Inqilab Logo

শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

এবাদতের এক বলে ৭ রান!

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ জানুয়ারি, ২০২২, ১:৫৩ পিএম

ক্রাইস্টচার্চের সবুজাভ উইকেট পেস বোলারদের সহায়ক হবে তা আগে থেকেই জানা ছিল। বাড়তি গতির সঙ্গে বাউন্সও পাওয়া যাবে। ব্যাটসম্যানদের জন্য রীতিমত হুমকি হয়ে ওঠার কথা ২২ গজ। কিন্তু বল হাতে বিবর্ণ দিন কাটালেন বাংলাদেশের পেস ত্রয়ী। তাসকিন, শরিফুল ও ইবাদত কেউই কিউই ব্যাটারদের জন্য হুমকি হতে পারেননি। নিখুঁত লাইন ও লেন্থ ধরে বোলিং করতে না পারায় সারা দিনে একটির বেশি উইকেট নিতে পারেননি বাংলাদেশের বোলাররা।

ওপেনার উইল ইয়ংয়ের একমাত্র উইকেটটি নিয়েছেন শরীফুল ইসলাম। এরপর থেকে শাসন করে গেছেন কিউই ব্যাটাররা। দিনশেষে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৩৪৯ রান। খেলা হয়েছে পুরো ৯০ ওভার। ডাবল সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্তে আছেন টম লাথাম। তার সঙ্গী ডেভন কনওয়ে সেঞ্চুরি থেকে ১ রান দূরে থেকে দিন শেষ করেন। সিরিজের প্রথম টেস্টে বল হাতে বাজিমাত করলেও এই ম্যাচে তার যেন ছিটেফোঁটাও নেই এবাদতের। অন্তত দ্বিতীয় টেস্টের প্রথমদিন পুরোপুরি ব্যর্থ তিনি,

তবে বোলিং ব্যর্থতার দিনে "নো বল" না করেও এক বলে ৭ রান দিয়েছেন এবাদত। ব্যক্তিগত ২৬ রানে উইল ইয়ং জীবন পেয়েছিলেন লিটন দাসের সৌজন্যে। 'সেই বল থেকে কিউইরা ৭ রান পেয়ে যায়। ২৬ তম ওভারের শেষ বলে ঘটনাটি ঘটে। এবাদত হোসেনের করা ডেলিভারটি অফ স্টাম্পের বাইরে ছিল। উইল ইয়ং বলটি স্লিপের দিকে ঠেলে দেন। দ্বিতীয় স্লিপে থাকা লিটন দাস ক্যাচ মিস করেন। উল্টো বল সীমানার কাছ থেকে ফেরত আসতে আসতে দৌড়ে ৩ রান নেন ইয়ং এবং টম ল্যাথাম।
এরপর বল উইকেটকিপার নুরুল হাসান সোহানের কাছে আসলে তিনি অন্য প্রান্তের স্টাম্পের দিকে ছুড়ে মারেন। বল স্টাম্পে লেগে প্রচণ্ড গতিতে বাউন্ডারির দিকে যেতে থাকে। বোলার এবাদত এবার নিজেই দৌড় লাগান বলের পেছনে। কিন্তু এতে কাজ হয়নি। বল বাউন্ডারি লাইন পার হয়ে যায়। আম্পায়র ৩+৪ সাত রান দিয়ে দেন নিউজিল্যান্ডকে। এবাদত দিনশেষে ২১ ওভারে দিয়েছেন সর্বোচ্চ ১১৪ রান। মেডেন নিয়েছেন মাত্র ১টি।

এদিন, টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে দারুণ শুরু করেন নিউজিল্যান্ডের দুই ওপেনার টম লাথাম এবং উইল ইয়ং। প্রথম সেশনে বাংলাদেশি বোলাররা স্বাগতিকদের কোনো চ্যালেঞ্জ জানাতে পারেননি। তাই ওপেনিং জুটি হয়ে যায় ১৪৮ রানের। ১১৪ বলে ৫ চারে ৫৪ রান করে শরিফুল ইসলামের শিকার হয়েছেন উইল ইয়ং। এর পরই ১৩৩ বলে ১৭ বাউন্ডারির সাহায্যে তিন অঙ্ক স্পর্শ করেন কিউই অধিনায়ক টম ল্যাথাম। এটি তার ১২ নম্বর টেস্ট সেঞ্চুরি। ৫২.১ ওভারে কিউইদের স্কোর দুই শ ছাড়ায়।

উইকেট তুলে নেওয়ার মরিয়া চেষ্টায় নাজমুল হোসেন শান্তকেও বল তুলে দেন অধিনাক মুমিনুল। কিন্তু সাফল্য আসেনি। দিনের শেষভাগে ৮০.৩ ওভারে নিউজিল্যান্ডের স্কোর তিনশ ছুঁয়ে ফেলে। দিনের শেষ ওভারে ডেভন কনওয়ের সেঞ্চুরির সম্ভাবনা দেখা গেলেও তা আর হয়নি। তিনি ১৪৮ বলে ১০ চার ১ ছক্কায় ৯৯* রানে অপরাজিত আছেন। অধিনায়ক টম ল্যাথাম ২৭৮ বলে ২৮ বাউন্ডারিতে ১৮৬* রানে অপরাজিত। দু'জনের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে এসেছে ২০১ রান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ক্রিকেট


আরও
আরও পড়ুন