Inqilab Logo

বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯, ২৮ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

বড় দরপতনে শেয়ারবাজার

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:০৪ এএম

মাত্র একদিনেই দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন কমেছে সাড়ে ১০ হাজার কোটি টাকার ওপরে। এদিন দরপতন হয়েছে ৯৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের। ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক কমেছে দেড়শ পয়েন্টের ওপরে। ফলে ঘটেছে ভয়াবহ দরপতন। শেয়ারবাজারে এই দরপতনের কারণ হিসেবে বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বেশকিছু প্রতিষ্ঠানের শেয়ারে বিনিয়োগ করে বড় বিনিয়োগকারীরা আটকে রয়েছেন। এসব প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম অনেক বেড়ে গেছে। ফলে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা এসব শেয়ার কিনতে খুব একটা আগ্রহী হচ্ছেন না। ফলে সার্বিক বাজারে লেনদেনের গতি কমেছে। এ পরিস্থিতিতে গত বৃহস্পতিবার ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরু করে রাশিয়া, যা বাংলাদেশের শেয়ারবাজারের দরপতনকে আরও ত্বরান্বিত করে।
বিশ্লেষকরা বলছেন, রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটে সরাসরি প্রভাব দেশের শেয়ারবাজারে নেই। তবে মনস্তাত্ত্বিক প্রভাব রয়ে গেছে। রাশিয়া-ইউক্রেন সঙ্কটের কারণে ইতোমধ্যে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দামে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। এছাড়া রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের সরাসরি বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশ থেকে রাশিয়ায় যেসব পণ্য রপ্তানি হয় তার বেশিরভাগ তৈরি-পোশাক। বিপরীতে রাশিয়া থেকে যেসব পণ্য আমদানি হয় তার বেশিরভাগ খাদ্যপণ্য। রাশিয়ার ওপর আন্তর্জাতিক মহল বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় এসব ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।
তবে বিশ্লেষকদের একটি অংশ বলছে, রাশিয়া-ইউক্রেন সঙ্কট থেকে বাজারে এখন বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে গুজব। একটি চক্র কম দামে শেয়ার কেনার জন্য বাজারে নানা গুজব ছড়াচ্ছে। এক্ষেত্রে চক্রটি রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। গুজবের কবলে পড়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা আতঙ্কে শেয়ার বিক্রির চাপ বাড়াচ্ছে। ফলে শেয়ারবাজারে বড় দরপতন হয়েছে।
বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গতকাল শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হতেই প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দামের পাশে লাল চিহ্ন দেখা যায়, অর্থাৎ দরপতন হয়। লেনদেনের সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে লাল চিহ্নের সংখ্যা। লাল ঘোড়ায় সাওয়ার হয়ে ছুটে চলার মতো ছিল পুরো লেনদেন সময়। ফলে দিন শেষে ভয়াবহ দপতনের দেখা মেলে।
দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে মাত্র ১০টি প্রতিষ্ঠান দাম বাড়ার তালিকায় স্থান করে নিতে পারে। বিপরীতে দাম কমেছে ৩৬৫টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের। চারটির দাম অপরিবর্তিত থাকে। অর্থাৎ লেনদেনে অংশ নেওয়া ৯৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের দরপতন হয়েছে।
এতে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১৬৩ পয়েন্ট কমে ছয় হাজার ৬৭৬ পয়েন্টে নেমে গেছে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক আগের দিনের তুলনায় ৩০ পয়েন্ট কমে এক হাজার ৪৪৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক ৪৭ পয়েন্ট কমে দুই হাজার ৪৬৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে।
দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৯১৬ কোটি ২৮ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় এক হাজার ৫০ কোটি ২৮ টাকা। সে হিসাবে লেনদেন কমেছে ১৩৪ কোটি টাকা। এই পতনের মধ্যে পড়ে একদিনে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ১০ হাজার ৬৬৮ কোটি টাকা। অন্য শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই কমেছে ৪৯০ পয়েন্ট। বাজারে লেনদেন হয়েছে ৩৩ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩০৪টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ২৮৪টির এবং ১১টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।
শেয়াবাজারের এই দরপতনের পরিপ্রেক্ষিতে ফেসবুকে এক পোস্ট দিয়ে ডিএসইর পরিচালক মো. শাকিল রিজভী বলেছেন, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের উল্লেখযোগ্য প্রভাব না থাকলেও মনস্তাত্ত্বিকভাবে এটি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি করেছে। অনেকেই অপেক্ষায় আছেন কম দামে ভালো শেয়ার কীভাবে কেনা যায়। তবে বাজার তার আপন শক্তিতে ঘুরে দাঁড়াবে।
এ বিষয়ে ডিএসইর সাবেক পরিচালক মিনহাজ মান্নান ইমন বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন সঙ্কটের পরোক্ষ একটি প্রভাব দেশের শেয়ারবাজারে পড়েছে। রাশিয়া ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরু করার পর বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে গেছে। জ্বালানি তেলের দাম বাড়লে তা প্রতিষ্ঠানের মুনাফার ওপর এক ধরনের নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। এছাড়া বিভিন্ন কোম্পানিতে বড় বড় বিনিয়োগকারীর বিনিয়োগ আটকে আছে। সবকিছু মিলিয়েই শেয়ারবাজারে এই দরপতন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বড় দরপতনে শেয়ারবাজার

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২২
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ