Inqilab Logo

বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

রাশিয়ার দাবি প্রত্যাখ্যান যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০০ এএম

ন্যাটো জোটের অন্তর্ভুক্ত হতে ইচ্ছুক ইউক্রেনে রাশিয়া হামলা চালাতে পারে- এমন আশঙ্কার মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো আর কোন সদস্য গ্রহণ করবে না বলে রাশিয়ার দাবি গত শুক্রবার নাকচ করে দিয়েছে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন এবং ন্যাটোর সেক্রেটারি জেনারেল জেনস স্টলটেনবার্গ বলেছেন, কাকে ব্লকে যোগদানের অনুমতি দেওয়া উচিত তা নিয়ে রাশিয়ার কোনো বক্তব্য নেই এবং তারা ইউক্রেনে আরো যে কোনো সামরিক হস্তক্ষেপের জন্য রাশিয়াকে ‘জোরপূর্ণ’ প্রতিক্রিয়ার বিষয়ে সতর্ক করেছে। তাদের মন্তব্য ইউক্রেনের সাথে উত্তেজনা কমানোর জন্য রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের দাবির একটি মূল অংশকে সম্পূর্ণ বরখাস্ত করার সমান। পুতিন চান ইউক্রেনসহ সকল দেশের জন্য ন্যাটো সদস্যপদ পরিকল্পনা বন্ধ করুক। প্রাক্তন সোভিয়েত প্রজাতন্ত্রের অদূর ভবিষ্যতে জোটে যোগদানের সম্ভাবনা নেই, তবে ন্যাটো দেশগুলো এটিকে অস্বীকার করবে না।

ব্লিঙ্কেন এবং স্টলটেনবার্গ ন্যাটো পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের একটি বিশেষ ভার্চুয়াল বৈঠকের পরে আলাদাভাবে কথা বলেছেন। উত্তর আটলান্টিক কাউন্সিলের বৈঠকটি উত্তেজনা কমানোর লক্ষ্যে পরের সপ্তাহে উচ্চ-পর্যায়ের আলোচনার একটি সিরিজের মধ্যে প্রথম।

ব্লিঙ্কেন ওয়াশিংটনে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা আরো রুশ আগ্রাসনের জন্য জোরপূর্বক প্রতিক্রিয়া জানাতে প্রস্তুত, তবে রাশিয়া যদি পছন্দ করে তবে একটি কূটনৈতিক সমাধান এখনও সম্ভব এবং পছন্দনীয়’। তিনি স্পষ্টভাবে রাশিয়ার দাবিকে প্রত্যাখ্যান করেন যে, ন্যাটো শীতল যুদ্ধের অবসানের পরে বেশ কয়েকটি প্রাক্তন সোভিয়েত উপগ্রহের প্রবেশের পরে পূর্ব দিকে সম্প্রসারণ না করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল।

‘ন্যাটো কখনই নতুন সদস্যদের অন্তর্ভুক্ত না করার প্রতিশ্রুতি দেয়নি; এটা পারে না এবং করবে না’- ব্লিঙ্কেন বলেছেন, ইউক্রেনীয় সীমান্তে রাশিয়ার সামরিক পদক্ষেপ থেকে বিভ্রান্ত করার জন্য পুতিন একটি স্ট্রম্যান যুক্তি উত্থাপনের অভিযোগ তুলেছেন।
ব্লিঙ্কেন বলেন, ‘তারা আমাদেরকে ন্যাটো সম্পর্কে একটি বিতর্কে আকৃষ্ট করতে চায় না যে বিষয়টি সামনের দিকে মনোযোগ দেয়, যা ইউক্রেনের প্রতি তাদের আগ্রাসন। আমরা সেই সমস্যা থেকে বিচ্যুত হব না’।

এর আগে ব্রাসেলসে, স্টলটেনবার্গ অনুরূপ মন্তব্য করেন, কারণ মিত্ররা কূটনৈতিক যোগাযোগের জন্য প্রস্তুত যা আগামীকাল সোমবার জেনেভাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়ার মধ্যে শুরু হবে এবং বুধবার ন্যাটো-রাশিয়া কাউন্সিলের বৈঠক এবং বৃহস্পতিবার রাশিয়ার সাথে প্যান-ইউরোপীয় বৈঠক।

স্টলটেনবার্গ বলেন, ‘আমরা মূল নীতিগুলোর সাথে আপস করব না, যার মধ্যে প্রতিটি জাতির নিজস্ব পথ সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকারসহ তারা কী ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থার অংশ হতে চায়’।

ন্যাটো-রাশিয়া কাউন্সিলের বৈঠকটি দুই বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে প্রথম হবে এবং ন্যাটো রাষ্ট্রদূতদের রাশিয়ার রাষ্ট্রদূতের সাথে মুখোমুখি হয়ে পুতিনের নিরাপত্তা প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা করার সুযোগ দেবে।
ন্যাটো দেশগুলোর সাথে একটি খসড়া চুক্তি এবং রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে একটি চুক্তির প্রস্তাব - মস্কো যেসব নথি প্রকাশ করেছে তার মধ্যে অনেক কিছু রয়েছে - পুতিন ইউক্রেন আক্রমণের আদেশ দিতে পারেন এমন আশঙ্কা সত্ত্বেও ৩০-দেশের সামরিক সংস্থায় একটি নন-স্টার্টার বলে মনে হচ্ছে।

ন্যাটোকে কেবল ইউক্রেনের সাথে নয়, সমস্ত সদস্যপদ পরিকল্পনা বন্ধ করতে এবং রাশিয়ার সীমান্তের কাছাকাছি সামরিক মহড়া বন্ধ করতে সম্মত হতে হবে। বিনিময়ে রাশিয়া যুদ্ধের খেলা সীমিত করার জন্য স্বাক্ষরিত আন্তর্জাতিক প্রতিশ্রুতির প্রতি সম্মান দেখাবে, সেইসাথে বিমান উড্ডয়নের ঘটনা এবং অন্যান্য নিম্ন-স্তরের শত্রুতা বন্ধ করবে।

এ ধরনের চুক্তি অনুমোদনের জন্য ন্যাটোকে তার প্রতিষ্ঠা চুক্তির একটি মূল অংশ প্রত্যাখ্যান করতে হবে। ১৯৪৯ সালের ওয়াশিংটন চুক্তির ১০ অনুচ্ছেদের অধীনে সংগঠনটি যে কোনো ইচ্ছুক ইউরোপীয় দেশকে আমন্ত্রণ জানাতে পারে যারা উত্তর আটলান্টিক অঞ্চলে নিরাপত্তায় অবদান রাখতে পারে, সেইসাথে সদস্যতার বাধ্যবাধকতা পূরণ করতে পারে।

ব্লিঙ্কেন বলেন, মস্কো ভালো করেই জানে যে, ন্যাটো দাবি মেনে নেবে না।
ব্লিঙ্কেন বলেন, ‘অবশ্যই (পুতিনের) প্লেবুকের অংশ হল একেবারে নন-স্টার্টার দাবিগুলোর একটি তালিকা দেয়া এবং তারপরে দাবি করা যে, অন্য পক্ষ জড়িত নয় এবং তারপরে এটিকে আক্রমণাত্মক পদক্ষেপের ন্যায্যতা হিসাবে ব্যবহার করা’।
স্টলটেনবার্গ বলেছেন যে, রাশিয়ান সামরিক গঠন যা আক্রমণের উদ্বেগকে ছড়িয়ে দিয়েছে তা অব্যাহত রয়েছে।
তিনি বলেন, ‘আমরা সাঁজোয়া ইউনিট দেখি, আমরা আর্টিলারি দেখি, আমরা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত সৈন্য দেখি, আমরা ইলেকট্রনিক যুদ্ধ সরঞ্জাম দেখি এবং আমরা বিভিন্ন সামরিক সক্ষমতা দেখি’।

স্টলটেনবার্গ বলেন, রাশিয়ার নিরাপত্তার দাবি এবং ইউক্রেন ও জর্জিয়ায় এর ট্র্যাক রেকর্ডের সাথে মিলিত এ বিল্ডআপ ‘একটি বার্তা পাঠায় যে, ইউরোপে একটি নতুন সশস্ত্র সংঘাতের জন্য সত্যিকারের ঝুঁকি রয়েছে’।
রাশিয়া ২০১৪ সালে ইউক্রেনের ক্রিমিয়ান উপদ্বীপকে সংযুক্ত করে এবং পরে দেশটির পূর্বে একটি বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদ্রোহ সমর্থন করে। সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে লড়াইয়ে ১৪ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে এবং ডনবাস নামে পরিচিত ইউক্রেনের শিল্প কেন্দ্রস্থলকে।

রাশিয়া অস্বীকার করেছে যে, তার প্রতিবেশীকে আক্রমণ করার নতুন পরিকল্পনা রয়েছে। তবে পুতিন ন্যাটো সম্প্রসারণ এবং অস্ত্র মোতায়েনের আইনী গ্যারান্টি চান। মস্কো বলেছে যে, তারা এই মাসে তাদের নিরাপত্তা প্রস্তাবের উত্তর আশা করছে।

বাগাড়ম্বর সত্ত্বেও ইউক্রেন কেবল ক্রিমিয়া দখল এবং ডনবাসে লড়াইয়ের সাথে ন্যাটোতে যোগ দিতে পারে না, কারণ জোটের যৌথ নিরাপত্তা গ্যারান্টি যে, ‘একটি মিত্রের ওপর আক্রমণ তাদের সকলের উপর আক্রমণ হিসাবে বিবেচিত হয়’। ন্যাটোর মেম্বারশিপ দেশটিকে একটি যুদ্ধে টেনে নামাবে। প্রকৃতপক্ষে, একটি আক্রমণের ক্ষেত্রে ন্যাটোর সাহায্যে বড় সামরিক পেশী জড়িত হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

স্টলটেনবার্গ বলেন, ‘ইউক্রেন একটি খুব ঘনিষ্ঠ অংশীদার, আমরা ইউক্রেনকে সহায়তা প্রদান করি। কিন্তু ইউক্রেন ন্যাটোর যৌথ প্রতিরক্ষা ধারার আওতায় পড়ে না, কারণ ইউক্রেন ন্যাটোর সদস্য নয়।

ব্লিঙ্কেন এবং স্টলটেনবার্গ বলেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটো মস্কোর সাথে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আলোচনা করতে ইচ্ছুক, তবে পুতিনকে এস্তোনিয়া, লাটভিয়া, লিথুয়ানিয়া এবং পোল্যান্ডের মতো রাশিয়ার সীমান্তের কাছাকাছি সদস্য দেশগুলোকে কীভাবে সুরক্ষা দেয় তার ওপর বিধিনিষেধ আরোপের অনুমতি দেয়া যাবে না।

তিনি বলেন, ‘আমরা এমন পরিস্থিতিতে শেষ করতে পারি না যেখানে আমাদের এক ধরনের দ্বিতীয় শ্রেণীর ন্যাটো সদস্য রয়েছে; যেখানে ন্যাটোকে একটি জোট হিসাবে তাদের রক্ষা করার অনুমতি দেয়া হয় না যেভাবে আমরা অন্যান্য মিত্রদের রক্ষা করি’।

ন্যাটো-রাশিয়া কাউন্সিল গঠিত হয়েছিল দুই দশক আগে। কিন্তু ন্যাটো ২০১৪ সালে ক্রিমিয়াকে অধিভুক্ত করার পর এনআরসি’র মাধ্যমে রাশিয়ার সাথে ব্যবহারিক সহযোগিতা বন্ধ করে দেয়। বুধবারের বৈঠকটি হবে ২০১৯ সালের জুলাইয়ের পর প্রথম। ন্যাটো কর্মকর্তারা বলছেন যে, যতক্ষণ পর্যন্ত ইউক্রেন এজেন্ডায় ছিল ততক্ষণ রাশিয়া বৈঠকে অংশ নিতে অস্বীকার করেছে। সূত্র : এপি।



 

Show all comments
  • Ziared Rahman ৯ জানুয়ারি, ২০২২, ২:৪৫ এএম says : 0
    পরাশক্তিগুলোর মাঝে আগেও লড়াই ছিল এখনও আছে।
    Total Reply(0) Reply
  • হাবিবুর রহমান ৯ জানুয়ারি, ২০২২, ২:৪৫ এএম says : 1
    যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর বিরুদ্ধে শক্তিশালী জোট গঠন করার দরকার রাশিয়ার।
    Total Reply(0) Reply
  • কায়কোবাদ মিলন ৯ জানুয়ারি, ২০২২, ২:৪৬ এএম says : 0
    পরমাণু শক্তিধর দেশগুলোর বলি হচ্ছে অসহায় ছোট ছোট দেশগুলো।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ