Inqilab Logo

বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ০২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৮ মুহাররম ১৪৪৪

পোষ্য কোটা

মাজহারুল ইসলাম শামীম | প্রকাশের সময় : ২৩ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০২ এএম

কোটা সংস্কার আন্দোলনের মাধ্যমে একটি ধারণা বিশেষভাবে প্রচারিত হয়েছে যে, কোটা পদ্ধতির নিয়োগের ফলে সরকারি চাকরিতে মেধাহীনরা ঢুকে পড়ছে। ফলে প্রশাসন মেধাশূন্য হয়ে পড়ছে। বিশেষ করে প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ, বাংলাদেশ রেলওয়েসহ যেসব চাকরিতে পোষ্য কোটা রয়েছে। আসলে এই কোটার কোনো যৌক্তিকতা খুঁজে পাই না। এই যেন ‘তেলা মাথায় তেল দেয়া’! ধনীকে আরও ধনী বানানো, আর গরিবকে আরও গরিব বানানোর প্রক্রিয়া। এর মাধ্যমে দেশে বৈষম্য বাড়ছে। যে পরিবারে একজন চাকরিজীবী রয়েছে, সেই পরিবার তুলনামূলক স্বচ্ছল। তারপর আবার তাদের কেনো বাড়তি সুবিধা দিতে হবে? এসব কোটা চালু থাকায় গরিব এবং মেধাবী শিক্ষার্থীদের সমাজে মূল্যহীন প্রমাণ করছে। এটা বৈষম্য ছাড়া আর কিছু নয়। প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ, রেলওয়ে নিয়োগসহ সকল নিয়োগ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ক্ষেত্রে পোষ্য কোটা বাতিল হওয়া উচিৎ। আর যদি সুবিধা দিতেই বা হয় তাহলে যুক্তি অনুসারে কৃষক, দিনমজুর, শ্রমিক এই জাতীয় পরিবারের ছেলে-মেয়েকে দেয়া উচিৎ। তাই যেসব চাকরিতে পোষ্য কোটা আছে, সেগুলো বাতিল করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন বলে প্রত্যাশা করছি।

শিক্ষার্থী, ফেনী সরকারি কলেজ।

 

 



 

Show all comments
  • abdul quaium Sheikh ২৩ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:০৪ পিএম says : 0
    শতভাগ সহমত প্রকাশ করছি!
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পোষ্য কোটা

২৩ ডিসেম্বর, ২০২১
আরও পড়ুন