Inqilab Logo

বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

গোসল তো দূরের কথা, দুঃখে কাঁদতেও পারেন না!

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ৪:২৩ পিএম

পানিতেই নাকি লুকিয়ে আছে জীবন! অথচ সেই পানিই এক মহিলার জীবন দুর্বিষহ করে তুলেছে। গোসল তো অনেক দূরের কথা, গা মোছাও তার কাছে মৃত্যু যন্ত্রণার শামিল। দূঃখে কান্না পেলে তা-ও ফেলতে হয় বুঝে শুনে। কারণ সেই অশ্রু চোখ থেকে গড়িয়ে গালে-গলায় নামলেই পুড়বে ত্বক। জ্বলবে শরীর!

রোজ সকালে ঘুম ভাঙার পর পানির বোতলের দিকে হাত বাড়ান অনেকেই। সাত সকালে গলা শুকোলে ইনিও পানি খেতে বাধ্য হন। তবে সেই পানি জিভ ছুঁয়ে গলায় নামলে মনে হয় পানি নয় বিষপান করছেন। ইনি অন্য কোনও বিশ্বের মানুষ নয়, তবে তার দুনিয়াটা অনেক আলাদা। তার নাম রেচেল উইক। রেচেলের পানিতে অ্যালার্জি।

বাথটবে শরীর ডুবিয়ে আরামের স্নান অনেকের কাছে স্বর্গীয় অনুভূতি হতে পারে। রেচেলের কাছে তা কিন্তু দুঃস্বপ্ন। তার মনে হয় সারা শরীরে তীব্র রাসায়নিক ঘষে দিচ্ছে কেউ। রেচেলের দুনিয়ায় পানি জীবন নয়, বরং মরণ যন্ত্রণার সমান। যে কোনও ধরনের পানির স্পর্শ— তা যদি তার নিজের স্বেদবিন্দুও হয় তবে তা রেচেলকে যন্ত্রণায় কাতর করে ফেলে। লালচে হয়ে ফুলে ওঠে ত্বক। তীব্র জ্বালা, চুলকানির মতো অস্বস্তিও হতে থাকে।

তার সঙ্গে আসে ভয়ানক ক্লান্তি বোধ। রেচেলের কথায়, ‘‘আমার মনে হয় যেন আমি ম্যারাথন দৌড়ে এসেছি। এমন হলে আমাকে কোথাও গিয়ে বিশ্রাম নিতে হয়। বেশ খানিক ক্ষণ পর ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হতে শুরু করি।’’ রেচেলের এই পানিতে অ্যালার্জির অসুখের একটি নাম আছে— অ্যাকোয়াজেনিক আর্টিসারিয়া।

এর উপসর্গ হল সারা শরীরে বিছুটি পাতা ঘষে দেওয়ার মতো জ্বালা। তার সঙ্গে ঘুসঘুসে জ্বর, নাক দিয়ে পানি পড়া, চোখ সরসর করা, হাঁচি, মাথার যন্ত্রণা, বুকে সর্দি বসার মতো ঠান্ডা লাগার উপসর্গ। আর এই সব কিছু রেচেলকে সহ্য করতে হয় প্রতি দিন। এই পরিস্থিতিতে মনে হতেই পারে পানি না খেয়ে, স্নান না করে এই সব উপসর্গ নিয়ে রেচেল বেঁচে আছেন কী করে! যেখানে মানবদেহের ৬০ শতাংশই পানি, এক জন প্রমাণ আকৃতির ৭০ কেজি ওজনের প্রাপ্তবয়স্কের শরীরে অন্তত ৪০ লিটার পানি থাকে, সেখানে রেচেলের পানিতে অ্যালার্জি হয় কী করে?

রেচেলের চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, শরীরে সঞ্চিত পানি এখানে সমস্যা নয়। সমস্যা হয় তখন, যখন সেই পানি ত্বকের সংস্পর্শে আসে বা যখন বাইরে থেকে শরীরে পানি প্রবেশ করে। এই পানি যদি নিজের শরীর নিসৃত হয়, তাতেও সমস্যা হয়। রেচেলের চিকিৎসা করতে গিয়ে চিকিৎসকরা দেখেছেন একাধিক বার পরিশোধন করা পানিতেও কোনও লাভ হচ্ছে না। তাতেও একই প্রতিক্রিয়া হচ্ছে তার শরীরে।

রেচেল জানিয়েছেন, সবাই যখন আমার রোগের কথা শোনেন তখন তারা জানতে চান, ‘‘আমি পানি পান করি কী ভাবে? স্নান করি কী ভাবে? সবচেয়ে বড় কথা শরীর নোংরা হলে তা সাফ সুতরো রাখি কী ভাবে? আমি ওদের বলি— বাধ্য হলে এই সবই আমাকে করতে হয়। আর তখন দাঁতে দাঁত চেপে যন্ত্রণা সহ্য করা ছাড়া আর কোনও উপায় থাকে না।’’

কিন্তু কেন এই রোগ? যে পানি স্বাভাবিক নিয়মে প্রকৃতিই মানবদেহে দিয়েছে, সেই পানিকে কোনও শরীর প্রতিরোধ করে কী ভাবে? চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন— অসুখটা একটু অদ্ভুত এবং এর ঠিকঠাক বৈজ্ঞানিক ব্যখ্যা এখনও পাওয়া যায়নি সে ভাবে। একদল গবেষকের ধারণা, ত্বকের বাইরের অংশ যেখানে মূলত মৃত কোষ এবং তৈলাক্ত পদার্থ থাকে, তা পানিতের সংস্পর্শে এসে হয়তো কিছু রাসায়নিক পদার্থ নিঃসরণ করে। তা থেকেই জ্বালার অনুভূতি হতে পারে। অন্য একটি মহলের মত, পানিতের সংস্পর্শে ত্বকের বিভিন্ন স্তরে থাকা জৈব পদার্থ রাসায়নিক তৈরি করে। সেই রাসায়নিক ত্বকের আরও গভীরে প্রবেশ করে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে।

তবে কারণ যা-ই হোক এই অসুখ যে রোগীর জীবনটাই সম্পূর্ণ বদলে দিতে পারে তা মেনে নিয়েছেন চিকিৎসকেরা। এমন অস্বাভাবিক রোগ থেকে হতাশাও আসতে পারে বলে জানিয়েছেন তারা। রেচেল তার জলজ্যান্ত প্রমাণ। এই রোগের সে ভাবে কোনও ওষুধ নেই। ওমালিজুমাব নামে যে ড্রাগ দিয়ে চিকিৎসকরা কোনও কোনও ক্ষেত্রে সুরাহা পেয়েছেন, তার আকাশছোঁওয়া দাম। বিশ্বের কোনও স্বাস্থ্যবিমাও সেই দামের দায় নেয় না। রেচেল তাই সেই ওষুধ কিনতে চেয়েও কিনতে পারেননি।

তার ওপর যে সংস্থা ওই ড্রাগ তৈরি করত তারাও তার উৎপাদন বন্ধ করছে। তাদের বক্তব্য কার জন্য তারা এই ওষুধ বানাবে। এই রোগের রোগীও তো হাতে গোনা মাত্র কয়েক জন। প্রতি ২৩ কোটিতে এক জনের এমন অসুস্থতা থাকে। সেই হিসেবে গোটা পৃথিবীতে রেচেলের মতো রোগী থাকতে পারেন মাত্র ৩২ জন।

রোগ থেকে মুক্তি পাবেন না ভেবে হতাশই হয়ে পড়েছিলেন রেচেল। তাকে মানসিক জোর জুগিয়েছেন তার স্বামী। যিনি দীর্ঘ দিন রেচেলের দেখাশোনা করেছেন। পানিতের বদলে এখন দুধ খান রেচেল। তাতে তার যন্ত্রণা কিছুটা লাঘব হয়েছে। কিন্তু সমাধান হয়নি। কোনও দিন যদি সত্যিই তার রোগের চিকিৎসা সম্ভব হয়, তখন কী করবেন রেচেল? জানতে চাওয়া হয়েছিল তার কাছে। রেচেল বলেছেন, ‘‘আমি প্রথমে সমূদ্রে যাব। আর বৃষ্টিতে ভিজব প্রাণ ভরে।’’ সূত্র: টাইমস নাউ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন