Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৪ মাঘ ১৪২৮, ১৪ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

ঝিকরগাছায় ২১ বছর পর পৌর নির্বাচন: চ্যালেঞ্জের মুখে নৌকা

যশোর ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৮:১৬ পিএম

সীমানা জটিলতার কারণে দীর্ঘ ২১ বছর পর রবিবার (১৬ জানুয়ারি) যশোরের ঝিকরগাছা পৌরসভার নির্বাচন।

তবে ভোটের তিন দিন আগে কেন্দ্র পরিবর্তন, সম্প্রতি ৯ কাউন্সিলর প্রার্থীর নামে নাশকতার মামলা ও ভয়ভীতির কারণে ভোটাররা রয়েছেন আতংকে। তারা কেন্দ্রে যেতে পারবেন কিনা সেটা নিয়ে চিন্তিত আছেন প্রার্থীরাও।
২১ বছর পরে অনুষ্ঠিত এ পৌর নির্বাচনে বিদ্রোহীদের চ্যালেঞ্জের মুখে নৌকা। বিশেষ করে বিগত জাতীয় ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনে পৌরসভার ৬০-৬৫ শতাংশ ভোট নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা পেলেও এবার অবস্থা ভিন্ন।
বিশেষ করে নির্বাচন না হওয়ায় টানা ২০ বছর ধরে মেয়র পদ আকড়ে রাখা মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামালের বিরুদ্ধে মাঠে রয়েছেন তিন বিদ্রোহী প্রার্থী।
অন্যদিকে বিএনপি সমর্থিত একক প্রার্থী থাকায় সুবিধা পেতে পারেন উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক কম্পিউটার প্রতীকের প্রার্থী ইমরান হাসান সামাদ।
এ নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্ধতা করছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল, আওয়ামীলীগের চার বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মুকুল, সাবেক সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক এ.কে.এম আমানুল কাদির টুল্লু, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ছেলিমুল হক ছালাম।
বিএনপি সমর্থিত উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক ইমরান হাসান সামাদ ও নির্দলীয় আব্দুল্লাহ আল সাঈদ।
যদিও বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মুকুল নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছেন।
সেজন্য নির্বাচনে মূল প্রতিদ্ব›িদ্ধতা হবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল ও বিএনপি সমর্থিত উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক ইমরান হাসান সামাদের মধ্যে।
তবে আওয়ামীলীগের ভোটের বড় একটা অংশ পেতে পারেন বিদ্রোহী প্রার্থী ছেলিমুল হক ছালাম।
ছালাম যদি লীগের ভোটের বড় একটা অংশ পান সেক্ষেত্রে লাভবান হয়ে যেতে পারেন বিএনপি সমর্থিত ইমরান হাসান সামাদ।
স্থানীয় এক সাংবাদিক বলেন, বিশেষ করে দীর্ঘদিন মেয়র পদে দখলে থাকায় নৌকা প্রার্থীর বিরুদ্ধে কিছু ভোটারের নেতিবাচক মনোভাব রয়েছে। সেজন্য পৌরসভার ৬০-৬৫ শতাংশ নৌকার ভোটার হলেও একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় বিএনপি সমর্থিত সামাদ নির্বাচনে জিতেও যেতে পারেন।
এদিকে ইভিএম পদ্ধতিতে ১৪টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা হবে বলে ভোটারদের মাঝে এ নির্বাচন নিয়ে ব্যাপক আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে।
পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, ২০০১ সালের ২ এপ্রিল ঝিকরগাছা পৌরসভার প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। পৌরসভার আয়তন ৯ দশমিক ৪৩ বর্গ কিলোমিটার, সাধারণ ওয়ার্ড সংখ্যা ৯টি ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড সংখ্যা ৩টি।
সে নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল। সীমানা সংক্রান্ত জটিলতায় আর নির্বাচন অনুষ্ঠিত না হওয়ায় তিনি ২১ বছর মেয়র পদে আছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ