Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৬ মাঘ ১৪২৮, ১৬ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

খেজুরের কাঁচা রস থেকে সাবধান

| প্রকাশের সময় : ১৪ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৪ এএম

চলছে শীতের মৌসুম। শীতকাল এলেই আমাদের দেশের মানুষের মধ্যে খেজুরের রস খাওয়ার ধুম পড়ে যায়। শহর থেকে মানুষজন গ্রামের আত্মীয়ের বাড়ি আসেন শীতের আমেজ পরিপূর্ণভাবে উপভোগ করার জন্য। এ সময় গাছিরা খেজুর গাছের ডাল-পালা পরিষ্কার করে গাছের কাণ্ড চেঁচে তাতে বাঁশের চোঙা বসিয়ে তার সাথে মাটির হাঁড়ি, বড় বোতলের মুখ কেটে চোঙের সাথে লাগিয়ে রস সংগ্রহ করেন। সন্ধ্যায় লাগালে সারারাতে ফোঁটা ফোঁটা করে রস জমা হয়ে রাত শেষে প্রতি গাছ থেকে ৬ থেকে ৭ লিটার রস পাওয়া যায়। শীতের কুয়াশাজড়ানো ভোরে গাছিরা রস ভর্তি হাঁড়িগুলো গাছ থেকে নামায়। এ সময় অনেকেই সরাসরি কাঁচা রস পান করেন। কারণ কাঁচা অবস্থায় রসের আসল স্বাদ পাওয়া যায়। কিন্তু এই কাঁচা রস সরাসরি পান করা নিরাপদ নয়। কারণ, হাঁড়িতে জমা হওয়া রসের প্রতি অন্যান্য পশু-পাখিরও আকৃষ্ট হয়। এমনকি বিষাক্ত সাপ, বাদুড় এবং অন্যান্য কীট-পতঙ্গ কাঁচা রসের মিষ্টি গন্ধে আকৃষ্ট হয়ে হাঁড়ি থেকে রস খায়। এভাবে পুরো পাতিলের রস বিষাক্ত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। যা অনেক সময় মানুষের মৃত্যুর কারণও হতে পারে। বাদুড়ের মুখে থাকা নিপাহ ভাইরাস এভাবেই ছড়ায়।

১৯৯৮-৯৯ সালে নিপাহ ভাইরাসের প্রথম প্রাদুর্ভাব দেখা দেয় মালয়েশিয়ার সুঙ্গাই নিপাহ নামক গ্রামে। ওই গ্রামের নামেই ভাইরাসটির নামকরণ করা হয়। মূলত ফলাহারি বাদুড় এই ভাইরাসের প্রধান বাহক। তবে ফলাহারি বাদুড় নিজে ওই ভাইরাসে আক্রান্ত হয় না। গাছে লাগানো হাঁড়ির মুখ সর্বাবস্থায় খোলা থাকে। আর বাদুড় খাবার খাওয়া এবং মলত্যাগ উভয়ই মুখ দিয়ে করে। তাই কাঁচা রস খাওয়া থেকে আমাদের অবশ্যই সাবধান হতে হবে। এ ব্যাপারে আমাদের যথেষ্ট সচেতনতা অবলম্বন করতে হবে। নিপাহ ভাইরাস দমনের জন্য নির্ধারিত কোনো টিকা আবিষ্কার না হওয়ায় এখানে মৃত্যুঝুঁকি প্রায় ৭০ শতাংশ। তাই এই ঝুঁকি এড়াতে সতর্কতার বিকল্প নাই। সর্বাবস্থায় আমাদের কাঁচা রস পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে। নিজে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি সামাজিকভাবে অন্যদেরও সচেতন করতে হবে। মৃত্যুঝুঁকি এড়াতে কাঁচার পরিবর্তে জাল দিয়ে রস খাওয়াটাকেই উৎসাহিত করতে হবে।

মো. শাকিবুল হাসান
শিক্ষার্থী, বরেন্দ্র কলেজ, রাজশাহী



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: খেজুরের কাঁচা রস
আরও পড়ুন