Inqilab Logo

রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

পুতিন-এরদোগান ফোনালাপ, যে কথা হলো

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩ জানুয়ারি, ২০২২, ৩:৫৬ পিএম

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে রোববার টেলিফোনে আলাপ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেপ এরদোগান। দেশ দুটির প্রেসিডেন্ট ভবন থেকে পাঠানো বিবৃতিতে রোববার এ তথ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এবং দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদার করতে দুই নেতার ওই ফোনালাপ। তাদের আলাপে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর কর্যক্রমও স্থান পায়। ইউক্রেন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রকে শতর্ক করারও বিষয়েও আলোচনা হয়। দুই নেতা ককেসাস অঞ্চল, সিরিয়া ও লিবিয়ার পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা করেন। ককেসিয় দেশ আর্মেনিয়ার সঙ্গে রাশিয়ায় বৈঠক হবে তুরস্কের।

পুতিন এবং এরদোগান ‘নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন এবং দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার মূল ফলাফলের সংক্ষিপ্তসার করেছেন এবং রাশিয়া ও তুরস্কের মধ্যে পারস্পরিক উপকারী অংশীদারিত্বকে আরও জোরদার করার ইচ্ছার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন,’ ক্রেমলিন নেতাদের ফোন কল সম্পর্কে এক বিবৃতিতে বলেছে।

তুরস্ক এবং রাশিয়া সিরিয়ার প্রতিদ্বন্দ্বিতা, লিবিয়া এবং নাগর্নো-কারাবাখের সংঘাত সত্ত্বেও জ্বালানি, পর্যটন এবং প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা তৈরি করেছে, যেখানে দুটি আঞ্চলিক শক্তি বিরোধী পক্ষও রয়েছে। ন্যাটো সদস্য তুরস্ক ২০১৯ সালে রাশিয়ান এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনেছে, যার কারণে তুরস্কের প্রতিরক্ষা শিল্পের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে এবং আরও রাশিয়ান সরঞ্জাম কিনলে ওয়াশিংটনের কাছ থেকে আরও ব্যবস্থা নেওয়ার সতর্কতা রয়েছে৷

তুরস্ক, ন্যাটোর বাকি অংশের সাথে, মস্কোর ২০১৪ সালের ক্রিমিয়াকে সংযুক্ত করার সমালোচনা করেছে এবং ইউক্রেনের আঞ্চলিক অখণ্ডতার জন্য সমর্থন জানিয়েছে কারণ কিয়েভের বাহিনী পূর্ব ইউক্রেনে রাশিয়াপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সাথে লড়াই করছে। গত মাসে, পুতিন মস্কোপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সাথে তুর্কি-নির্মিত ড্রোন মোতায়েন করার জন্য কিয়েভের সমালোচনা করেছিলেন।

আঙ্কারা বলেছে যে, ইউক্রেনের তুর্কি তৈরি ড্রোন ব্যবহারের জন্য তুরস্ককে দোষারোপ করা যায় না। তারা যোগ করেছে যে, যদি কোনও রাষ্ট্র তুর্কি অস্ত্র কেনে তবে এটি আর তুর্কি পণ্য নয় তবে যে দেশের এটি কিনেছে তার অন্তর্গত।

তুরস্ক বলেছে যে আঙ্কারা এই অঞ্চলে উত্তেজনা বন্ধ করতে মস্কো এবং কিয়েভের মধ্যে মধ্যস্থতা করতে পারে। ‘এটি আমাদের আশা যে এই অঞ্চলটি যুদ্ধের আধিপত্য অঞ্চলে পরিণত হবে না,’ এরদোগান নভেম্বরে উল্লেখ করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘এই অঞ্চলটিকে ভবিষ্যতে শান্তির আধিপত্য অঞ্চল হিসাবে চলতে দিন।’

এর প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায়, ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ মস্কোতে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় আঙ্কারার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে বলেছিলেন, ‘সত্যিটি হল যে রাশিয়া ডনবাসের সংঘাতের একটি পক্ষ নয়, এই ধরনের সমস্যাটির সমাধান খুঁজে পাওয়া অসম্ভব হবে।’ অন্যদিকে, ইউক্রেন এরদোগানের বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়েছে। সূত্র: ডেইলি সাবাহ।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফোনালাপ


আরও
আরও পড়ুন