Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

বিশ্বব্যাপী অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের একক আধিপত্য

প্রকাশের সময় : ৬ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

কর্পোরেট ডেস্ক : ২০১৬ সালের তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে অ্যান্ড্রয়েড চালিত ডিভাইসের দখল দাঁড়িয়েছে ৮৭ দশমিক ৫ শতাংশ; যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়েছে। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান স্ট্র্যাটেজি অ্যানালিটিকস প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এমন তথ্যই বেরিয়ে এসেছে। সাম্প্রতিক বেশকিছু ঘটনায় অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের (ওএস) নিরাপত্তা নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। একাধিক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, প্লাটফর্মটির ব্যবহারকারীদের বড় একটি অংশ নিরাপত্তা ঝুঁকিতে রয়েছে। কিন্তু তা সত্তে¡ও গ্রাহক সংখ্যা বেড়ে চলেছে। বিশ্বব্যাপী অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের একক আধিপত্যের কারণে খাতসংশ্লিষ্ট অন্য প্রতিদ্ব›দ্বীদের ব্যবসা হুমকির মুখে পড়েছে। চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে অ্যান্ড্রয়েডের দখল বাড়লেও আইওএস চালিত ডিভাইসের বাজার দখল ১ দশমিক ৫ শতাংশ হ্রাস পেয়ে দাঁড়িয়েছে ১২ দশমিক ১ শতাংশ। সামগ্রিকভাবে জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে অন্য মোবাইল প্লাটফর্মগুলোর বাজার দখল কমেছে ২ দশমিক ৩ শতাংশ। স্ট্র্যাটেজি অ্যানালিটিকসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় তৃতীয় প্রান্তিকে সরবরাহ ৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৩৭ কোটি ৫৪ লাখ ইউনিটে পৌঁছেছে। এরমধ্যে সিংহভাগ ডিভাইস গুগলের জনপ্রিয় মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড চালিত। অর্থাৎ তৃতীয় প্রান্তিকে অ্যান্ড্রয়েড চালিত স্মার্টফোনের সরবরাহ ১০ দশমিক ৩ শতাংশ বেড়ে ৩২ কোটি ৮৬ লাখ ইউনিটে পৌঁছেছে। অন্যদিকে আইফোনের সরবরাহ এক বছর আগের তুলনায় ৫ দশমিক ২ শতাংশ হ্রাস পেয়ে ৪ কোটি ৫৫ লাখ ইউনিটে দাঁড়িয়েছে। গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের তুলনায় এ বছর বাকি মোবাইল প্লাটফর্মগুলোর সরবরাহে বড় ধরনের পতন ঘটেছে। জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে সামগ্রিকভাবে অন্যান্য অপারেটিং সিস্টেমভিত্তিক স্মার্টফোনের সরবরাহ দাঁড়িয়েছে মাত্র ১৩ লাখ ইউনিট; যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৮৪ দশমিক ১ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। স্ট্র্যাটেজি অ্যানালিটিকসের পরিচালক লিন্ডা সুই বলেন, এটি স্মার্টফোন বাজারের জন্য দ্রæত প্রবৃদ্ধির বছর। বিশেষ করে, সাশ্রয়ী মূল্যের স্মার্টফোনের কারণে বাজারটিতে পুনঃপ্রবৃদ্ধি দেখা যাচ্ছে। এশিয়া, আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের বেশকিছু উদীয়মান বাজারে এ ধরনের সাশ্রয়ী ডিভাইসের চাহিদা বাড়ছে দ্রæত। উদীয়মান বাজার হিসেবে স্মার্টফোন ব্যবহারে এগিয়ে রয়েছে ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির আরেক পরিচালক উডি ওহ বলেন, বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে অ্যান্ড্রয়েড এক অপ্রতিদ্ব›দ্বী অবস্থান তৈরি করেছে। প্লাটফর্মটির সাশ্রয়ী মূল্যের সেবা এবং গ্রাহকবান্ধব সফটওয়্যার হার্ডওয়্যার নির্মাতা, অপারেটর এবং ব্যবহারকারীদের এখনো ব্যাপক হারে আকর্ষণ করছে। তিনি বলেন, গুগলকে এর পরও অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে বহু চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হচ্ছে। কারণ প্লাটফর্মটি বিপুল সংখ্যক হার্ডওয়্যার নির্মাতার কারণে জনাকীর্ণ হয়ে উঠেছে। খুব কমসংখ্যক অ্যান্ড্রয়েড চালিত ডিভাইস নির্মাতা এখন মুনাফা করতে সমর্থ হচ্ছে। পাশাপাশি নিজস্ব পিক্সেল ফোন বাজারজাত করেছে মার্কিন প্রতিষ্ঠানটি। বর্তমান স্মার্টফোন বাজারে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম চালিত স্মার্টফোন বিক্রির মাধ্যমে একক আধিপত্য বিস্তার করে আছে দক্ষিণ করিয়াভিত্তিক স্যামসাং। বিশ্বব্যাপী উদীয়মান বাজারগুলোয় তুলনামূলক সাশ্রয়ী মূল্যের এবং বড় ডিসপ্লের স্মার্টফোন ডিভাইসের চাহিদা এখনো উল্লেখযোগ্য। স্যামসাং ও চীনভিত্তিক বেশকিছু কোম্পানি অ্যান্ড্রয়েড চালিত সাশ্রয়ী মূল্যের স্মার্টফোন বাজারে এখন ভালো অবস্থানে রয়েছে। স্ট্র্যাটেজি অ্যানালিটিকসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, কৌশলগত কারণে স্মার্টফোন বাজার থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নিয়েছে বø্যাকবেরি এবং মাইক্রোসফট। এক্ষেত্রে স্যামসাংয়ের নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম টাইজেন চালিত ডিভাইসের মাধ্যমে ব্যবসা সম্প্রসারণের নতুন দ্বার উন্মুক্ত হয়েছে ডিভাইস নির্মাতাদের জন্য।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ