Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

নেত্রকোনায় হিমাগার চাই

চিঠিপত্র

আবুল হোসাইন | প্রকাশের সময় : ১২ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৫ এএম

বাংলাদেশের সর্ব উত্তরে অবস্থিত জেলাগুলোর একটি নেত্রকোনা। ঢাকা থেকে দূরবর্তী হওয়ায় এটি সর্বদাই অবহেলিত। বিশাল এ জেলাটিতে বিপুল পরিমাণ শাক সবজি উৎপাদিত হয়। যা জেলার অভ্যন্তরের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যায়। কিন্তু হিমাগার না থাকায় নেত্রকোনায় উৎপাদিত সবজির ২৫ শতাংশই নষ্ট হচ্ছে। ২০১৮ সালের একটি প্রতিবেদন অনুসারে, নেত্রকোনায় প্রতিবছর সোয়া দুই লাখ মেট্রিক টনের মতো সবজি উৎপাদিত হয়। কিন্তু হিমাগার না থাকায় উৎপাদিত সবজির সংরক্ষণ করা যাচ্ছে না। ফলে কৃষকদের বাধ্য হয়ে কম দামে সবজি বিক্রি করতে হচ্ছে। ১০টি উপজেলা নিয়ে গঠিত নেত্রকোনা জেলার আয়তন ২ হাজার ৮১০ বর্গকিলোমিটার। কৃষিজমির পরিমাণ ৪ লাখ ৭৩ হাজার হেক্টর। জেলার ৯০ শতাংশ মানুষ কৃষির সঙ্গে জড়িত। জনসংখ্যা প্রায় ২৫ লাখ। গ্রামবাংলার সাধারণ কৃষকদের বাঁচিয়ে রাখতে ও খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হলে সরকারের উচিত, অবিলম্বে নেত্রকোনায় কয়েকটি হিমাগার স্থাপন করা।
শিক্ষার্থী, কেন্দুয়া জয়হরি স্প্রাই সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চিঠিপত্র

১৭ এপ্রিল, ২০২২
১১ এপ্রিল, ২০২২
১০ এপ্রিল, ২০২২
১০ এপ্রিল, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ