Inqilab Logo

শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৭ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা শেষ পরিধি বাড়াতে ঢাকায় কর জরিপের পরামর্শ

প্রকাশের সময় : ৮ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : গতকাল শেষ হয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা। তাই রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনবিআরের নিজস্ব ভবনে করদাতা আর সেবাগ্রহীতাদের ঢল নামে সকাল থেকেই। এদিকে করের আওতা বৃদ্ধি করতে রাজধানীতে জরিপ করা দরকার বলে মনে করেন জাতীয় সংসদের অর্থ সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. আব্দুর রাজ্জাক। গতকাল সোমবার আয়কর মেলার সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ অভিমত ব্যক্ত করেন।
মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি বুথের সামনেই করদাতাদের উপচে পড়া ভিড়। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়েও আয়কর রিটার্ন দাখিল করছেন করদাতারা। ফরম পূরণের জন্য করদাতাদের জন্য বরাদ্দকৃত চেয়ার-টেবিল খালি না থাকায় ফ্লোরে বসেই ফরম পূরণ করছেন অনেকে। মেলায় আগত করদাতাদের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন রাজস্ব কর্মকর্তারা।
সেমিনারে ঢাকা নগরীতে কর আদায়ে জরিপ করা উচিত- এমন কথা উল্লেখ করে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এখানে বসবাসকারী মানুষের মধ্য থেকে কি পরিমাণ আয়কর আসা উচিত ও বর্তমানে কি পরিমাণে কর আসছে- এ বিষয়ে জরিপ করা দরকার। কর ফাঁকি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পৃথিবীর সকল দেশেই কর ফাঁকি দেয়ার প্রবণতা রয়েছে। আমাদের দেশে যারা কর ফাঁকি দিচ্ছেন তাদের কীভাবে করের আওতায় আনা যায় সে কৌশল বের করতে হবে। এটা পারলেই এনবিআর সফল হবে।
আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বর্তমানে আমাদের দেশে মোট জিডিপির মাত্র ১১ শতাংশ কর আদায় হয়। যা বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক কম। এমনকি পার্শ্ববর্তী দেশের তুলনায়ও কম। বর্তমান অবস্থায় ১৪ থেকে ১৫ শতাংশ কর আদায় সম্ভব। কর ছাড়া দেশের উন্নয়ন হবে না।
এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে বক্তব্য রাখেন অর্থ সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সদস্য টিপু মুনশি এমপি, বেগম আক্তার জাহান এমপি ও শওকত চৌধুরী এমপি। এর আগে ড. আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে ৭ সদস্যের একটি দল মেলা পরিদর্শন করে। তারা মেলায় স্টলগুলো ঘুরে দেখেন।
রাজধানীসহ দেশের ১৩টি জেলা, ৩১টি উপজেলাসহ (৮টি ভ্রাম্যমাণ) মোট ৪৪টি স্পটে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হয়। মেলায় ৬ষ্ঠ দিন পর্যন্ত ১ হাজার ৭২৭ কোটি ৭২ লাখ ৭ হাজার ৪৫৭ টাকা আয়কর আদায় হয়েছে।
কর দেয়ার জন্য ব্যক্তি-শ্রেণির করদাতাদের উৎসাহিত করতে প্রতি বছর আয়কর মেলার আয়োজন করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। ৭ম বারের মতো আয়োজিত আয়কর মেলায় ই-টিআইএন রেজিস্ট্রেশন, ই-পেমেন্ট ও অনলাইনে আয়কর বিবরণী দাখিলসহ কর সংক্রান্ত সব সেবা পাওয়া যায়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা শেষ পরিধি বাড়াতে ঢাকায় কর জরিপের পরামর্শ
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ