিছু জানে না কিন্তু যখন তারা এই ধরনের জিনিস দেখে, তারা ইসলাম থেকে আরও দূরে সরে যায়,’ তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন যে, পাকিস্তানও বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে। মালিকের প্রচেষ্টার প্রশংসা করে, ইমরান বলেছিলেন যে তার কাজটি মানবতার প্রতি জাতির আস্থা পুনরুদ্ধার করেছে যে কেউ কেবল অন্য ব্যক্তিকে বাঁচাতে মরতে ইচ্ছুক।

শিয়ালকোট ট্র্যাজেডিটি পাকিস্তানের মানহানি করার প্রয়াসে ভারতে হাইলাইট করা হয়েছিল, প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেছেন, ভারতীয় মিডিয়া এই ঘটনাটিকে পাকিস্তানে একটি নিয়মিত ঘটনা হিসাবে চিত্রিত করেছে, যা একটি অন্যায্য বিবৃতি ছিল। যতদিন বেঁচে থাকবেন ততদিন এ ধরনের ঘটনা আর ঘটতে দেবেন না বলে অঙ্গীকার করেছেন তিনি। বক্তৃতা শেষ করার আগে তিনি আবারও মালিককে শ্রদ্ধা জানান। তিনি বলেন যে, মালিককে ২৩ মার্চ, ২০২২-এ তমঘা-ই-শুজাত দিয়ে সম্মানিত করা হবে। সূত্র: ট্রিবিউন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইমরান খান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ