Inqilab Logo

শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

ব্রিটেনে কমল করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, কমেছে মৃত্যুও

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৫ এএম

রবিবার এক ধাক্কায় লক্ষের ঘর ছাড়াল করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ব্রিটেন আপাতত বিধ্বস্ত করোনায়। রবিবার ব্রিটেনে নতুন করে করে আক্রান্ত হয়েছেন ১,৪১,৪৭২ জন। তবে শনিবারের চেয়ে এই সংখ্যা অনেকটাই কম বলে জানাচ্ছে পরিসংখ্যান। শনিবার সেদেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছিল ১,৪৬,৩৯০ জন। পাশাপাশি কমেছে মৃত্যু সংখ্যাও। শনিবার যেখানে করোনায় মৃত্যু হয়েছিল ৩১৩ জনের, সেখানে রবিবার মারা গিয়েছেন ৯৭ জন। ফলে অনেকটাই স্বস্তি পেয়েছেন সাধারণ মানুষ। গত কয়েক সপ্তাহে করোনা ভাইরাসের নতুন ভেরিয়েন্ট ওমিক্রনের দাপটে নাজেহাল ব্রিটেন। তবে একটিই স্বস্তির বিষয় ছিল, গত দুই তরঙ্গের তুলনায় তৃতীয় তরঙ্গে মৃত্যুর হার বেশ কম।

গত এক সপ্তাহে ১.২১৭ মিলিয়ন মানুষ করোনা পজেটিভ রিপোর্ট পেয়েছেন। ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহের তুলনায় যা ৬.৬ শতাংশ বেশি। ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে মৃত্যু সংখ্যাও। পরিসংখ্যান অনুযায়ী মৃত্যুর হার এক সপ্তাহে বেড়েছে ৩০.৯ শতাংশ। গবেষকরা জানিয়েছেন ডেল্টা ও ওমিক্রনে আক্রান্ত লোকেদের মধ্যে সংক্রমণের হারের পার্থক্য ছিল প্রায় ১০৫ শতাংশ।
এদিকে, ওমিক্রন নিয়ে গবেষণারত একদল ফরাসি বিজ্ঞানী জানিয়েছেন এটি করোনার অন্য রূপ ডেল্টার তুলনায় প্রায় ১০৫ শতাংশ বেশি সংক্রমণ যোগ্য। গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে মেডরেক্সভি নামের একটি সাইটে। সেখানে বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন ২৫ অক্টোবর থেকে ১৮ ডিসেম্বর ২০২১ সাল পর্যন্ত ফ্রান্সে কোভিড ১৯ আক্রান্ত ১৩১, ৪৭৮ জনের নমুনা পরীক্ষার পরই এই সিদ্ধান্তে এসেছেন তারা।
তথ্য বলেছে ওমিক্রন ডেল্টার চেয়ে সহজে উপরের শ্বাসনালীকে আক্রমণ করতে সক্ষম। তবে ওমিক্রন ফুসফুসে সংক্রমণ ছড়াতে তেমন পারে না। তাই এটি বেশি সংক্রামক হলেও ডেল্টার তুলনায় ওমিক্রনের কারণে মৃত্যুর হার অনেক কম।
যাইহোক সপ্তাহের শুরুতেই বিশ্বজুড়ে ওমিক্রনের প্রভাবে করোনা সুনামি দেখা দেবে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। পাশাপাশি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ওমিক্রনকে হালকাভাবে নেওয়ার বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করেছিল। শুধু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নয় বিশ্বে অনেক বিজ্ঞানীরাই ওমিক্রন নিয়ে এখনও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। পাশাপাশি মৃদু উপসর্গের ওমিক্রন নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অনেকে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীনাথন জানিয়েছেন, ওমিক্রনকে অনেকেই সাধারণ সর্দি কাশি হিসেবে বিবেচনা করছেন। কিন্তু এটি আদতে তা নয়। করোনার এই রূপটি খুবই হালকা লক্ষণযুক্ত। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এটি উপসর্গহীন। কিন্তু, এটি সাধারণ সর্দি নয়। স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে সমস্যায় ফেলতে পারে এটি। বিপুল সংখ্যক রোগীর পরীক্ষা ও পরামর্শ ও নিরীক্ষণ করা খুবই জরুরি। এটি হঠাৎ বেড়ে গিয়ে ভয়ঙ্কর আকার নিতেই পারে। এর ফলে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়বে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি। সূত্র : এশিয়ানেট নিউজ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ব্রিটেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ