Inqilab Logo

সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

সেতু আছে সড়ক নেই

শফিকুল ইসলাম বেবু, কুড়িগ্রাম থেকে | প্রকাশের সময় : ২৬ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৩ এএম

নয়নাভিরাম রঙের ছোঁয়ায় জ্বলজ্বল করে দাঁড়িয়ে থাকা একটি সেতুর নাম সিতাইঝাড় সেতু। চকচকে দেখতে ওই সেতুটি শুধু গ্রামের সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি করেনি যাতায়াতের ক্ষেত্রেও ভরসা পেয়েছিলেন চরবাসী। তবে গত ৩/৪ বছরে আগে সেতুটির সংযোগ সড়ক স্থাপন না হওয়ায় অকেজো হয়ে পড়ে থাকা সেতুটি গ্রামবাসীর আর্শিবাদ নয়, এখন যেন ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
সেতু পেয়েও শুধু সংযোগ সড়কের অভাবে তিন ইউনিয়নের শত শত মানুষ সেতুটির ওপর দিয়ে চলাচল করতে না পারায় আক্ষেপ প্রকাশ করেছে।
প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার মোগলবাসা ইউনিয়নের সিতাইঝাড় গ্রামের হাদের গোয়ালের বাড়ির পেছনে ত্রাণ ও পুর্নবাসন কেন্দ্রের অর্থায়নে ৩১ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যায়ে নির্মিত এই সেতুটি। সেতুর কাজ শেষ হওয়ার আগেই বন্যার পানিতে দুই পাড়ের সংযোগ সড়ক বিছিন্ন হয়।
সরজমিনে দেখা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে কুড়িগ্রাম সদরের মোগলবাসা, পাঁচগাছি ও বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের মানুষের চলাচলের জন্য নির্মিত হয় ১৮ ফুট দৈর্ঘের এই সেতুটি। সেতুটি হওয়ায় তিন ইউনিয়নের মানুষের মধ্যে স্বস্তি আসে। আশে পাশে গড়ে উঠা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাটবাজারে যাতায়াতের সুবিধা হবে বলে সেতুটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের প্রতীক্ষায় থাকে লোকজন। কিন্তু সেই আশা আর স্বপ্নে ধস নামে গত ২০১৮ সালের বন্যায়।
উদ্বোধন হওয়ার আগেই বন্যার পানির স্রোতে সেতুটির দু’পাড়ের সংযোগ সড়ক ভেঙে যায়। ফলে জনসাধারণের চলাচলের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এতে করে সব শ্রেণির পথচারীরা পড়েছে চরম ভোগান্তিতে। উপায়ন্তর না পেয়ে প্রতি বছরই পানির উপর বাঁশের সাঁকো তৈরি করে ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে হয় গ্রামবাসীর। সেতুটি নির্মাণের প্রায় তিন বছর পার হলেও সেতুটির সংযোগ সড়ক স্থাপন না হওয়ায় বিপাকে এলাকাবাসী।
সদরের মোগল বাসা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য (মেম্বার) লোকমান আলী জানান, সেতুটি হওয়ার পরেই বন্যায় সংযোগ সড়ক ভেঙে যায়। গত তিন বছরে এর কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় নাই। অফিসে বিভিন্নভাবে যোগাযোগ করা হয়েছে। ওরা এসে স্টিমেট করে গেলেও এখন পর্যন্ত কোন টেন্ডার বা কাজের কোন কিছুই দেখছি না।
এ বিষয়ে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা খন্দকার মো. ফিজানুর রহমান জানান, মোগলবাসা ইউনিয়নের সিতাইঝাড় সেতুটি বন্যার পানিতে সংযোগ সড়ক বিছিন্ন হয়েছিল। গত বছরে সংযোগ সড়ক সংস্কারের জন্য কাজ করা হয়েছিল। কাজ শেষ না হতেই আবারও বন্যার পানিতে নষ্ট হয়ে যায়। বিষয়টি অবগত আছি। ওই সেতুটির সংযোগ সড়কের কাজ দ্রুত করতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ