Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

ইয়াসির ঘূর্ণিতে সিরিজ পাকিস্তানের

প্রকাশের সময় : ২৬ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১১:৫৩ পিএম, ২৫ অক্টোবর, ২০১৬

স্পোর্টস ডেস্ক : পিচ থেকে আশানুরূপ সহযোগিতা পাচ্ছিলেন না বোলাররা। তবুও শেষ দিনে মাত্র ৬ উইকেট হাতে নিয়ে ২৮৫ রান পাড়ি দেয়া ছিল অনেকটাই অসম্ভব। ওয়েস্ট ইন্ডিজের জন্য কাজটা আরো কঠিন হয়ে ওঠে ইয়াসির শাহর অসাধারণ বুদ্ধিদীপ্ত বোলিংয়ে। ফলাফল মধ্যাহ্ন বিরতির পর মাত্র এক ঘণ্টা ১৫ মিনিট স্থায়ী হলো ক্যারিবীয়দের ইনিংস। লক্ষ্য তখনও ১৩৩ রান দূরে। মাত্র ১৮ টেস্টের ক্যারিয়ারে অষ্টমবারের মতো পাঁচ উইকেট তুলে নেন ইয়াসির, দ্বিতীয়বারের মতো ১০ উইকেট। এক ম্যাচ হাতে রেখে পাকিস্তানও সিরিজ নিশ্চিত করল ২-০ ব্যবধানে।
আবুধাবিতে ৪ উইকেটে ১৭১ রান নিয়ে শেষ দিন শুরু করেন রস্টন চেইজ ও জার্মেইন বø্যাকউড। সকালের সেশনেই তিন উইকেট তুলে নেন ইয়াসিরÑ দশম ওভারে চেইজ, দ্বিতীয় নতুন বলে বø্যাকউড, এরপর অধিনায়ক জেসন হোল্ডার। ফেরার আগে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় অর্ধশতককে পূর্ণ শতকে রূপ দিতে মাত্র ৫ রানের দরকার ছিল বø্যাকউডের। অষ্টম উইকেটে উইকেটরক্ষক শাই হোপ ও দেবেন্দ্র বিশুর ৪৫ রানের জুটি কেবল পাকদের জয়কেই বিলম্বিত করে। জুলফিকার বাবরের বলে ব্যক্তিগত ৪১ রানে হোপ ফেরার সাথে সাথে ক্যারিবীয়দের সকল আশাই নিভে যায়। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশুকেও ফেরান জুলফিকার। মিড উইকেটে তার আকাশচুম্বী ক্যাচ তালুবন্দি করেন অধিনায়ক মিজবাহ-উল হক। উইন্ডিজের স্কোর বোর্ডে তখন ৩২২ রান বলছে এটাই সংযুক্ত আরব আমিরাতের মরুর বুকে চতুর্থ ইনিংসে করা সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ। তা হলে কি হবে, জয় যে তখনও ১৩৩ রান দূরে! প্রথম ইনিংসে ৮৬ রানে ৪ উইকেট নেয়া ইয়াসির এবার নিলেন ১২৪ রানে ৬টি। শেষ দিনে পাকিস্তানের ৪৬ ওভারের ২১ ওভারই ছিল ডান-হাতি এই লেগ স্পিনারের।
দিনটা মিজবাহর জন্যও ছিল বিশেষ। অধিনায়ক হিসেবে এটি তার ৪৮তম ম্যাচ। একই সংখ্যক টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে এত দিন ইমরান খান ছিলেন পাকিস্তানকে সর্বোচ্চ টেস্টে নেতৃত্ব দেয়ার আসনে। সাবেক তারকার কীর্তি সিরিজ জয় দিয়েই স্পর্শ করলেন বর্তমান টেস্ট তারকা। ইমরানকে ছাড়িয়ে যাওয়ার হাতছানি নিয়ে আগামী ৩০ অক্টোবর সিরিজের শেষ টেস্টে নেতৃত্ব দেবেন মিজবাহ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর : পাকিস্তান : ৪৫২ (ইউনুস ১২৭, মিজবাহ ৯৬, গ্যাব্রিয়েল ৫/৯৬) ও ২২৭/ ২ ডি. (আজহার ৭৯, শফিক ৫৮*, আসলাম ৫০)। উইন্ডিজ : ২২৪ (ব্রাভো ৪৩, ইয়াসির ৪/৮৬, রাহাত ৩/৪৫) ও ৩২২ (বø্যাকউড ৯৫, বেথওয়েট ৬৭, ইয়াসির ৬/১২৪)। ফল : পাকিস্তান ১৩৩ রানে জয়ী। ম্যাচ সেরা : ইয়াসির শাহ।
সিরিজ : ৩ ম্যাচ সিরিজে পাকিস্তান ২-০ তে এগিয়ে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইয়াসির ঘূর্ণিতে সিরিজ পাকিস্তানের
আরও পড়ুন