Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

পরিবেশ রক্ষায় চাই সচেতনতা

| প্রকাশের সময় : ১৩ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৪ এএম

পরিবেশ দূষিত হওয়ার মাত্রা আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। বায়ু, পানি ও শব্দদূষণ যেন স্বাভাবিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর প্রভাব পড়ছে জীববৈচিত্র্যের ওপর। জলবায়ুর প্রতিকূল প্রভাবও পরিবেশের ওপর পড়ছে। জলবায়ু পরিবর্তনে বিভিন্ন প্রাণীর জটিল ও কঠিন রোগ দেখা দিচ্ছে। পরিবেশের ওপর জলবায়ুর প্রভাবের জন্য ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়াজনিত এবং খাদ্যাভাবজনিত রোগসহ নানা জটিল ও অপরিচিত রোগ হয়ে থাকে। আমরা জানি, পরিবেশ ও জীবন একে অপরের পরিপূরক। পরিবেশ অনুকূলে থাকলে অব্যাহত থাকে জীবনচক্র। কেননা, পরিবেশের বিপর্যয় মানে জীবনের বিপর্যয়। প্রাণিস্বাস্থ্য, প্রাণী উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু পরিবর্তন একটি আন্তঃসম্পর্কিত জটিল প্রক্রিয়া। এর ওপর অনেকাংশেই নির্ভর করে রোগের প্রাদুর্ভাব, উৎপাদন ব্যবস্থাসহ অনেক কিছু। বৈরী জলবায়ুর করালপ্রাস থেকে রেহাই পাচ্ছে না বাংলাদেশও। এর পাশাপাশি যোগ হয়েছে পরিবেশ দূষণ। দূষণের দোষে দূষিত হয়ে উঠছে চারপাশ। অতিবৃষ্টি, উচ্চতাপমাত্রা ও খরার ফলে মানুষের অজান্তেই সৃষ্টি হচ্ছে একের পর এক শক্তিশালী ভাইরাস। গত এক যুগে দূষণ ও পরিবেশের বিচারে বাংলাদেশ পিছিয়েছে। খাবার, পানি আর বায়ু ছাড়া জীবজগতের অস্তিত্ব কল্পনা করা যায় না। ফলে নির্মল বায়ুসেবন প্রতিমুহূর্তের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। অথচ আমাদের চারপাশের পরিবেশের এই বিপর্যয়ের একটি অন্যতম কারণ হচ্ছে বায়ুদূষণ। এর ভয়াবহতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। বাংলাদেশে ১৯৯৫ সালে পরিবেশ সংরক্ষণ আইন পাস হয়েছে। কিন্তু জনবিস্ফোরণ, বনাঞ্চলের অভাব ও ঘাটতি এবং শিল্প ও পরিবহন নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার অভাবের দরুন দেশের পরিবেশ এক জটিল অবস্থার দিকে পৌঁছাতে যাচ্ছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, বাংলাদেশে গত কয়েক দশকে যে বহু বন্যপ্রাণীর প্রজাতি হুমকির মুখে পড়েছে, সেটি এখন অনেকটাই দৃশ্যমান। বাংলাদেশে যদি ১ হাজার ৬০০ প্রাণীর কথা বলি,তা হলে তার অর্ধেকের মতো বিপন্ন অবস্থায় রয়েছে। তাই নিজেকে ও পরিবেশকে বাঁচাতে আমাদের সবাইকেই পরিবেশ রক্ষা করে চলতে হবে এবং জেনে-বুঝে কেউ পরিবেশের ক্ষতি করলে আইনের আশ্রয় নেওয়া প্রয়োজন। পরিবেশকে যদি আমরা রক্ষা না করে দিনের পর দিন ব্যবহার করে ধ্বংস করি, তা হলে এর থেকে ও ভয়াবহ দুর্যোগ কড়া নাড়বে আমাদের সন্নিকটে। তাই আসুন, আমরা পরিবেশ রক্ষায় উদ্যোগ নিই। পরিবেশ রক্ষায় সচেতন হই। সরকারকেও বলব, পরিবেশ রক্ষায় আরও সতর্ক হোন। পরিবেশ রক্ষায় পরিবেশ সংরক্ষণ আইন যথাযথভাবে প্রয়োগ করুন। কারণ পরিবেশ বাঁচলে, বাঁচবে মানুষ, বাঁচবে দেশ।

জেসমিন আক্তার
শিক্ষার্থী, জয়নাল হাজারী কলেজ, ফেনী



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চিঠিপত্র

১৭ এপ্রিল, ২০২২
১১ এপ্রিল, ২০২২
১০ এপ্রিল, ২০২২
১০ এপ্রিল, ২০২২

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ