Inqilab Logo

সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

তিনি পশ্চিমাদের অত্যাচারের প্রতীক

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০০ এএম

মালিক ফয়সাল আকরাম যখন গত ১৫ জানুয়ারি টেক্সাসের একটি সিনাগগে চারজনকে জিম্মি করেন, তখন তিনি মুসলিম বিশ্বে পরিচিত একজন মহিলার মুক্তি দাবি করেছিলেন। সেই মহিলা হচ্ছেন আফিয়া সিদ্দিকী। ২০০৮ সালে আফগানিস্তানে আমেরিকান সৈন্যদের হত্যা-চেষ্টার জন্য তিনি দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। কিন্তু তার জন্মভূমি পাকিস্তানে তিনি পশ্চিমাদের অত্যাচারের প্রতীক।

আফিয়া সিদ্দিকী ১৯৭২ সালে করাচিতে একটি ধর্মপ্রাণ উচ্চ-মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজিতে জীববিজ্ঞান অধ্যয়ন করেন এবং ব্র্যান্ডেস বিশ্ববিদ্যালয়ে নিউরোসায়েন্সে পিএইচডি অর্জন করেন। আমেরিকায় থাকাকালীন তিনি ইসলামি গোষ্ঠীর সাথে যুক্ত ছিলেন বলে দাবি করা হয়। ৯/১১ এর পর আফিয়া সিদ্দিকী পাকিস্তানের উদ্দেশ্যে বোস্টন ত্যাগ করেন। তার প্রথম স্বামী, একজন পাকিস্তানি অ্যানাস্থেসিওলজিস্টের কাছ থেকে বিবাহবিচ্ছেদের পর, তিনি আবার বিয়ে করেছিলেন। এবার আম্মার আল-বালুচি নামের এক ব্যক্তির সাথে। বালুচি ৯/১১ ঘটনায় বিমান ছিনতাইকারীদের অর্থায়নে সহায়তা করেছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তার চাচা খালিদ শেখ মোহাম্মদ হামলার পেছনে আত্মস্বীকৃত মাস্টারমাইন্ড ছিলেন। দু’জনই এখন গুয়ান্তানামো বে কারাগারে বন্দি।

আমেরিকানরা অভিযোগ করেছে, আফিয়া আল-কায়েদার জন্য ‘সুবিধাদাতা’ হিসাবে কাজ করেছিলেন, এফবিআই-এর ওয়ান্টেড সন্ত্রাসী সন্দেহভাজনদের তালিকায় তাকে একমাত্র মহিলা হিসাবে স্থান দিয়েছেন (তার বিরুদ্ধে কখনও সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ আনা হয়নি)। ২০০৩ থেকে ২০০৮ সালের মধ্যে আফিয়া সিদ্দিকীর অবস্থান নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা বলছে, সে পাকিস্তানে লুকিয়ে ছিল। তবে আফিয়া দাবি করেছেন যে, তাকে একটি গোপন কারাগারে আটকে রাখা হয়েছিল এবং নির্যাতন করা হয়েছিল। ২০০৮ সালে তিনি আফগানিস্তানে পুনরায় আবির্ভূত হন এবং তাকে আটক করা হয়। তার হ্যান্ডব্যাগে বোমা তৈরির নির্দেশনাসহ নথি ছিল। আটক অবস্থায় তিনি তার একজন আমেরিকান জিজ্ঞাসাবাদকারীর রাইফেল ছিনিয়ে নিয়ে তাদের দিকে গুলি চালান। তাকে নিউইয়র্কে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, হত্যার চেষ্টার জন্য বিচার করা হয়েছিল এবং ৮৬ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়েছিল।

পাকিস্তান সরকার তার আইনি প্রতিরক্ষার জন্য অর্থ প্রদান করেছে, যা তার বিরুদ্ধে প্রমাণ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। তার মুক্তির আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। পশ্চিমের সংবাদমাধ্যমে ‘লেডি আল-কায়েদা’ নামে অভিহিত করা হয়েছে, তাকে পাকিস্তানে ‘জাতিকন্যা’ বলা হয়। তার আইনজীবী টেক্সাসের সাম্প্রতিক ঘটনা এবং তার নামে সংঘটিত অন্যান্য সহিংসতার নিন্দা করেছেন। তবে তার গল্প সম্পর্কে অনেক কিছুই রহস্যের মধ্যে রয়ে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রে আফিয়া সিদ্দিকীকে শাস্তি দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে কড়া প্রতিক্রিয়া দেন পাকিস্তানি কর্মকর্তারা। এতে দেশটির বহু শহরে প্রতিবাদ বিক্ষোভ হয়। মিডিয়ায় ব্যাপক সমালোচনা করা হয়। ওই সময় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন ইউসুফ রাজা গিলানি। তিনি আফিয়া সিদ্দিকীকে ‘ডটার অব দ্য নেশন’ বা জাতির কন্যা হিসেবে আখ্যায়িত করেন এবং তাকে জেল থেকে মুক্ত করার প্রচারণা চালানোর প্রত্যয় ঘোষণা করেন। পরের বছরগুলোতে পাকিস্তানি নেতারা তাকে মুক্ত করার চেষ্টা চালিয়েছেন। কিন্তু তা কোনো ফল বয়ে আনেনি। সূত্র : দ্য ইকোনমিস্ট।



 

Show all comments
  • মুহাম্মদ এনামুল হক আনাম ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:৩২ এএম says : 0
    আফসোস এই খবরটি খুব কম মানুষই পড়বে এবং জানবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Mahabub Alam ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:৩২ এএম says : 0
    আল্লাহ তুমি ডাক্তার আফিয়া কে জেল থেকে মুক্তি দান করো আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • Md Parves Hossain ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:৩৩ এএম says : 0
    বিশ্ব সন্ত্রাসী আমেরিকাকে যারা মডেল মনেকরে তারাও সন্ত্রাসী
    Total Reply(0) Reply
  • MD Year Ali Sikder ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:৩৩ এএম says : 0
    আল্লাহু আকবর। মহান আল্লাহ ডাঃ আফিয়া সিদ্দিকাকে একজন ঈমান্দার হিসেবে কবুল করুন-আমিন।
    Total Reply(0) Reply
  • Jack Ali ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:৩৩ এএম says : 0
    বর্বর পাকিস্তান নাইন ইলেভেনে পড়ে কত লোককে সিআইএ'র হাতে দিয়ে দিয়েছে আফিয়া সিদ্দিকা কিডন্যাপ করে সিআইএ'র হাতে দিয়ে দিয়েছে এই বর্বর পাকিস্তানি সরকার
    Total Reply(0) Reply
  • Najrul Shahin ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:৩৩ এএম says : 0
    আমেরিকা শুধু বড়ো বড়ো কথায় বলতে পারে সমস্ত বিশ্ব কে গনতন্ত্রের ছবক শুনাতে পারে মানবাধিকার এর কথা বলতে পার আসলে তারাই হচ্ছে পৃথিবীর সবচেয়ে নিকৃষ্টতর অমানবিক
    Total Reply(0) Reply
  • Hannan Kabir ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:৩৪ এএম says : 0
    আমেরিকা তুমি প্রস্তুত হও মজলুমের রক্তের বদলা পেতে।
    Total Reply(0) Reply
  • দেলোয়ার হোসেন ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৫৫ এএম says : 0
    আমেরিকা শুধু বড়ো বড়ো কথায় বলতে পারে সমস্ত বিশ্ব কে গনতন্ত্রের ছবক শুনাতে পারে মানবাধিকার এর কথা বলতে পার আসলে তারাই হচ্ছে পৃথিবীর সবচেয়ে নিকৃষ্টতর অমানবিক। চোরের মার বড় গলা।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মুসলিম


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ