Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২২ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

জনস্বার্থে নয় ডলারের জন্য আফগান যুদ্ধে যোগদান

‘আত্মপ্ররোচিত ক্ষত’ ওআইসি সম্মেলন পর্যালোচনাকালে ইমরান খান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০১ এএম

আফগানিস্তানে আমেরিকার ২০ বছরব্যাপী ‘সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে’ পাকিস্তানের অংশগ্রহণের সিদ্ধান্তের বিষয়ে দুঃখ প্রকাশ করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান গতকাল মঙ্গলবার বলেছেন, এটি জনস্বার্থে নয় বরং ‘ডলারের জন্য’ করা হয়েছে।

আফগানিস্তানের মানবিক সঙ্কট মোকাবেলায় গত রোববার অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের কাউন্সিলের ১৭তম অসাধারণ অধিবেশন ‘সফলভাবে’ আয়োজন করার পর পররাষ্ট্র দফতরের (এফও) কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন যে, তিনি খুব কাছাকাছি ছিলেন। পাকিস্তানকে ‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে’ যোগ দিতে হবে কিনা তা সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় সিদ্ধান্ত গ্রহণকারীদের কাছে ফিরে আসে। ‘এবং তাই, সিদ্ধান্তের পেছনে কী বিবেচনা ছিল তা আমি ভাল করেই জানি। দুর্ভাগ্যবশত, পাকিস্তানের জনগণের কথা বিবেচনা করেনি’, তিনি যোগ করেছেন। তিনি সোভিয়েত-আফগান যুদ্ধের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘পরিবর্তে বিবেচনাগুলো ১৯৮০-এর দশকের মতোই ছিল, যখন আমরা আফগান জিহাদে অংশ নিয়েছিলাম’।

যুদ্ধকে ‘পাকিস্তানের জন্য আত্মপ্ররোচিত ক্ষত’ হিসাবে অভিহিত করে প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেন, তবে, ‘এ সিদ্ধান্তের জন্য আমরা অন্য কাউকে দোষ দিতে পারি না’। ‘আমরা নিজেরাই দায়ী... যেহেতু আমরা [অন্যদের] আমাদের ব্যবহার করতে দিয়েছি, সাহায্যের জন্য আমাদের দেশের সুনাম ত্যাগ করেছি এবং একটি বৈদেশিক নীতি তৈরি করেছি যা অর্থের জন্য জনস্বার্থের বিরুদ্ধে যায়’।
‘পাকিস্তানের ভাবমর্যাদা উন্নত হয়েছে’ : তার বক্তৃতার শুরুতে প্রধানমন্ত্রী গত সপ্তাহে আফগানিস্তানে ওআইসি অধিবেশন একটি প্রশংসনীয় উপায়ে আয়োজন করার জন্য পররাষ্ট্র দফতরকে অভিনন্দন ও প্রশংসা করে বলেন, শীর্ষ সম্মেলনের প্রতিক্রিয়া দেখায় যে, বিশ্বব্যাপী পাকিস্তানের ভাবমর্যাদা উন্নত হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, পররাষ্ট্র দফতর দীর্ঘদিন পর এত বড় একটি শীর্ষ সম্মেলন আয়োজন করেছে। তিনি এর প্রশংসা করেন এবং বলেন যে, এটি আইন প্রয়োগকারী সংস্থার উল্লেখযোগ্য অবদানের সাথে ‘টিমওয়ার্ক’-এর ফলাফল।
৫৭টি ইসলামিক দেশের রাষ্ট্রদূত এবং পর্যবেক্ষক প্রতিনিধি দল গত সপ্তাহের সম্মেলনে অংশ নিয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সামিটে উপস্থিতি এবং [মুটে] পাকিস্তানের অবস্থানের প্রশংসা প্রতিফলিত করে যে, দেশের ভাবমর্যাদা উন্নত হয়েছে, আমরা সম্মেলন আয়োজনের পেছনের উদ্দেশ্য অর্জন করেছি’।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেছেন, আফগান পরিস্থিতি নিয়ে মুসলিম দেশগুলোর অবস্থান এখন ‘সর্বজনীন’। ‘ইউরোপীয়দের বিবৃতি দেখুন, তারা আমাদের সাথে দাঁড়িয়েছে এবং জাতিসংঘেরও স্পষ্ট অবস্থান রয়েছে’। তিনি ‘পাকিস্তানের ভাবমর্যাদা উন্নতির’ জন্য তার সরকারকেও কৃতিত্ব দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন: ‘আমরা পাকিস্তানের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আর্থিক সঙ্কটের মুখোমুখি হয়েছি। আমি মনে করি না যে, অন্য কোনো সরকারকে এত বিস্তৃত আর্থিক এবং চলতি অ্যাকাউন্টের ঘাটতি দেয়া হয়েছিল এবং তারপরে করোনা [ভাইরাস মহামারি] ছিল। তবুও, যদি আপনি তিন বছর আগের পাকিস্তানের সাথে আজ [বিশ্বব্যাপী] আজকের পাকিস্তান নিয়ে একটি সমীক্ষা চালান তাহলে দেখবেন দেশের ভাবমর্যাদা উন্নত হয়েছে’।
‘মানব পর্যায়ে বড় নৃশংসতা’ : আফগানিস্তানের পরিস্থিতি সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘এটি মানবিক স্তরে একটি বড় নৃশংসতা যে, যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশে একটি মানবসৃষ্ট সঙ্কট তৈরি করা হচ্ছে’। ‘এমনকি যখন এটা জানা যায় যে, আফগানিস্তানের অ্যাকাউন্টগুলো উন্মুক্ত করে দেয়া এবং [দেশের ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থায়] তারল্য প্রবেশ করানো] সঙ্কট এড়াবে’।

প্রধানমন্ত্রী বলেন যে, শুধু পাকিস্তানের প্রতিবেশী বলেই নয়, আফগানিস্তানের পরিস্থিতি মোকাবেলা করা গুরুত্বপূর্ণ, কারণ, ‘সর্বোপরি দেশটি একটি মানবিক সঙ্কটের মুখোমুখি হয়েছে’।
তিনি বলেন, ‘তালেবানরা কাবুল দখল করলে আমরা প্রথম দিন ১৫ আগস্ট থেকে বলে আসছি যে, আপনি তালেবান সরকারকে পছন্দ করেন বা না করেন, ৪০ মিলিয়ন মানুষের জীবন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে রয়েছে’।
প্রধানমন্ত্রী যোগ করেছেন যে, পাকিস্তান এই কঠিন সময়ে আফগানিস্তানকে সহায়তা প্রদান অব্যাহত রাখবে। তিনি বলেন, ‘সময়’ সংক্ষিপ্ত এবং আমাদের অবশ্যই আফগানিস্তানকে দ্রুত সহায়তা প্রদান করতে হবে’। সূত্র : ডন অনলাইন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আফগানিস্তান

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ