Inqilab Logo

শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৪ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

ধসে পড়ছে বেতাগী পৌর শহর রক্ষা বাঁধের ব্লক আতঙ্কিত শত শত মানুষ

প্রকাশের সময় : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বেতাগী (বরগুনা) উপজেলা সংবাদদাতা : সংস্কারের অভাবে উপকূলীয় বরগুনার বেতাগী উপজেলার উত্তর বেতাগী গ্রামের বিষখালী নদীর পাড়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবোর) বেতাগী পৌর শহর রক্ষা বাঁধের ব্লক ধসে পড়ছে। আর এতে এখানকার ভাগ্যাহত মানুষের কপাল পুড়ছে। আতঙ্কিত হয়ে পড়ছে শত শত মানুষ। ব্লক ধসে বাঁধটি নদীতে বিলীন হতে আর সময়ের ব্যাপার মাত্র। বাঁধের ব্লক রক্ষার জন্য ইতোমধ্যে গ্রামের বাসিন্দারা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সিডর, আইলায় ভেঙে যাওয়া রক্ষা বাঁধ স্থায়ীভাবে রক্ষার জন্য ২০১১ সালে আরো ব্লক তৈরি করে বাঁশ, বলি ও বস্তার চট রেখে গেছেন সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এরপর ওই ঠিকাদারের আর খোঁজ নেই। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ বাঁধ মেরামতের নামে লাখ লাখ টাকা লুট হয়েছে। কপাল খুলে গেছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও ঠিকাদার সিন্ডিকেটের। সরকার কাড়ি কাড়ি টাকা ঢেলেও, কাজের কাজ কিছুই হয়নি। টাকা কোথায় গিয়েছে? এ প্রশ্নই করছিলেন শহীদুল ইসলাম বাবুল, হুমায়ূন, আফজাল হোসেন ও সুরাইয়া বেগম। একই প্রশ্ন মুখে মুখে ফিরছে আরো অনেক সাধারণ মানুষের। সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বাঁধের ব্লক ধসে নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। ক্রমশ এর তীব্রতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ব্লক ধসে জোয়ারে লবণাক্ত পানি ঢুকে গাছপালা বিশেষ করে ফলজ বৃক্ষের পাতাগুলো পুড়ে আঙ্গার হয়ে গেছে। বাসিন্দারা পারছে না ফসল ফলাতে। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে বাসিন্দাদের প্রায়ই অভুক্ত কাটাতে হয়। এ ব্যাপারে বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এস.এম শহীদুল ইসলাম জানান, রক্ষা বাঁধের ব্লক ধসে পড়ার স্থান পরিদর্শন করে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হবে। বেতাগী পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব এবিএম গোলাম কবির বলেন, এখানকার মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে রক্ষা বাঁধের ব্লক সংরক্ষণে পদক্ষেপ নেয়া হবে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা আবদুস সোবাহান জানান, সরকারি কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা বিভিন্ন সময়ে যদিও বাঁধের ব্লক রক্ষার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন কিন্তু তাদের এ কথায় কেউ আশ্বস্ত হতে পারেছে না। ভুক্তভোগি আব্দুর রব এখানকার ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধের ব্লক রক্ষায় কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টির দাবি জানিয়েছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ধসে পড়ছে বেতাগী পৌর শহর রক্ষা বাঁধের ব্লক আতঙ্কিত শত শত মানুষ
আরও পড়ুন