Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৬ মাঘ ১৪২৮, ১৬ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

এমন ম্যাচেও লজ্জার হার!

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০৫ এএম

ঘড়ির কাঁটায় আর মাত্র মিনিট বিশেক বাকি, ওভারের হিসেবে ৫.২। আর রান? সেটিও মাত্র ৮। এই সহজ সমীকরণও মেলানো গেল না! বৃষ্টিতে আড়াইদিন ভেস্তে যাওয়ার পরও বিস্ময়কর ব্যাটিং ব্যর্থতায় ম্যাচ বাঁচাতে পারল না বাংলাদেশ। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে রিভিউ নিয়ের বাঁচলেন না তাইজুল ইসলাম। বল ট্র্যাকিং প্রযুক্তি জানালো বাংলাদেশের হতাশার খবর। গতকাল মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট ইনিংস ও ৮ রানে হেরেছে মুমিনুল হকের দল। প্রথম ইনিংসে ৮৭ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে গুটিয়ে যায় ২০৫ রানে। আর মিনিট দশেক টিকতে পারলেই ম্যাচ হয়ে যেত ড্র। কিংবা ৮ রান পেরিয়ে লিড নিতে পারলেও পাকিস্তান পেত না আবার ব্যাট করতে নামার সুযোগ। কারণ ইনিংস বিরতির জন্য যথেষ্ট সময়ই যে ছিল না। অল্পের জন্য হয়নি কিছুই। শেষ বিকেলে বাংলাদেশের সঙ্গী হলো আরেকটি হতাশা।
পাকিস্তানের জয়ের নায়ক অফ স্পিনার সাজিদ। প্রথম ইনিংসে ৮টির পর দ্বিতীয় ইনিংসে তার শিকার ৪ উইকেট। ম্যাচে তিনি ১২৮ রানে নেন ১২ উইকেট, বাংলাদেশের বিপক্ষে যা টেস্টে চতুর্থ সেরা বোলিং। ওয়ানডের পর টেস্ট সিরিজেও হোয়াইটওয়াশড হলো বাংলাদেশ। বাড়ল টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের নতুন চক্রে পয়েন্টের জন্য অপেক্ষা। এক দশক পর দেশের মাটিতে কোনো দলের বিপক্ষে অন্তত দুই সিরিজ খেলে সব ম্যাচে হারল বাংলাদেশ। ২০১১ সালে সবশেষ এই অভিজ্ঞতা হয়েছিল পাকিস্তানের বিপক্ষেই।
আগের চারদিন আকাশ গোমরা থাকলেও এদিন সকাল থেকেই বেশ রোদ ঝলমল। কিন্তু সেই ঝলমলে রোদেও বাংলাদেশ দলে নেমে আসে ঘোর অন্ধকার। ফলোঅনে পড়ে দ্বিতীয় ইনিংসে নেমেই পড়ে যায় ৪ উইকেট। এরপর মুশফিকুর রহিম-লিটন দাসের প্রতিরোধ এবং পরে সাকিব আল হাসানের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ফের মেলে আলোর রেখা। কিন্তু ৬৩ করা সাকিব ফিরে যাওয়ার পরই আর টিকল না বাংলাদেশ। অথচ এই ম্যাচ থেকে ফল বের করা ছিল বেশ কঠিন কাজ। প্রথম ইনিংসে অদ্ভুতুড়ে ব্যাটিং অ্যাপ্রোচে পাকিস্তানকে সেই কঠিন সমীকরণই মিলিয়ে দিয়েছে স্বাগতিকরা। দেখিয়েছে টেস্ট ক্রিকেটে নিজেদের চরম হতশ্রী দশা।
চতুর্থ দিন শেষ সেশনেই হারের পরিস্থিতি তৈরি করে বাংলাদেশ। ৪ উইকেটে ৩০০ রান করে পাকিস্তান ইনিংস ছেড়ে দেওয়ার পর ব্যাট করতে নেমে অদ্ভুত নেশায় পেয়ে বসে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানের। উচ্চবিলাসী শট, ঝুঁকি নিয়ে সিঙ্গেল, বার বার ক্রিজে ছেড়ে বেরিয়ে আসা মিলিয়ে আত্মঘাতী শটের উৎসবে মাতেন তারা। ২৬ ওভার ব্যাট করেই পড়ে যায় ৭ উইকেট। শেষ দিনের সকাল বেলা আগের দিনের ৭ উইকেটে ৭৬ রান নিয়ে নেমে আর ১১ যোগ করেই গুটিয়ে যায় তারা। মিরপুরে নিজেদের সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে পড়ে ফলোঅনে।
দ্বিতীয় ইনিংসে নেমেও সেই একই দশা। টপ অর্ডারের আশা যাওয়ার মিছিলে ২৫ রানেই পড়ে যায় ৪ উইকেট। অভিষিক্ত মাহমুদুল হাসান জয় প্রথম ইনিংসে ফিরেছিলেন শূন্য রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে বাউন্ডারিতে রানের খাতা খুলেন তিনি। তবে চতুর্থ ওভারে তার বিদায়েই ধসের শুরু। প্রথম ইনিংসে বলই পাননি হাসান আলি। এই পেসার দ্বিতীয় ইনিংসে শুরুতেই উইকেট এনে দেন পাকিস্তানকে। হাসানের বলে ফুটওয়ার্কের দুর্বল ব্যবহারে অফ স্টাম্প খোয়ান জয়। ৬ বলে ৬ রানে থামে তার দৌড়।
পরের ওভারেই বিদায় নড়বড়ে সাদমান ইসলামের। শাহীন শাহ আফ্রিদিকে সামলাতে না পারে মাত্র ২ রান করে এলবিডব্লিউ হন তিনি। অধিনায়ক মুমিনুল হক এক চারে শুরুটা করেছিলেন। দলের বিপর্যয়ে তার ব্যাটের দিকেই প্রত্যাশা ছিল চড়া। কিন্তু হাসানের অ্যাঙ্গেল তৈরি করে ভেতরে ঢোকানো বলে এলবিডব্লিউর শিকার তিনিও। ৮ বলে মুমিনুল ফেরেন ৭ রান করে। তিনে নামা নাজমুল হোসেন শান্তকে ছাঁটেন শাহীন। তার লাফানো বল সামলাতে না পারে গালিতে ক্যাচ দেন ৬ রান করা শান্ত। ২৫ রানেই বাংলাদেশ হারিয়ে ফেলে ৪ উইকেট।
চরম কঠিন পরিস্থিতি থেকে দলকে বাঁচাতে জুটি বাধেন মুশফিক-লিটন। প্রথম ইনিংসের পাগলাটে অ্যাপ্রোচ ঝেড়ে তাদের দেখা যায় সতর্ক পথে। ২১তম বলে রানের খাতা খুলেন লিটন। পরে অবশ্য এগিয়েছেন সাবলীল গতিতে। থিতু হতে সময় নেন মুশফিকও। দুজনের জুটিতে বাংলাদেশ বেশ ভালো অবস্থানেই চলে আসছিল। লাঞ্চের পরও তাদের দেখা যায় অনায়াসে খেলতে। এই সিরিজে তৃতীয়বারের মতো ফিফটি পেরুনোর দিকে যাচ্ছিলেন লিটন। সাজিদের বলে বাজে শটে তার বিদায়েই ফের ধাক্কা। অনেক শর্ট বল পুল করে শর্ট স্কয়ার লেগে ক্যাচ দেন ৪৫ করা লিটন। সাকিব ক্রিজে আসতে সেই জায়গা থেকে দৃঢ়তা দেখান মুশফিক। এই দুজনের জুটিও জমে গিয়েছিল। আশা বাড়ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু চা-বিরতির ঠিক আগে অহেতুক সিঙ্গেল নেওয়ার চেষ্টায় কাবু হন মুশফিক। ৪৮ রান করা মুশফিকের বিদায়ে ফের দেখা দেয় শঙ্কা।
চা-বিরতির পর মেহেদী হাসান মিরাজকে নিয়ে ছুটছিলেন সাকিব। আগের ইনিংসের হতাশা ভুলে সাকিবের ব্যাটে মিলছিল আশার ছবি। ফিফটিও পেরিয়ে যান তিনি। অপরপাশে মিরাজ দেখাচ্ছিলেন টিকে থাকার নিবেদন। ৫১ রানের জুটির পর শেষ ঘন্টায় মিরাজের আউটই পাকিস্তানের দিকে ম্যাচ হেলে দেয়। একাদশে মাত্র দুই স্পিনার থাকায় অধিনায়ক বাবর নিজেই বল করতে এসেছিলেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তাকে প্রথম উইকেট উপহার দেন মিরাজ। অযতা সুইপ করতে গিয়ে হয়ে যান এলবিডব্লিউ।
খানিক পর ৬৩ করা সাকিব সাজিদের বলে হয়ে যান বোল্ড। খালেদ আহমেদ আসতেই কাটা পড়েন দ্রুত। তবে শেষ উইকেটে ইবাদতকে নিয়ে লড়াই করছিলেন তাইজুল। ৩৪ বল টিকে ছিলেন তারা। আরও খানিকটা টিকতে পারলে হয়ত গল্পটা হতে পারত ভিন্ন। তা আর হয়নি। আরেকটি হোয়াইটওয়াশ ও আরেকটি ইনিংস হার সঙ্গী হয়েছে বাংলাদেশ দলের।

পাকিস্তান প্রথম ইনিংস : ৩০০/৪ ডিক্লে.। বাংলাদেশ : ৩২ ওভারে ৮৭ (সাদমান ৩, জয় ০, শান্ত ৩০, মুমিনুল ১, মুশফিক ৫, লিটন ৬, সাকিব ৩৩, মিরাজ ০, তাইজুল ০, খালেদ ০, ইবাদত ০*; শাহিন ১/৩, নুমান ০/৩৩, সাজিদ ৮/৪২, বাবর ০/১)। ও দ্বিতীয় ইনিংস (ফলোঅন) : ৮৪.৪ ওভারে ২০৫ (সাদমান ২, জয় ৬, শান্ত ৬, মুমিনুল ৭, মুশফিক ৪৮, লিটন ৪৫, সাকিব ৬৩, মিরাজ ১৪, তাইজুল ৫, খালেদ ০, ইবাদত ০*; শাহীন ২/৩১, হাসান ২/৩৭, নোমান ০/৪১, ফাহিম ০/৪ , সাজিদ ৪/৮৬, বাবর ১/১)। ফল : পাকিস্তান ইনিংস ও ৮ রানে জয়ী। ম্যান অব দ্য ম্যাচ : সাজিদ খান। সিরিজ : দুই ম্যাচের সিরিজে ২-০তে জয়ী পাকিস্তান। ম্যান অব দ্য সিরিজ : আবিদ আলি।



 

Show all comments
  • mamoon ৯ ডিসেম্বর, ২০২১, ১:০৮ পিএম says : 0
    bondo houk ei cricket, komano houk eder beton vata, e tai punishment, jara afganistaner test hare shame
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এমন ম্যাচেও লজ্জার হার

৯ ডিসেম্বর, ২০২১
আরও পড়ুন