Inqilab Logo

রোববার, ২৯ মে ২০২২, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৭ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ভিসিকে ফুটবলে নামিয়ে নিলো শাবির আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা !

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০২২, ৭:৫০ পিএম

নৈতিকতা ও মূল্যবোধের সাথে যুদ্ধ চলছে সর্বত্র। দিন শেষে জয় হয় মুল্যবোধের। এমনটিই প্রাকৃতিক। কিন্তু এর মধ্যে ভেসে উঠে অনৈতিক মানসিকতার নানামুখী অগ্রহনযোগ্য পরিচয়। কথিত শিক্ষিত শ্রেনীর এমন কিছু কর্মকান্ড রয়েছে যেগুলো ভাবিত করে সুশীল সমাজকে। মানবিক সভ্যতার পতনশীল পরিস্থিতি উদ্বিগ্ন্ও করছে তাদের। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় সম্প্রতি উত্তাল হয়ে উঠে ভিসি বিরোধী আন্দোলনে। এই আন্দোলনে আন্দোকারীদের পক্ষে ছিল আপামর মানুষের সমর্থন। অসহিংস আন্দোলনও সহানুভূতি পেয়েছিল সর্বত্র। আমরণ অনশনে নেমে নাড়িয়ে দিয়েছিল শিক্ষার্থীরা অনুভূতিশীল মানুষের হৃদয়। সেই শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙ্গাতে চেষ্টা করা হয়েছে নানা পর্যায়ে। এমনকি তাদের পিতৃতুল্য শিক্ষকরা চেষ্টা করেছেন অনশণ ভাঙ্গাতে। কিন্ত তারা কথা রাখেনি অনশন ভাঙ্গেনী। শেষ অবধি অনশন ভেঙ্গেছে সাবেক শিক্ষক ড. জাফর ইকবালের হাতে। ঢাকা থেকে সিলেটে যেয়ে তাদের অনশন ভাঙ্গাতে সমর্থ হন তিনি। কিন্তু শিক্ষক তো শিক্ষকই, শিক্ষকের মযার্দা রক্ষা করা, সম্মান করা প্রকৃতি শিক্ষার্থীদের দায়িত্ব কর্তব্য। এক্ষেত্রে বিষয়টি হয়ে উঠে প্রশ্নবিদ্ধ। সেই সাথে শিক্ষার্থীদের এমন আচরণও মর্মাহত হয়েছেন অনেকে। তবে থেমে নেই ভিসি বিরোধী আন্দোলন। চলমান এ প্রক্রিয়ায় সর্বশেষ আজ

‘উপাচার্য বিরোধী প্রীতি ফুটবল টুর্নামেন্ট’ খেলেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। ফুটবলে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিনের নাম লিখেছে অত্যন্ত সচেতনভাবে শিক্ষার্থীরা। হয়তো আবেগ ক্ষোভে ছাপিয়ে গেছে তাদের সচেতন মন। সেই মনেই সুরক্ষা ও গ্রহনযোগ্যতা পেতে
প্রতিবাদের পরিপক্কতা। আজ বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকাল ৪টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘আজ মুক্তমঞ্চ’-এর সামনে অনুষ্ঠিত হয় এ প্রীতি ফুটবল টুর্নামেন্ট। সর্বোপরি ভিসি ফরিদ উদ্দিন আহমদ একজন শিক্ষক, শাবির অভিভাবক। অভিভাবককে ফুটবলে নামিয়ে নিয়ে আসা কারো জন্য মঙ্গলজনক নয়। এতে হতাশও অনেকে। কারন ‘কামড়ের বদলা কামড়’ সুস্থ মানসিকতার পরিচয় বহন করে না। দায়িত্বশীল ভূমিকা প্রত্যাশা সকলের। সেই প্রত্যাশায় শাবির শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ মঞ্চকে সুসংহত করবে বলে অনেকের বিশ্বাস, সেই সাথে তাদের উপর মানুষের আস্থা সু-দৃড় করবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ