Inqilab Logo

শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

মার্কিন বিচারকরা নাগরিক অধিকারের প্রতিকূল

যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশি বর্বরতার পক্ষে প্রশাসন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:১২ এএম

যুক্তরাষ্ট্রে গেল ১৫ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের আপিল বিভাগ ‘ফিফ্থ সার্কিট’ টিম টিম্পাস বনাম ডিলার্ড মামলায় ট্রায়াল কোর্টের সিদ্ধান্তকে উল্টে দিয়ে বলেছে, অফিসাররা চতুর্থ সংশোধনী লঙ্ঘন করেছে এবং যখন তারা ‘সংযত এবং পরাধীন’ কারো ওপর বল প্রয়োগ করেছে, তখন তারা যোগ্য কোয়ালিফাইড ইমিউনিটির যোগ্য নয়। যদিও টিম্পাসরা পুলিশী বর্বরতার বিরুদ্ধে তাদের মামলাটি এখনো জিততে পারেননি, তারা শুধুমাত্র বিচারে চাওয়ার অধিকার জিতেছেন, তারপরেও, মার্কিন আপিল বিভাগের এ সিদ্ধান্ত দেশটির বর্বর পুলিশ বিভাগের বিরুদ্ধে টিম্পাসদের ন্যায়বিচারের একমাত্র আশা হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

২০২০ সালের জুলাইয়ে, কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডকে ডেরেক চউভিন প্রায় একই কায়দায় হত্যা করার মাত্র পাঁচ সপ্তাহ পর টিম্পার পরিবার মামলা করে। তবে, টিম্পা বনাম ডিলার্ডের শুনানিকারী টেক্সাসের একজন বিচারক টিম্পার হত্যাকারী কর্মকর্তাদের ‘কোয়ালিফাইড ইমিউনিটি’ প্রদান করেন। কোয়ালিফাইড ইমিউনিটি হ’ল পুলিশ এবং অন্যান্য সরকারী কর্মকর্তাদের নাগরিক দায়বদ্ধতার বিরুদ্ধে আত্মরক্ষার আইন, এমনকি যদি তারা সংবিধানও লঙ্ঘন করে থাকে এবং ‘স্পষ্টভাবে প্রতিষ্ঠিত’ আইন লঙ্ঘন না করে থাকে।

এই মামলায় একজন গ্র্যান্ড জুরি তিনজন অফিসারকে অভিযুক্ত করলেও, ডালাস জেলা অ্যাটর্নি অভিযোগগুলি থেকে তাদের অব্যাহতি দেন। ডালাস পুলিশ বিভাগ টিম্পাসের হত্যাকারীদের শুধুমাত্র একটি লিখিত তিরস্কার পত্র দিয়ে আবার কাজে ফেরত পাঠিয়েছে। এবং বিচারকরা নাগরিক অধিকারের মামলায় বাদীদের প্রতি কুখ্যাতভাবে প্রতিক‚ল। কিন্তু ফিফ্থ সার্কিটের সিদ্ধান্ত টিম্পাস এবং সংবিধানের জন্য সঠিক দিক নির্দেশনার পথে একটি পদক্ষেপ।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের অগাস্টে সাহায্য চাইতে ডালাস পুলিশকে ফোন করেছিলেন শ্বেতাঙ্গ টিম্পা। তিনি উদ্বেগ এবং সিজোফ্রেনিয়ার জন্য যে ওষুধ সেবন করতেন, তখন তা বন্ধ ছিল বলে তিনি পুলিশ প্রেরণকারী কর্মকর্তাকে জানিয়েছিলেন। কিন্তু যখন পাঁচজন ডালাস পুলিশ অফিসার রাস্তার পাশে টিম্পার অবস্থানে এসে পৌঁছায়, তারা তাকে তার প্রয়োজনীয় সাহায্য দেয়নি। পরিবর্তে, তারা তাকে পিঠের পিছনে হাতকড়া পরিয়ে দেয়, তার পা বেঁধে দেয় এবং অফিসার ডাস্টিন ডিলার্ড শরীরের ওজন নিয়ে টিম্পার পিঠে হাঁটু দিয়ে ভর করে।

পুলিশের বডি ক্যামেরার রেকর্ড থেকে জানা যায় যে, টিম্পা সাহায্যের জন্য কান্নাকাটি করছিল, তাকে বারবার আকুতি জানাচ্ছিল যে, ‘তুমি আমাকে মেরে ফেলবে!’ অফিসার ডিলার্ডের হাঁটুর নিচে নয় মিনিট পর টিম্পা নড়াচড়া বন্ধ হয়ে যায়। পরে, ঘটনাস্থলেই তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। ডিলার্ড ৩২ বছর বয়সী টনি টিম্পার ঘাড়ে ১৪ মিনিট হাঁটু গেড়ে বসে থাকার কারণে মারা তিনি। সূত্র: ইউএসএ টুডে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: যুক্তরাষ্ট্রের


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ