Inqilab Logo

রোববার, ২৯ মে ২০২২, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৭ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

খাজনার চেয়ে বাজনা বেশি!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৪ এএম

‘খাজনার চেয়ে বাজনা বেশি’। এই প্রবাদ বাক্য বাস্তব হয়ে দেখা দিয়েছে মার্সিডিজ কার কেনা এক ব্যক্তির জীবনে! এই ব্যক্তি হলেন ব্রিটেনের লেস্টারের বাসিন্দা রঞ্জিৎ সিংহ। তিনি মার্সিডিজের গুণমুগ্ধ ভক্তও বটে।
প্রায় আট বছর আগে বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৪ লাখ ৩৭ হাজার টাকায় (২৭ হাজার পাউন্ড) মার্সিডিজের হাইব্রিড গাড়ি কিনেছিলেন। সে সময় তাকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল গাড়ির ব্যাটারির মেয়াদ আট বছর। তার পর তা বদলাতে হবে।
কিন্তু সেই ব্যাটারিই যে রঞ্জিতের মাথাব্যথার বড় কারণ হয়ে দাঁড়াবে আট বছর পর সেটা তিনি হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন। ব্যাটারি বদলাতে গিয়ে তার দাম শুনে অজ্ঞান হওয়ার অবস্থা। তাকে বলা হয়, ব্যাটারির দাম ১৭ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। (১৫ হাজার পাউন্ড)!
এরপরই রঞ্জিৎ তার গাড়ির বর্তমান বাজারদরের খোঁজ নেন। দেখা যায়, সেই গাড়ির দাম ১৪ লাখ ৩৭ হাজার টাকা। দাম শুনে মাথায় বাজ পড়ার অবস্থা। এ তো গাড়ির থেকে ব্যাটারির দাম বেশি! তার উপর গাড়ির মেকানিক প্রতি ঘণ্টায় চার্জ নেবেন ২৩ হাজার টাকা (২০০ পাউন্ড)। এর পরই রঞ্জিৎ হাইব্রিড গাড়ির একজন বিশেষজ্ঞের কাছে ছুটে যান পরামর্শ নেওয়ার জন্য।
কিন্তু সেখানে গিয়েও তাকে হতাশ হতে হয়। ওই বিশেষজ্ঞ জানান, এই গাড়ি সস্তায় সারনোর কোনও উপায়ই নেই। হয় ব্যাটারি পাল্টাতে হবে, না হয় গাড়িটি বিক্রি করতে হবে। আবার শখ করে কেনা মার্সিডিজকেও হাতছাড়া করতে চাইছেন না রঞ্জিৎ। ফলে গাড়ির ব্যাটারি পাল্টাবেন, নাকি বিক্রি করে দেবেন তা নিয়ে উভয় সঙ্কটে পড়েছেন তিনি।
রঞ্জিতের মেয়ে রামনিক কউর একটি গাড়ি সংস্থায় কাজ করেন। তিনি বলেন, ‘বাবা খুবই হতাশ। গাড়িটি নিয়ে কী করবেন বুঝে উঠতে পারছেন না। তিনি অবসরপ্রাপ্ত। ফলে এই বিপুল টাকাও তার কাছে নেই।’ ফলে শখ করে কেনা গাড়ি এখন সেই প্রবাদ বাক্যের মতোই তার জীবনে ধরা দিয়েছে। সূত্র : ডেইলি স্টার ইউকে, দ্য সুইজারল্যান্ড টাইমস।

 



 

Show all comments
  • Harunur Rashid ২৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১০:২৯ এএম says : 0
    Best not to play with big boys toys!
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ