Inqilab Logo

রোববার, ২২ মে ২০২২, ০৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২০ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

বিচার করা হবে বিচারপতি খায়রুল হকের

গণতন্ত্র হত্যা দিবস হিসেবে মানববন্ধনে মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০০ এএম

আগামীতে দেশে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা হলে বিচারপতি খায়রুল হকের বিচার করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিধান বাতিল করে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করায় ২০১৪ সালের নির্বাচন আমরা বর্জন করেছিলাম। এর নায়ক ছিলেন কে? তৎকালীন প্রধান বিচারপতি বিচারপতি খায়রুল হক (এবিএম খায়রুল হক)। যদি ভবিষ্যতে কোনোদিন সত্যিকার অর্থে জনগণের সরকার, গণতন্ত্রের সরকার আসে তাহলে বিচারপতি খায়রুল হকেরও বিচার হবে গণতন্ত্র, বাংলাদেশের সংবিধানকে ধবংস করার জন্য, মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নেয়ার জন্য। গতকাল বুধবার ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপির উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের আন্দোনের পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৯৬ সালের ২৬ মার্চ খালেদা জিয়ার সরকার নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ব্যবস্থা চালু করতে সংবিধান এয়োদশ সংশোধনী পাস করেন। এই সরকারের অধীনে তিনটি জাতীয় নির্বাচন হয়। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর ২০১১ সালে ৩০ জুন নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে দলীয় সরকারের অধিনে নির্বাচনের পঞ্চদশ সংশোধনী পাস করা হয়। ওই সংশোধনীর পর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় যে, নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট ছাড়া সকল রাজনৈতিক দলই বর্জন করে। এই নির্বাচন যে শুধুমাত্র একটি দলকে ক্ষমতায় নিয়ে আসার জন্য পাতানো ছিল এজন্য ভোটাররাও সেদিন ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হননি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় এসেছে জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করে ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে সকলকে দূর্বার আন্দোলনের জন্য সর্বাত্মক প্রস্তুতি নেওয়ার আহবান জানান বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, আমাদের সামনে কঠিন পথ, বন্ধুর পথ। এই পথ আমাদেরকে পাড়ি দিতে হবে অত্যন্ত সুশৃঙ্খলতার মধ্য দিয়ে। ঐক্যবদ্ধভাবে পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে শক্তিশালী ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। মির্জা ফখরুল বলেন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তরুন নেতা তারেক রহমানের দূরদৃষ্টি সম্পন্ন নেতৃত্বের মাধ্যমে আজকে সমগ্র বাংলাদেশে জাতীয়তাবাদী শক্তি ও বিএনপি সংগঠিত হচ্ছে। জনগণের উত্তাল তরঙ্গের মধ্য দিয়ে, দুর্বার আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই সরকারের পতন ঘটানো হবে।

মানববন্ধনে বিএনপি মহাসচিব সরকারকে হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, উন্নত চিকিৎসার অভাবে খালেদা জিয়ার কোনো দূর্ঘটনা ঘটলে সরকারের প্রত্যেককেই হত্যা মামলার আসামী করা হবে। তিনি বলেন, তারা (সরকার) জেনে শুনেই পূর্বপরিকল্পিতভাবে একটা হত্যার ষড়যন্ত্র করছে। তারা দেশনেত্রীকে হত্যা করতে চায়। দেশের মানুষ যখন দল মতনির্বিশেষে চাচ্ছে তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হোক বলছে, তখনই শেখ হাসিনার সরকার এবং শেখ হাসিনা তারা অত্যন্ত ভয়াবহভাবে, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাকে (খালেদা জিয়া) বিদেশে চিকিৎসার জন্য যেতে দিচ্ছে না। খালেদা জিয়াকে সুচিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠাতে চলমান আন্দোলনকে আরো জোরদার করতে ‘দূর্বার আন্দোলন’ গড়ে তুলতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান বিএনপি মহাসচিব।

সকাল ১০টায় শুরু হওয়া এই কর্মসূচিতে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী উপস্থিত হলে মানববন্ধন সমাবেশে রুপ নেয়। এই সমাবেশে জায়গায় বসা নিয়ে স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্র দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনাও কয়েকদফা হয়। এ নিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। পরে নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

মহানগর উত্তরের আহবায়ক আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে ও উত্তরের সদস্য সচিব আমিনুল হকের পরিচালনায় মানববন্ধনে মহানগর দক্ষিণের আহবায়ক চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা খায়রুল কবির খোকন, এবিএম মোশাররফ হোসেন, মীর সরফত আলী সপু, আজিজুল বারী হেলাল, নাজিম উদ্দিন আলম,শামীমুর রহমান শামীম, কাজী রওনকুল ইসলাম টিপু, যুবদলের মোরতাজুল করীম বাদরু, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, মহানগর বিএনপির নবী উল্লাহ নবী, ফেরদৌসী আহমেদ মিষ্টি, শ্রমিক দলের মোস্তাফিজুল করীম মজুমদার, জাসাসের জাকির হোসেন রোকন, মতস্যজীবী দলের আবদুর রহিম, উলামা দলের নজরুল ইসলাম তালুকদার, ছাত্রদলের ইকবাল হোসেন শ্যামলসহ মহানগর ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।#



 

Show all comments
  • মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ৬ জানুয়ারি, ২০২২, ২:৫০ পিএম says : 0
    আল্লাহর দোহাই জলদি করে সংগ্রাম আরম্ভ করেন,আর কতে দিন বসে থাকবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মির্জা ফখরুল


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ