Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০৩ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

পাকিস্তানের কাছে এফ-১৬ জঙ্গিবিমান বিক্রির সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রের, ভারত ক্ষুব্ধ

প্রকাশের সময় : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সরকার কংগ্রেসকে জানিয়েছে যে, পাকিস্তানের কাছে আটটি এফ-১৬ জঙ্গিবিমান বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। কংগ্রেসকে অবহিত করার ৩০ দিন পর জঙ্গিবিমান বিক্রি সংক্রান্ত চুক্তি চূড়ান্ত করা হবে। এদিকে চলতি সপ্তাহের গোড়ার দিকে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর কংগ্রেসকে অবহিত করেছে যে, পাকিস্তানের নির্ভুল ভাবে আঘাত হানার সক্ষমতা বাড়ানোর বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ওয়াশিংটন। আর এর ভিত্তিতে এফ-১৬ জঙ্গিবিমান বিক্রি করা হচ্ছে। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র মনে করে পাকিস্তানের কাছে জঙ্গিবিমান বিক্রি করা হলে তা সন্ত্রাসবাদবিরোধী লড়াইয়ে সহায়তা করবে এবং ওয়াশিংটনের পররাষ্ট্র নীতিকে এগিয়ে নেবে। এদিকে, চিরাচরিত নিয়মে যুক্তরাষ্ট্রের এ সিদ্ধান্তে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে ভারত। এ অসন্তোষ জানানোর জন্য মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে তলবের সিদ্ধান্তও নিয়েছে নয়াদিল্লি। এর আগে ইসলামাবাদের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটাতে পাকিস্তানের কাছে আটটি এফ-১৬ জঙ্গিবিমান বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয় ওয়াশিংটন। পাকিস্তান নিজের পরমাণু অস্ত্রভা-ার সমৃদ্ধ করছে বলে খবর প্রকাশিত হওয়ার পরও ওয়াশিংটন এ পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে বলে খবর প্রকাশ করে নিউইয়র্ক টাইমস। মার্কিন দৈনিকটিতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন বলা হয়েছে, কয়েকদিন আগে পাকিস্তানের কাছে এই জঙ্গিবিমান বিক্রির পরিকল্পনার কথা মার্কিন কংগ্রেসকে জানানো হয়। যে কোনো দেশের কাছে এফ-১৬ জঙ্গিবিমান বিক্রির ব্যাপারে হোয়াইট হাউজকে কংগ্রেসের অনুমোদন নিতে হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের বিমান বাহিনীতে বর্তমানে যে বিশাল জঙ্গিবিমানের বহর রয়েছে আটটি এফ-১৬ জঙ্গি বিমান তাকে আরো সমৃদ্ধ করবে। পাকিস্তানের কাছে বর্তমানে ৭০টি এ-১৬এস জঙ্গিবিমানের পাশাপাশি ফ্রান্স ও রাশিয়ায় তৈরি বহু অ্যাটাক এয়ারক্রাফ্ট রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তানের কাছে এফ-১৬ জঙ্গিবিমান বিক্রির সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রের
আরও পড়ুন